সোমবার, ১০ আগস্ট, ২০২০

অভিযুক্ত সেনা জওয়ানকে ধরতে গেলে পুলিশের উপর ইঁট বৃষ্টি, তীর ? কোথায় ঘটলো এমন ঘটনা ? বিস্তারিত পড়ুন

 

 দেবশ্রী মজুমদার, নলহাটি, ১০ অগাস্ট: একভিযুক্ত সেনা জওয়ানকে গ্রেফতার করতে গেলে পুলিশের উপর আক্রমণ করে ওই সেনা জওয়ানের আত্মীয় স্বজনেরা।  ঘটনার জেরে বেশ কয়েকজন পুলিশ কর্মী আহত হন। 

উল্লেখ্য, বাড়ির জন্য বৈদ্যুতিক খুঁটি পোঁতাকে কেন্দ্র করে শওকত আলি নামে এক সেনা জওয়ানের মারে জখম হন গ্রামের পঞ্চায়েত সদস্য ও তার স্বামী। লোহার রড দিয়ে আক্রমণ করে ওই অভিযুক্ত সেনা জওয়ান।এমনকি মারতে মারতে প্রায় উলঙ্গ করে ছাড়ে তাঁকে। ছাড় দেওয়া হয় নি তাঁর স্ত্রীকেও। খবর পেয়ে নলহাটি থানার পুলিশ এসে রক্তাক্ত অবস্থায় দু জনকে উদ্ধার করে রামপুরহাট মেডিক্যাল কলেজে ভর্ত্তি করে। ঘটনাটি ঘটে নলহাটির বানিওর পঞ্চায়েতের খাঁপুর গ্রামে।  করে ঘটনার পর সেনা জওয়ান চম্পট দেয়।

                                    ( ছবি: তথাগত চক্রবর্তী )

 

সেনা জওয়ান সওকত আলির সঙ্গে গ্রামেরই বাসিন্দা আজিজুর রহমানের নানা বিষয়ে বিবাদ চলছিল।আজিজুরের স্ত্রী নাজিয়া বিবি এলাকার পঞ্চায়েত সদস্যা।এদিকে পুরনো বিবাদকে  কেন্দ্র করেই ফের সোমবার বিকেলে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে পরিবেশ। সোমবার আঁটঘাট বেঁধে রামপুরহাট মহকুমা পুলিশ আধিকারিক সৌমজিৎ বড়ুয়ার নেতৃত্বে বিভিন্ন থানার বিশাল পুলিশ বাহিনী ঘটনা স্থলে পৌঁছায়। গোটা গ্রামকে ঘিরে ফেলে। তার পর শওকত আলীকে গ্রেফতার করতে গেলে, পুলিশের দিকে ঢিল, ইঁট বৃষ্টি করা হয় ও তীর ছোড়া হয়। ঘটনার জেরে বেশ কয়েকজন পুলিশ আহত হন। মহকুমা পুলিশ আধিকারিক পায়ে আঘাত পান। যদিও তিনি জানান, হোঁচট খেয়ে তাঁর পায়ে লেগেছে। 


জানা গেছে, পুলিশ কাঁদানে গ্যাস ছুঁড়েতে বাধ্য হয় দুষ্কৃতীদের তাড়াতে। তারপর দরজা ভেঙে অভিযুক্ত সহ  পুরুষ ও মহিলাদের গ্রেফতার করা হয়।

মহকুমা পুলিশ আধিকারিক সৌম্যজিৎ বড়ুয়া বলেন,  মোট ২২ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অভিযুক্তরা ইঁট, তীর ছুঁড়েছে। তবে পুলিশ কোনো কাঁদানে গ্যাস ছোঁড়ে নি।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only