বুধবার, ৫ আগস্ট, ২০২০

'বাবরি ছিল একটি মসজিদ, আর এটা চিরকাল মসজিদই থাকবে': পার্সোনাল ল' বোর্ড


নয়াদিল্লি: বাবরি মসজিদের জমিতে রাম মন্দির নির্মাণের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ঠিক তার আগে ভারতে মুসলিমদের জোট সংগঠন 'মুসলিম পার্সোনাল ' বোর্ড'-এর তরফ থেকে এক বিতি দিয়ে বলা হয়েছে, 'অযোধ্যায় বাবরি ছিল একটি মসজিদ আর এটা চিরকালই মসজিদই থাকবে' ওই বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, 'সুপ্রিমকোর্টের রায়কে গ্রহণ করা ছাড়া, আমাদের কাছে কোনও বিকল্প ছিল নাকিন্তু আমরা অবশ্যই বলব, এই রায় সুবিচারপূর্ণ তো ছিলই না, বরং ছিল ন্যায়বর্জিত'  

বাবরি মসজিদের জমিতে 'ভূমি পূজন' করে স্বয়ং নরেন্দ্র মোদি রাম মন্দির নির্মাণের সূচনা করেছেন মনে করা হচ্ছে পার্সোনাল ' বোর্ডের এই বিবৃতি বিশ্বকে মনে করিয়ে দেবে এখানে প্রায় ৫০০ বছর ধরে একটি মসজিদ দাঁড়িয়ে ছিল আর এখানে নিয়মিত নামায পড়া হতো সেটাকে ছলে-বলে-কৌশলে সংঘ পরিবার উগ্রপন্থীরা দখলে নেয় পরে মসজিদটি ধ্বংস করে ভগবান শ্রী রামের মন্দির তৈরির সূচনা করে ' বোর্ড-এর নেতৃবৃন্দ মনে করছেন, সংখ্যালঘু মুসলিমদের ওপর যে বিরাট অবিচার করা হয়েছে তা, রাম মন্দিরের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের দিনে সকলকে মনে করিয়ে দেওয়া উচিৎ

পার্সোনাল ' বোর্ড-এর সাধারণ সম্পাদক মাওলানা ওয়ালি রহমানি বলেছেন, আমাদের দেশে সুপ্রিম কোর্ট হচ্ছে বিচারের সর্বোচ্চ প্রতিষ্ঠানসুপ্রিমকোর্টের রায়কে গ্রহণ করা ছাড়া, আমাদের কাছে কোনও বিকল্প ছিল নাকিন্তু একথা অবশ্যই বলব বাবরি মসজিদ ধ্বংস করার পর সেই জমিকে তাদের হাতেই তুলে দেওয়া হল, যাঁরা 'ক্রিমিনাল'-এর মতো মসজিদের মধ্যে মূর্তি স্থাপন করেছিলআর এরাই ১৯৯২ সালে শীর্ষ আদালতের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে বাবরি মসজিদ ধ্বংস করেছিল মাওলানা ওয়ালি রহমানির বিবৃতিতে নভেম্বর, ২০১৯ সালের সুপ্রিম কোর্ট প্রদত্ত রায়ের উল্লেখ রয়েছে তিনি বলেন, যদিও সুপ্রিমকোর্ট স্বীকার করেছে যে, ২২ ডিসেম্বর ১৯৪৯ সালে বাবরি মসজিদের ভেতরে অবৈধভাবে মূর্তি স্থাপন এবং ডিসেম্বর ১৯৯২ সালে মসজিদটি ধূলিসাৎ করে দেওয়া ছিল বেআইনি কাজ কিন্তু এতো সব বলার পরও, সুপ্রিম কোর্ট ওই 'বেআইনি কাজকেই' বৈধতা দিয়েছেসুপ্রিম কোর্ট রায় দিয়েছে, মসজিদের জমি একটি ট্রাস্টের হাতে যাওয়া উচিৎ এই ট্রাস্টের দায়িত্ব হবে ওই জমিতে রাম মন্দির নির্মাণ করা!

পার্সোনাল ' বোর্ড-এর সাধারণ সম্পাদক মাওলানা ওয়ালি রহমানি এই জমির অবস্থান মর্যাদা সম্পর্কে বলেছেন, ইসলামি শারিয়া- অনুযায়ী, কোনও জায়গাতে যদি কোনো মসজিদ নির্মাণ করা হয়, তবে কেয়ামত পর্যন্ত তা মসজিদ বলে গণ্য হবে কাজেই প্রায় ৫০০ বছর বাবরি একটি মসজিদ ছিল এবং ইনশাল্লাহ মসজিদ হিসাবেই থাকবে রহমানি আরও বলেন, 'গত বছর নভেম্বরে প্রদত্ত সুপ্রিম কোর্টের রায়টি বাবরি মসজিদের জমির মালিকানা সম্পর্কে তাদের নিজ বক্তব্যকেই খারিজ করে আমাদের অবস্থান হচ্ছে বাবরি মসজিদ কোনও মন্দির অথবা হিন্দুদের কোনও পুজোর স্থল ধ্বংস করে নির্মিত হয় নি সুপ্রিম কোর্টও তাদের রায়ে আমাদের এই বক্তব্যকে স্বীকৃতি দিয়েছেবাবরি মসজিদের জমির নিচে খনন কার্য চালিয়ে দেখা যায় দ্বাদশ শতকের এক কাঠামোর ওপর বাবরি মসজিদ গড়ে উঠেছে এটা বাবরি মসজিদ নির্মাণের ৪০০ বছর আগের ঘটনা এরদ্বারা বোঝায়,বাবরি মসজিদ কোনও মন্দির ধ্বংস করে তা গড়ে ওঠেনি'

পার্সোনাল বোর্ড মুসলিমদের উদ্দেশ্যে বলেছে, অযোধ্যা নিয়ে আপনারা মন খারাপ করবেন না তুরস্কের আয়া সোফিয়া মসজিদ একটি দারুণ উদাহরণ এরদ্বারা প্রমাণিত হয় যে, সময়ের অগ্রগতির সঙ্গে পরিস্থিতি বদলাতে পারে

 

 


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only