মঙ্গলবার, ২৫ আগস্ট, ২০২০

জাতীয় শিক্ষানীতির প্রতিবাদ ও একাধিক দাবিতে এসআইও-র শিক্ষা অভিযান

পুবের কলম প্রতিবেদক­: জাতীয় শিক্ষানীতির প্রতিবাদ ও একাধিক দাবিতে শিক্ষা অভিযান শুরু করল ছাত্র সংগঠন স্টুডেন্ট ইসলামিক অর্গানাইজেশন অফ ইন্ডিয়া বা এসআইও। ২৫ আগস্ট থেকে শুরু হওয়া ওই কর্মসূচি চলবে ৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। এ প্রসঙ্গে সংগঠনের তরফে বলা হয়েছে, বর্তমানে দেশের শিক্ষাব্যবস্থা নাজুক পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে। একদিকে করোনা আবহে যেমন সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে, অন্যদিকে বেকারত্বের পারদ ব্যাপকভাবে চড়ছে। তারপরও কেন্দ্রীয় সরকার অগণতান্ত্রিকভাবে জাতীয় শিক্ষানীতি পাস করেছে। তাই এসআইও-র রাজ্য শাখা বর্তমান পরিস্থিতির প্রেক্ষিতে শিক্ষা অভিযান পরিচালনা করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে। উদ্ভুত বিশ্ব পরিস্থিতি, শিক্ষায় নতুন মাত্রা ও  কর্মক্ষেত্রের উদ্ভব শিরোনামে ওই কর্মসূচি রাজ্যজুড়ে এই অভিযান চলবে। এ নিয়ে মঙ্গলবার দুপুরে ভার্চুয়াল সাংবাদিক সম্মেলনও করা হয়।

সংগঠনের তরফে বলা হয়েছে, স্কুল ও কলেজ বন্ধ থাকায় ইন্টারনেটের মাধ্যমে পড়াশোনা কখনই সুষ্ঠু সমাধান হতে পারে না। যেখানে দেশের ৭৬.২ শতাংশ (জাতীয় স্যাম্পেল সার্ভে অনুযায়ী) মানুষের কাছে ইন্টারনেটের সুবিধা নেই, সেখানে অনলাইনে পড়াশোনার স্বপ্ন তাঁদের কাছে সোনার হরিণ সমতুল। এসআইও-র অভিযোগ, কেন্দ্র জাতীয় শিক্ষানীতি-২০২০’র মাধ্যমে শিক্ষার গৈরিকীকরণের অপ্রচেষ্টা করছে। করোনা আবহে বেকারত্ব বৃদ্ধি সরকারি উদাসীনতা ও ভুল কর্মনীতির ফল বলেও মনে করে ওই সংগঠন।

সংগঠনের রাজ্য সভাপতি ওসমান গণি বলেন, বর্তমানে সরকারকে বিকল্প শিক্ষণ পদ্ধতি হিসাবে কমিউনিটি টিউটর ও এলাকাভিত্তিক পাঠদানের পদ্ধতি নিয়ে পর্যালোচনা করতে হবে। তিনি আরও বলেন, এই মুহূর্তে স্কুলছুটের সংখ্যা ব্যাপক বৃদ্ধি পাবে। তাই স্কুলছুট রুখতে সরকারের বিশেষ পরিকল্পনা প্রয়োজন। তিনি বলেন, নয়া শিক্ষানীতিতে এক বিশেষ ভাষা ও সংস্কৃতিকে দেশের মানুষের উপর চাপিয়ে দেওয়া হচ্ছে যা কোনওভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। 
এ দিন সংগঠনের তরফ থেকে একগুচ্ছ দাবি পেশ করা হয়। স্কুলছুট নিয়ন্ত্রণে গঠনমূলক পরিকল্পনা ও প্রকল্প তৈরি, মুর্শিদাবাদ বিশ্ববিদ্যালয়-সহ অন্যান্য ঘোষিত বিশ্ববিদ্যালয়গুলি অবিলম্বে বাস্তবায়ন, স্কুল ও কলেজের লাগামহীন ফি নিয়ন্ত্রণ, ঐতিহাসিক হুগলি মাদ্রাসাকে আলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের আওতায় কলেজ হিসাবে ঘোষণা করতে হবে। কলকাতা ইউনানি মেডিক্যাল কলেজ অ্যান্ড হসপিটালকে আইন মেনে সরকারি আওতাভুক্ত করতে হবে। এ ছাড়া পূর্ব ভারতে ইসলামি শিক্ষার স্বপ্নের প্রতিষ্ঠান আলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ইসলামি শিক্ষার প্রস্তাবিত পাঠক্রমগুলির সম্পূর্ণ বাস্তবায়ন এবং মিল্লি আল-আমীন কলেজের মাইনরিটি স্ট্যাটাস অবিলম্বে ফিরিয়ে দিতে হবে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only