বৃহস্পতিবার, ২০ আগস্ট, ২০২০

ভেঙে ফেলা হল বিসমিল্লাহ খানের বাড়ি– নির্বিকার প্রশাসন



পুবের কলম ওয়েব ডেস্কঃ  এই বাড়ির দোতলায় একটি প্রতিদিন ভোরে স্নান সেরে রেওয়াজ করতে বসতেন তিনি। আমেরিকায় থাকার প্রস্তাবও শুধুমাত্র এই বাড়ির টানে নির্দ্বিধায় ফিরিয়ে দিয়েছিলেন। তিনি ‘ভারতের’ উস্তাদ বিসমিল্লাহ খান। সানাইয়ের জাদুকর। তাঁর সাধের প্রিয় বাড়িটিই ভেঙে ফেলা হল। সবটা জেনেও নির্বিকার উত্তরপ্রদেশের যোগী আদিত্যনাথ সরকার। যদিও এই ঘটনায় ক্ষুব্ধ শিল্পীর অগণিত শিষ্য– ভক্ত ও অনুগামীরা।

আগামী ২১ আগস্ট বিসমিল্লাহ খানের ১৪তম মৃতু্যবার্ষিকী। তার আগেই তাঁর ‘সানাই মায়েস্টেঁfার’ বাড়ির একাংশ ভেঙে ফেলা হল। অভিযোগ– তাঁর আত্মীয়রাই এই কাজে জড়িত। হাদহা সরাইয়ের ওই বাড়িটি ছিল বিসমিল্লাহ খানের অত্যন্ত প্রিয় জায়গা। বাড়ির দোতলায় তিনি প্রতিদিন রেওয়াজ করতেন। ওই বাড়ি কখনও ছাড়তে পারেননি। আমেরিকায় বসবাসের জন্য জায়গা ও বাড়ি দেওয়ার প্রস্তাব এলেও তিনি তা ফিরিয়ে দিয়েছিলেন। শিল্পীর কথায়– এই বাড়িতেই তিনি শান্তির খোঁজ পেতেন। স্থানীয় সূত্রের খবর– উস্তাদজির রেওয়াজের ঘরটি দীর্ঘদিন  পড়ে থাকায় তা কার্যত ধ্বংসস্ত(পে পরিণত হয়েছে। দোতলা বাড়ির ওপরের অংশটি ভেঙে দেওয়া হয়েছে। যদিও ২০০৬ সালে উস্তাদ বিসমিল্লাহ খানের ইন্তেকাল হওয়ার পর তাঁর শিষ্য ও ভক্তরা আবেদন করেছিলেন– ওই বাড়িটিকে সংগ্রহশালা করা হোক এবং সেখানে সেখানে প্রদর্শিত হোক বিসমিল্লাহর বিভিন্ন স্মারক। উস্তাদজির স্মৃতিতে বাড়িটিকে হেরিটেজের তকমা দেওয়ার দাবিও করা হয়েছিল। কিন্তু কিছুই হয়নি। এক শিষ্যার কথায়– ঘরটি ভেঙে দেওয়া হয়েছে শুনে আমি মর্মাহত। ওই ঘরটি শুধু একটি ঘর ছিল না। সংগীত অনুরাগীদের জন্য সেটি ছিল উপাসনার এক পবিত্র স্থান। স্থানীয় সূত্রে খবর– গত ১২ আগস্ট ওই ঘরটি প্রথম ভেঙে গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়। যদিও বাড়ির এক সদস্যের কথায়– ওই বাড়িটি ভেঙে একটি বিশাল কমার্শিয়াল কমপ্লেক্স তৈরি হবে। উস্তাদজির ছোট ছেলে নাজিম হুসেন দাবি করেছেন– এই বাড়ি ভাঙার ব্যাপারে তিনি কিছু জানেন না। তবে তিনি ব্যাপারটি দেখবেন। উল্লেখ্য– সানাইয়ের মতো একটি ‘সাধারণ’ যন্ত্রকে মার্গসংগীতের স্তরে উন্নীত করে পূর্ণ অবয়ব দেওয়ায় উস্তাদ বিসমিল্লাহর অবদান সর্বজনস্বীকৃত। স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষ্যে তিনি তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহরুর আমন্ত্রণে লালকেল্লায় সানাই বাজিয়েছিলেন। ২০১৭ সালে– উস্তাদের প্রিয় সানাই বিক্রি করতে গিয়ে পুলিশের জালে ধরা পড়েছিল শিল্পীর নাতি নাজরে হাসান। রুপো দিয়ে বাঁধানো সানাই বিক্রি করে দিয়েছিল দু’টি গয়নার দোকানে। দেখা যায় সানাইয়ের রুপো বাঁধানো অংশগুলি গায়েব। পুলিশ অবশ্য সেই রুপোও উদ্ধার করে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only