রবিবার, ৯ আগস্ট, ২০২০

উচ্চশিক্ষায় ভর্তিতে আর্থিকভাবে পিছিয়ে পড়াদের কত শতাংশ সংরক্ষণ রাখল রাজ্য? জানুন


পুবের কলম ওয়েব ডেস্ক: তপশিলি জাতি,তপশিলি উপজাতি এবং ওবিসিদের সংরক্ষণ দেওয়ার পাশাপাশি এবার  উচ্চ শিক্ষা ক্ষেত্রে আর্থিকভাবে পিছিয়েপড়া পড়ুয়াদের কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিতে ১০ শতাংশ সংরক্ষণ কার্যকর করছে শিক্ষা দফতর। ইতিমধ্যে কেবিনেটের বৈঠকে আলোচনাও হয়েছে গত শিক্ষাবর্ষে। কিছু আইনি জটিলতার কারণে তা আটকে ছিল। চলতি শিক্ষাবর্ষ থেকে এই সংরক্ষণ চালু হবে বলে শিক্ষা দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে। 

সংরক্ষণ নিয়মানুসারে তপশিলি জাতিদের জন্য সংরক্ষণ ২২ শতাংশ, তপশিলি উপজাতিদের জন্য সংরক্ষণ ৬ শতাংশ। ওবিসি, এ-বি, এবং বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন ব্যক্তিদের জন্য সংরক্ষণ ১৭ শতাংশ এবং আর্থিকভাবে পিছিয়েপড়াদের ১০ শতাংশ সংরক্ষণ দেওয়ার কথা বলা হয়েছে। 

নিয়মে বলা হয়েছে, আর্থিকভাবে পিছিয়েপড়াদের সংরক্ষণ আওতায় আসতে গেলে পড়ুয়াদের পরিবারের বছরে ৮ লক্ষের নীচে আয় হতে হবে অথবা ৫ একরের বেশি জমি থাকলে আবেদন গ্রহণ হবে না। শহরাঞ্চলে এক হাজার স্কোয়ারফুট নীচে বাড়ি থাকলেও এই সুবিধা পাবেন পড়ুয়ারা। তবে কোনও পদাধিকারী আধিকারিকের কাছ থেকে ‘ইনকাম সার্টিফিকেট’ নিয়ে ভর্তির প্রয়োজনীয় নথির সঙ্গে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে জমা দিতে হবে। লেডি ব্রাবোর্ন কলেজের অধ্যক্ষা সিউলি সাহা জানিয়েছেন, উচ্চশিক্ষা দফতরের নির্দেশানুসারেই সংরক্ষণ বিধি মেনে ভর্তির প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে। 

দক্ষিণ ২৪ পরগণার সাধনচন্দ্র মহাবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ ফজলুল হক জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের গাইডলাইন ও শিক্ষা দফতরের নির্দেশ মেনে ভর্তি নেওয়া হবে। সংরক্ষণের ক্ষেত্রেও গাইডলাইন মানা হবে। তবে এখনও এই গাইডলাইন দেখিনি। পেলে সেই নিয়ম অনুসারে কার্যকর করা হবে। 

কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য সোনাল চক্রবর্তী বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তির ক্ষেত্রে সংরক্ষণ গাইডলাইন মানা হবে। তবে কলেজগুলির ভর্তির ক্ষেত্রে শিক্ষা দফতর সরাসরি নির্দেশিকা পাঠায়। নিশ্চয়ই শিক্ষা দফতরের ভর্তির নির্দেশ কলেজগুলিও কার্যকর করবে। 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only