বুধবার, ১২ আগস্ট, ২০২০

রামপুরহাট পুরসভার ১০ কোর্ডিনেটরের ইস্তফা ? বিস্তারিত পড়ুন এক ক্লিকেই

 


দেবশ্রী মজুমদার, রামপুরহাট: "তিনি  রাজা, বাকি সবাই প্রজা" রামপুরহাট পুরসভার বর্তমান প্রশাসক অশ্বিনী তেওয়ারির বিরুদ্ধে এই অভিযোগ তুলে ১০ জন কোর্ডিনেটর ইস্তফা দেন। তার পর জেলা কমিটির তরফে টাউন প্রেসিডেন্ট সুশান্ত মুখোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে মঙ্গলবার একটি মিটিং হওয়ার কথা ছিল। যদিও তা ফলপ্রসূ হয় নি। তাঁর বিরুদ্ধেও বিভিন্ন ইস্যুতে অভিযোগ রয়েছে কোর্ডিনেটরদের একাংশের। 

এদিন স্থানীয় বিধায়ক আশীষ বন্দ্যোপাধ্যায় অবশ্য কোর্ডিনেটরদের কাছ থেকে কোন চিঠি প্রাপ্তির কথা স্বীকার করেন নি। একইভাবে তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ অস্বীকার করে পুরসভার বর্তমান প্রশাসক অশ্বিনী তেওয়ারি বলেন, শহরের এক লক্ষ বাসিন্দার কাছে আমি প্রজা, বরং তাঁরাই রাজা। 

৪ নং ওয়ার্ডের কোর্ডিনেটর আব্বাস হোসেন বলেন, কোর্ডিনেটর হিসেবে করোনার মত দুর্দিনে মানুষের পাশে থাকতে পারছি না। তাই এই পদে থেকে কী লাভ। যতদিন আমাদের টার্ম ছিল, মানুষের পাশে থেকেছি। তবে টার্ম শেষ হয়ে প্রশাসক হিসেবে অশ্বিনী তেওয়ারির নিয়োগ হওয়ার পর, মানুষের পাশে দাঁড়াতে পারছি না। একজন সাধারণ কর্মী হিসেবে দলের হয়ে কাজ করতে চাই। এখন বহু দুর্নীতি চলছে। যদিও কী দুর্নীতি তা তিনি বলেন নি। 

তবে, ১০ জন কোর্ডিনেটর এক যোগে ইস্তফা পত্রে বলেন, ১ সেপ্টেম্বর কোভিড নিয়ে সভা ডাকা হয় বেলা ৩টা নাগাদ। সদস্য মীণাক্ষী ভকত আসেন নি। অশ্বীনি তেওয়ারি আসেন ৪- ৪৫ মিনিটে। কোন আলোচনা হয় নি। তার পরেও রাজার মত সকলকে প্রজা ভেবে কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন প্রশাসক। কারো মতের গুরুত্ব দিচ্ছেন না তিনি। সেই চিঠি পাঠানো হয়েছে হয়েছে জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলকে এবং তার প্রতিলিপি বিধায়ক আশীষ বন্দ্যোপাধ্যায় ও সহ সভাপতি অভিজিৎ সিনহাকে দিয়েছেন। 

উল্লেখ্য, চলতি বছরের ১৮ মে পুরসভার টার্ম শেষ হয়। নিয়োগ হয় প্রশাসক বোর্ডের। কিছু দিনের মধ্যেই ভাইস-চেয়ারম্যান সুকান্ত সরকারকে সরিয়ে সেই জায়গায় আনা হয় মীণাক্ষী ভকতকে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only