সোমবার, ১০ আগস্ট, ২০২০

শিক্ষার নামে উইঘুর নির্যাতন! বন্দি শিবিরের ভিডিয়ো ফাঁস

উইঘুর ডিটেনশন ক্যাম্প

জিনজিয়াং: উইঘুর প্রশ্নে বরাবরই নীরব থেকেছে চিন সরকার। বছরের পর বছর ধরে লক্ষ লক্ষ উইঘুর মুসলিমকে বন্দি বানিয়ে শিক্ষা দেওয়ার নামে যে অত্যাচার চালানো হয়, তা অস্বীকার করে চলেছে বেজিং। কিন্তু বিভিন্ন সময়ে ফাঁস হওয়া ফুটেজ ও ছবিতে উইঘুর বন্দি শিবিরগুলোর বীভৎসতা দেখা গিয়েছে। কমিউনিস্ট শাসনে উইঘুররা যে ভালো নেই, তা অজানা নয়। তবে সেই নির্যাতন কতটা নির্মম হতে পারে এবার সেই দৃশ্য প্রকাশ্যে এল। 

মেরদান ঘাপপার
সম্প্রতি প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে ‘শিক্ষা শিবিরে’ বন্দি উইঘুর যুবক মেরদান ঘাপপারের কথা তুলে ধরা হয়েছে। কোনওভাবে, প্রহরীদের কড়া নজরকে ফাঁকি দিয়ে বন্দি শিবিরে ফোন নিয়ে গিয়েছিলেন তিনি। ফলে নিজের অভিজ্ঞতার কথা বিশ্বের সামনে তুলে ধরতে সক্ষম হয়েছেন মেরদান। এক বন্ধুকে পাঠানো ভিডিয়ো মেসেজে তিনি জানিয়েছেন, বন্দিদের খাঁচার মতো অত্যন্ত ছোট কামরায় রাখা হয়। ভিড়ে ঠাসা ওই কামরাগুলিতে সোজা হয়ে ঘুমানোও যায় না। 

তিনি লেখেন, ‘প্রায় ৫০ স্কোয়ার মিটারের একটি কামরায় ৫০-৬০ জন বন্দিকে রাখা হয়েছে। জায়গা এতোই কম যে পা সোজা রেখে ঘুমানো পর্যন্ত যায় না। অনেকেই হাঁটুর মধ্যে মুখ গুঁজে বসে থাকেন। দিনের পর দিন এভাবেই চলছে।’ সূত্রের খবর, তাওবাও নামের একটি রিটেল সংস্থার কর্মী বছর তিরিশের মেরদানকে চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে আটক করা হয়। যদিও, তাঁর বিরুদ্ধে কী অভিযোগ রয়েছে, তা জানায়নি পুলিশ। 

                                            

গত মার্চ মাসে এই খবর প্রকাশ্যে আসতেই আন্তর্জাতিক মঞ্চে তুমুল সমালোচনার মুখে পড়ে বেজিং। যদিও তাতে বিন্দুমাত্র হেলদোল নেই দেশটির। এর পর বিদেশি ওয়েবসাইট ঘাঁটার অভিযোগে মেরদানের ভাইকেও গ্রেফতার করেছে চিনের পুলিশ। কয়েকদিন আগে প্রকাশিত এক রিপোর্টে বলা হয়েছিল, বন্দি শিবিরগুলিতে মাস্ক তৈরি করতে উইঘুর মুসলিমদের কাজে লাগিয়েছে চিন। 

সেখানে বলা হয়েছে, বন্দি উইঘুরদের দিয়ে জোর করে তৈরি করানো ফেসমাস্ক অস্ট্রেলিয়ায় রফতানি করেছে বেজিং। চিনের হুবেই প্রদেশে প্রোটেক্টিভ পোশাক প্রস্তুতকারী সংস্থা হুবেই হাইক্সিন অস্ট্রেলিয়ায় প্রায় ২ লক্ষ মাস্ক রফতানি করেছে। অভিযোগ– সেই মাস্কগুলি জোর করে উইঘুর শ্রমিকদের দিয়ে তৈরি করানো হয়েছে। 


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only