সোমবার, ৩১ আগস্ট, ২০২০

মুসলিমদের ভালো হিসেবে চিত্রিত করার খেসারত অসমে, নিষিদ্ধ টিভি সিরিয়াল



পুবের কলম ওয়েব ডেস্ক: লাগাতার ভাবে এই প্রশ্ন এখন উঠছে, আমরা কোন ভারতবর্ষকে জানতাম আর আগামী প্রজন্ম কোন ভারতবর্ষকে দেখবে! 

ভারতবর্ষ বা হিন্দুস্থান চিরকালই নাগরিকদের বিভিন্ন ধর্ম-ভাষা,অঞ্চল ও লোকাচারের ভিত্তিতে গড়ে উঠেছে। ‘বিভেদের মাঝে ঐক্য’ ভারতের মূল সূত্র। কিন্তু এখন একের পর এক যেসব ঘটনা ঘটছে, যেভাবে ধর্মের ভিত্তিতে মানুষকে অমানুষ মনে করা হচ্ছে, হত্যা করা হচ্ছে নির্মমভাবে, মানবতাকে বিসর্জন দেওয়া হচ্ছে, হিংসা-বিদ্বেষ চাগিয়ে তোলা হচ্ছে তাতে ভারতবর্ষে চরিত্র এবং সাংবিধানিক গঠন পালটে যাচ্ছে। এখন হামলা হচ্ছে ভারতের সংস্কৃতির ওপর। তুচ্ছ বিষয়কে বড়ো করে বিদ্বেষ প্রচারের হাতিয়ার করে তোলা হচ্ছে। 

সম্প্রতি অসমের পুলিশ উগ্র হিন্দুত্ববাদীদের অভিযোগের ভিত্তিতে একটি টিভি সিরিয়াল ‘বেগম জান’-কে দুই মাসের জন্য নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে। গুয়াহাটির পুলিশ কমিশনার এম পি গুপ্ত এই নিষেধাজ্ঞা জারি করেছেন। তিনি স্থানীয় ওই টিভি চ্যানেলটিকে একটি আদেশ দিয়ে জানিয়েছেন,‘সিরিয়ালটির বিরুদ্ধে অভিযোগের সংক্ষিপ্তসার হচ্ছে ওই ‘বেগম জান’ সিরিয়ালটি সমাজের একটি অংশের ‘সেন্টিমেন্টে’ আঘাত করেছে। এই সিরিয়ালে ব্যবহ*ত কিছু দৃশ্য এবং শধ একটি বিশেষ ধর্ম ও সমাজের জন্য অবমাননাকর। আর এর ফলে সহিংসতার সৃষ্টি হতে পারে।’

পুলিশ বলছে,তারা ‘হিন্দু জাগরণ মঞ্চ’,‘অল অসম ব্রামিন ইউথ কাউন্সিল’, ‘ইউনাইটেড ট্রাস্ট অফ অসম’ এবং একজন ব্যক্তি গুনাজিৎ অধিকারীর অভিযোগের ভিত্তিতে ২ মাসের জন্য ‘বেগম জান’কে নিষিদ্ধ করছেন। 

অন্যদিকে বিভিন্ন মহল থেকে বলা হচ্ছে,আসল কথা হল ওই সিরিয়ালটি মুসলমানদের ‘ভালো হিসাবে’ চিত্রিত করা হচ্ছে। আর সেটাই উগ্র হিন্দুত্ববাদী সংগঠনগুলির সহ্য হচ্ছে না। তাই তারা এর বিরুদ্ধে পুলিশের দ্বারস্থ হয়েছে। আর পুলিশও কোনও রকম তদন্ত বা প্রমাণ ছাড়াই ওই শাসক বিজেপির ঘনিষ্ঠ ব্যক্তিদের অভিযোগকে সত্য বলে স্বীকৃতি দিয়ে সিরিয়ালটিকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করল। 

সিরিয়ালটির মূল কাহিনি হচ্ছে, একজন হিন্দু তরুণী একটি মুসলিম মহল্লায় সমস্যায় পড়েন। মুসলিমরা তার প্রতি সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন। তারমধ্যে এক মুসলিম যুবক বিশেষ করে ওই হিন্দু তরুণীকে সাহায্য করে। হিন্দু তরুণীটি সব সময় সমাজের অন্যায়ের বিরুদ্ধে লড়ে যাচ্ছিলেন বলে সিরিয়ালটিতে দেখানো হয়। এটাই হচ্ছে সিরিয়ালটির ‘অপরাধ’। 

প্রীতি কঙ্গনা ‘বেগম জান’ সিরিয়ালে মুখ্য নায়িকার চরিত্রে অভিনয় করেছেন। তিনি সংবাদমাধ্যমে জানিয়েছেন, অনলাইনে তাঁকে সব সময় ধর্ষণ ও খুনের হুমকি দেওয়া হচ্ছে। তাঁর বিরুদ্ধে আরব দেশের কাছ থেকে টাকা নেওয়ার ভুয়ো অভিযোগ তোলা হয়েছে এবং তিনি নাকি একজন ‘প্রসটিটিউট’ একথা প্রচার করা হচ্ছে। প্রীতি বলেন, ওই সিরিয়ালে মোটেই কোনও ‘লাভ জিহাদ’-এর প্রচার করা হচ্ছে না। কোনও সম্প্রদায়কেও হেয় করা হচ্ছে না। বরং এতে রয়েছে সমস্যায় পড়া একজন হিন্দু তরুণীকে এক মুসলিম যুবক সাহায্য করছেন। 

‘রেনগোনি’ টিভি চ্যানেলের ম্যানেজিং ডিরেক্টর সঞ্জীব নারায়ণ বলেন সিরিয়ালটির বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ করা হচ্ছে তা সবৈব মিথ্যা। রাজনীতি করার জন্যই এসব কথা বলা হচ্ছে। তিনি আরও বলেছেন,বিষয়টি নিয়ে তিনি আদালতে যাচ্ছেন। ‘লাভ জিহাদ’-এর সঙ্গে এর বিন্দুমাত্র সম্পর্ক নেই। এই প্রথম সারাদেশে এইভাবে কোনও প্রমাণ ছাড়াই একটি সিরিয়ালকে নিষিদ্ধ করা হল। তিনি আরও বলেছেন যে,এটি মত প্রকাশের স্বাধীনতার ওপর আক্রমণ। 

অসমের কিছু বুদ্ধিজীবীর মত হচ্ছে,‘লাভ জিহাদ’ নয়। হিন্দু-মুসলিমের মধ্যে মেলামেশা, কোনও মুসলমানদের ভালো হিসেবে চিত্রিত করাতেই কিছু সাম্প্রদায়িক গ্রুপের আপত্তি রয়েছে। কিন্তু পুলিশ কীসের ভিত্তিতে এটিকে নিষিদ্ধ করল– তা তাদের প্রকাশ করা দরকার। 

অসমকে বলা হয় ‘শান্তির রাজ্য’। অসমকে শংকরদেব এবং আযান ফকিরের দেশ বলে অসমিয়ারা গর্ব অনুভব করেন। এখানে বিভিন্ন জাতি-উপজাতি ও ধর্মের মানুষ বহু কাল ধরে বাস করছেন। এই আবহাওয়া নষ্ট করার জন্য প্রবল চক্রান্ত চলছে। তাই মুসলিমদের ভালো বলে চিত্রিত করার জন্যই হিন্দুত্ববাদীদের সমস্ত রাগ গিয়ে পড়েছে সিরিয়ালটির ওপর।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only