রবিবার, ৩০ আগস্ট, ২০২০

ইরান নয়, ইসরাইলের জন্য বড় হুমকি তুরস্কঃ মোসাদ



 তেল আবিব, ৩০ আগস্টঃ ট্রাম্পের সুরে সুর মিলিয়ে ইসরাইলও এবার বলল, তাদের জন্য সবথেকে বড় হুমকি তুরস্ক। তাদের কুখ্যাত গুপ্তচর সংস্থা মোসাদ-এর প্রধান ইয়োসি কোহেন বলেছেন, ইসরাইলের জন্য ইরানের থেকেও বড় হুমকি হল তুরস্ক। ক’দিন আগে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, বড় চ্যালেঞ্জ হল চিন, রাশিয়া ও তুরস্ক। কারণ, এই তিন দেশের প্রেসিডেন্ট দীর্ঘদিন ধরে শাসন ক্ষমতায় রয়েছেন। তাই পুতিন, জিনপিং, এরদোগানের অভিজ্ঞতা অনেক। 


অন্যদিকে ট্রাম্পের প্রতিপক্ষ জো বিডেনও বলেছেন, তিনি ক্ষমতায় এলে তুরস্কে রিজিম চেঞ্জ করবেন। অর্থাৎ, এরদোগানকে উৎখাত করবেন। অথচ, আন্তর্জাতিক মিডিয়া বরাবরই বলে আসছে ইসরাইলের জন্য সবথেকে বড় চ্যালেঞ্জ বা হুমকি হল ইরান। ইসরাইলও সেই মতোই ইরানকে খুব ভয় পায়। তাই তারা ফিলিস্তিন, লেবানন, সিরিয়া, ইরাক প্রভৃতি দেশের ওপর মাঝেমধ্যেই হামলা চালালেও ইরানের দিকে কখনও অস্ত্র শানানোর স্পর্ধা দেখায়নি।


ইরানও বহুবার আমেরিকাকে হুমকি দিয়ে বলেছে, তাদের গায়ে আঁচড় লাগলে সবার আগে ইসরাইলকে মানচিত্র থেকে মুছে দেওয়া হবে। ইরানকে ভয় পাবার অন্যতম কারণ হল, ১৯৭৯ সালে খোমেনির নেতৃত্বে ইরানের ইসলামি বিপ্লব এবং মার্কিনবাহিনী ও মার্কিন কূটনীতিবিদদের করুণ পরিণতি। 


কিন্তু এবার ইসরাইলের কুখ্যাত গুপ্তচর সংস্থা মোসাদ বলল, তাদের দেশের জন্য ইরানের থেকেও বড় হুমকি হল তুরস্ক। এই মর্মে তেলআবিব প্রশাসনকে সতর্কবার্তায় মোসাদ এও বলেছে, ইরানের শাসন ব্যবস্থা নির্দিষ্ট সময় অন্তর বদলায়। বড়জোর ওদের প্রেসিডেন্ট ৮ বছর থাকতে পারে কিন্তু তুরস্কের শাসন ব্যবস্থায় টানা ১৭ বছর ধরে ক্ষমতায় রয়েছেন এরদোগান। তাই যতদিন এরদোগান ক্ষমতায় আছেন, তুরস্ক ততদিন ইসরাইলের জন্য সবথেকে বড় হুমকি হিসেবে পরিগণিত হবে।


বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ইরান যাতে ইসরাইলে ক্ষেপণাস্ত্র হামলার পরিকল্পনা না করে কিংবা ইরানের ওপর সামরিক ও কূটনৈতিক চাপ হালকা করতেই অবস্থান বদল করল মোসাদ। দ্য টাইমস-কে সাক্ষাতকারে ইরান-তুরস্ক নিয়ে তুলনামূলক আলোচনা করেছেন মোসাদের সর্বময়কর্তা ইয়োসি কোহেন। বর্ষীয়ান সাংবাদিক রজার বোয়েস-এর প্রশ্নের জবাবে কোহেন বলেন, ইসরাইলের অস্তিত্বের জন্য তো সবথেকে বড় হুমকি হল এরদোগানের তুরস্ক। 


এতদিন মনে করা হত ইরান। কিন্তু সময়ের সঙ্গে সঙ্গে পরিস্থিতি বদলাচ্ছে। এখন ইসরাইলের জন্য ইরানের থেকেও বড় হুমকি হল তুরস্ক। ইউরেশিয়ার দেশ তুরস্কের কূটনীতিকে ভয়ঙ্কর আগ্রাসী ও আধিপত্যকামী বলেন তিনি। তাই ন্যাটো যেন তুরস্ককে সদস্যপদ না দেয়, সেই আহ্বানও জানান মোসাদ সুপ্রিমো। কোহেনের কথায়, এরদোগান খুব ভুল করছেন। 


তিনি শুধুই শত্র‍ুর সংখ্যা বাড়িয়ে চলেছেন। যার শেষ পরিণতিতে পুরোপুরি নিঃসঙ্গ হয়ে যাবে তুরস্ক। কারণ, মধ্যপ্রাচ্য তথা সমগ্র মুসলিম বিশ্বের নেতা হতে চাইছেন এরদোগান। ফলে প্রতিটা কোণায় তাঁর শত্র‍ু বা প্রতিদ্বন্দ্বী তৈরি হচ্ছে। কাতার, ইরান, ফিলিস্তিন, আজারবাইজান ছাড়া আর কোনও মুসলিম দেশ তুরস্কের সমর্থনে নেই বলে মন্তব্য করেন কোহেন।


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only