সোমবার, ৩১ আগস্ট, ২০২০

দলিত বৃত্তির টাকা নয়ছয়,তদন্ত নির্দেশ পঞ্জাবের অমরিন্দর সরকারের



পুবের কলম ওয়েব ডেস্ক: দলিতদের স্কলারশিপ নিয়ে দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে পঞ্জাবে। ৬৪ কোটি টাকা নয়ছয়ের অভিযোগ সামনে আসতেই এই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দর সিং তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন। কোনও মন্ত্রী এই দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত কিনা তা খতিয়ে দেখার আদেশ দিয়েছেন তিনি।

 এক বিবৃতিতে অমরিন্দর বলেছেন, স্কলারশিপ স্ক্যাম যারা করেছে তারা কেউ ছাড় পাবে না। এই মামলার সব দিকে নজর রাখবেন মুখ্য সেক্রেটারি বিনি মহাজন। মুখ্যমন্ত্রীর চিফ প্রিন্সিপাল সেক্রেটারি সুরেশ কুমার বলেছেন, তথ্য যাচাইয়ের জন্য বিশেষ রিপোর্ট চিফ সেক্রেটারির কাছে পাঠানো হয়েছে। তাঁকেও প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে বলা হয়েছে। আগামী কয়েকদিনের মধ্যে তিনি তাঁর বক্তব্য জানাবেন। সামাজিক ন্যায় ও ক্ষমতায়ন মন্ত্রী সাধু সিং ধরমসোতের বিরুদ্ধে অভিযোগ ওঠে যে তিনি দলিত পড়ুয়াদের পোস্টম্যাট্রিক স্কলারশিপের টাকা নয়ছয় করেছেন। অতিরিক্ত চিফ সেক্রেটারি কৃপা শঙ্কর সরোজ এক রিপোর্টে তা জানান। আপ ও বিজেপি সহ সমস্ত বিরোধী দল ওই মন্ত্রীর পদত্যাগের দাবি তুলেছে।

 প্রসঙ্গত, তপশিলি জাতির ছাত্রদের উচ্চশিক্ষায় ফিতে ছাড় ও অন্যান্য সুযোগ-সুবিধার জন্য কেন্দ্র সরকার এই পোস্টম্যাট্রিক স্কলারশিপ চালু করেছিল। রাজ্য সরকার ও প্রাইভেট কলেজের মাধ্যমে এই স্কলারশিপ দেওয়ার কাজ পরিচালিত হয়। অভিযোগ, ওই মন্ত্রী প্রাইভেট কলেজগুলিকে অন্যায্য সুবিধা দিয়েছেন এবং স্কলারশিপ ফান্ডের অর্থ আত্মসাৎ করেছেন। 

রিপোর্টে বলা হয়েছে,কেন্দ্র ৩০৩ কোটি টাকা দিয়েছিল পাঞ্জাবকে গত বছরের ফেব্রুয়ারি ও মার্চের মধ্যে। ২৪৮ কোটি টাকা তোলা হলেও বাকি ৩৯ কোটি টাকার কোনও হিসাব মিলছে না। এই অর্থ হয় আত্মসাৎ করা হয়েছে নতুবা ভুয়ো প্রতিষ্ঠানে জমা পড়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এই তদন্তে যুক্ত এক সিনিয়র আধিকারিক বলেন, অন্য স্ক্যামকে ধামাচাপা দিতে এই স্ক্যাম। বেসরকারি কলেজগুলি দু’ভাবে লাভবান হল। সরকারের কাছে তাদের যে ঋণ ছিল তা মকুব করা হয়েছিল এবং তাদের অতিরিক্ত গ্রান্টও দেওয়া হয়েছিল যা তাদের প্রাপ্য নয়।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only