বুধবার, ১২ আগস্ট, ২০২০

করোনার ভ্যাকসিন এনে বিশ্বে প্রথম আশার আলো দেখাল রাশিয়া

ইকবাল আলমঃ প্রতীক্ষার অবসান। বিশ্বে প্রথম করোনার ভ্যাকসিন আনল রাশিয়া। ভ্যাকসিনে ছাড়পত্র দিয়েছে সে দেশের স্বাস্থ্য মন্ত্রক। বিশ্বজুড়ে যেভাবে করোনা আগ্রাসন চালিয়ে যাচ্ছে, সেই পরিস্থিতি আশার আলো নিয়ে এল রাশিয়া। বিশ্বকে চমকে দিয়ে রাশিয়া জানিয়ে দিল তাদের তৈরি ভ্যাকসিন নিরাপদ। খুব শীঘ্রই সাধারণ মানুষকে এই টিকা দেওয়ার কাজ শুরু হবে। 


মঙ্গলবার সকালে সুখবরটি দিলেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভালদিমির পুতিন স্বয়ং। ভিডিয়ো কনফারেন্সের মাধ্যমে টেলিভিশনে এক সরকারি অনুষ্ঠানে ঘোষণা করলেন, তাঁর দেশ বিশ্বে প্রথম করোনা ভ্যাকসিন এনেছে। আর ভ্যাকসিনটি সর্বপ্রথম দেওয়া হয়েছে তাঁর এক মেয়েকেই। এরপরই প্রত্যয়ের সঙ্গে প্রেসিডেন্টের অভয়বার্তা, রাশিয়ার বিজ্ঞানীদের তৈরি এই ভ্যাকসিন সম্পূর্ণ নিরাপদ ও কার্যকরী। মস্কোর গামালেয়া ইন্সটিটিউট এই ভ্যাকসিন তৈরি করেছে তাদের প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের সঙ্গে যৌথভাবে। আমেরিকা, আস্ট্রেলিয়া, রাশিয়া, ইংল্যান্ড, ভারতের মতো দেশ টিকা তৈরির দৌড়ে থাকলেও পুতিনের দাবি সত্য হলে এটা বলা বাহুল্য যে সবার আগে বাজিমাত করল রাশিয়াই। 


উল্লেখ্য, এর আগে ২০ জুলাই অক্সফোর্ড বিজ্ঞানীরা ঘোষণা করেছিলেন, তাঁদের তৈরি ভ্যাকসিনের ট্রায়াল (পরীক্ষামূলক প্রয়োগ) প্রাথমিকভাবে সফল হয়েছে। ট্রায়ালের পর বিষয়টি আরও স্পষ্ট হবে। যদিও তাঁদের তৈরি ভ্যাকসিন একেবারেই প্রাথমিক পর্যায়ে আছে বলে তখন জানিয়েছিলেন তাঁরা। 


অক্সফোর্ডের এই ঘোষণার প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই রাশিয়া ঘোষণা করে দিয়েছিল আগামী মাসেই তারা করোনা ভ্যাকসিন বাজারে আনছে। রাশিয়ার এই দাবি ঘিরে সেইসময় কার্যত অবাক হয়ে গিয়েছিল গোটা বিশ্ব। বেশিরভাগ দেশই যখন ভ্যাকসিন তৈরির প্রক্রিয়ার একেবারে শুরুর পর্যায়ে রাশিয়া কীভাবে মাত্র এক মাসের মধ্যে ভ্যাকসিন তৈরি করে ফেলবে, তা ভেবে তারা আশ্চর্য হয়ে গিয়েছিল। 


ফলে রাশিয়া কী করে সেদিকে নজর ছিল গোটা বিশ্বের। সেইমতো মঙ্গলবার বিশ্বের মধ্যে করোনার প্রথম ভ্যাকসিন এনে সবাইকে চমকে দিয়েছে রাশিয়া। রাশিয়ার প্রেসিডেন্টের গর্বিত মন্তব্য, ‘আমি জানি এই ভ্যাকসিন খুব ভালোভাবেই কার্যকরী হবে। কড়া ইমিউনিটি (রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা) গড়ে তুলবে। 


আমি আবারও বলছি, প্রয়োজনীয় সমস্ত পরীক্ষায় এই ভ্যাকসিন উত্তীর্ণ হয়েছে।’ এই টিকার নাম রাখা হয়েছে ‘স্পুটনিক-ভি’। উল্লেখ্য, হিউম্যান ট্রায়াল (মানব শরীরে পরীক্ষা) শুরুর ২ মাসের মধ্যেই রাশিয়া এই ভ্যাকসিন তৈরি করেছে। স্বাভাবিকভাবেই এত তাড়াহুড়ো করে রাশিয়া এই ভ্যাকসিন তৈরি করায় তা কতটা কার্যকরী হবে, তা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছে আমেরিকা। এমনকী বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ‘হু’-ও তাড়াহুড়ো করে ভ্যাকসিন তৈরি করা নিয়ে রাশিয়াকে সতর্ক করেছিল। 


হু-র পরামর্শ ছিল, সমস্ত স্বাস্থ্যবিধি ও গাইডলাইন মেনে নির্ধারিত সময়সীমা মেনেই যেন ভ্যাকসিন তৈরি করা হয়। ব্রিটেনও এই ভ্যাকসিন ব্যবহারে অনীহা প্রকাশ করেছে। তবে রাশিয়ার ভ্যাকসিন নিয়ে আমেরিকা সংশয় প্রকাশ করলেও ইতিমধ্যে এই ভ্যাকসিন চেয়ে ৫টি দেশ চুক্তি করে ফেলেছে রাশিয়ার সঙ্গে। 


রাশিয়া জানিয়েছে, ৫টি দেশে প্রতিবছর ওই টিকার ৫০ কোটি ডোজ উৎপাদন করতে সক্ষম। মস্কো সূত্রে আরও বলা হয়েছে, ইতিমধ্যেই ২০টি দেশ ওই টিকার মোট ১০০ কোটি ডোজের চাহিদার কথা তাদের জানিয়েছে। রাশিয়ার স্বাস্থ্য মন্ত্রক জানিয়েছে, তারা এই ভ্যাকসিনকে ছাড়পত্র দিয়েছে। ১৮ জুনের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল হয়। প্রথম পর্যায়ে ৭৬ জনের উপর এই ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা হয় এবং তাদের শরীরে করোনা অ্যান্টিবডি তৈরি হয়েছে। বিভিন্ন ধাপে আরও ১,৬০০ জনের শরীরে এর প্রয়োগ করা হবে। 


স্বাস্থ্য মন্ত্রকের তরফে আরও জানানো হয়েছে, জনসাধারণের জন্য চলতি বছরের সেপ্টেম্বর মাস থেকেই ভ্যাকসিন তৈরির কাজ শুরু হবে। আর অক্টোবর মাস থেকেই জনতাকে টিকা দেওয়ার কাজ শুরু হবে। আর ২০২১ সালের ১ জানুয়ারি থেকে বিশ্বের অন্যান্য দেশ রাশিয়ার তৈরি এই ভ্যাকসিন পাবে। 


উল্লেখ্য, রাশিয়া ছাড়াও আমেরিকা ও ভারত এই ভ্যাকসিন তৈরির ট্রায়াল চালাচ্ছে। ১৫ আগস্ট স্বাধীনতা দিবসের দিনই মোদি সরকার ভারতের তৈরি ভ্যাকসিন বাজারে আনতে চেয়েছিল। সেক্ষেত্রেও তাড়াহুড়ে করে ভ্যাকসিন আনলে তাতে হিতের বিপরীত হতে পারে কি না, তা নিয়ে বিতর্ক তৈরি হয়। ফলে পিছু হটে কেন্দ্র। 


তবে রাশিয়ার এই ভ্যাকসিন নিয়ে বিতর্ক তৈরি হলেও রাশিয়ার সংবাদমাধ্যমের বক্তব্য অনুযায়ী, ১৮ জুন রাশিয়া করোনা ভ্যাকসিনের প্রথম হিউম্যান ট্রায়াল করে। আর দ্বিতীয় দফার ট্রায়াল শুরু হয়েছিল ১৩ জুলাই থেকে। আর ৩ আগস্ট গামালেয়া ঘোষণা করে তাদের ট্রায়াল সম্পূর্ণ। 


রুশ স্বাস্থ্যমন্ত্রী মিখাইল মুরাস্কো জানান, দীর্ঘস্থায়ী প্রতিরোধের জন্য দু’ধাপে টিকাটি নিতে হবে। করোনা প্রতিরোধ করার মতো ক্ষমতা শরীরে থাকবে দু’বছর। যদিও, মার্কিন সংবাদপত্র নিউইয়র্ক টাইমস্ সমালোচনা করে বলেছে রাজনৈতিক ও প্রচারের উদ্দেশ্যে সাধারণ মানুষকে টিকা দেওয়ার দৌড়ে সামিল হয়েছে রাশিয়া।


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only