বৃহস্পতিবার, ১৩ আগস্ট, ২০২০

রাজনীতিক কোন্দলকেই দায়ী করছেন খুন হয়ে যাওয়া শিশুর বাবা, সবদিক খতিয়ে দেখছে পুলিশ


পুবের কলম ওয়েব ডেস্ক: রাজনৈতিক কোন্দলকেই শিকার দশ বছরের ওমর ফারুক বলে দাবি করেছেন বাবা হাফিজুল ইসলাম। সততার সঙ্গে পঞ্চায়েত চালানোর আদর্শের কাছে মাথা উঁচু করে থাকতে চেয়েছিলেন তিনি। তাঁকে শিক্ষা দিতে ছেলেকে অপহরণ করে খুন করা হয়েছে বলে দাবি করেছেন হাফিজুল।রাজনীতির শিকার হয়েছে ছেলে বলে দাবি করেছেন বাবা পঞ্চায়েত সদস্য হাফিজুল ইসলাম। রাজনৈতিক কোন্দলই দায়ী মৃত্যুর পেছনে। পুলিশকে তাদের বার করার অনুরোধ করেছেন বাবা হাফিজুল ইসলাম।

জানা গিয়েছে, কিছুদিন ধরে মোথাবাড়ি গ্রাম পঞ্চায়েতে গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব মাথা চাড়া দিয়েছে। তৃণমূলের দখলেই পঞ্চায়েত। হাফিজুল নির্দল হয়ে পঞ্চায়েত নির্বাচনে জিতে ছিলেন। পরে তিনি তৃণমূলে আসেন। এদিকে জানা গেছে, কিছুদিন আগে প্রধান নিলুফা ইয়াসমিনের বিরুদ্ধে গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব মাথাচাড়া দেয়। সেখানে প্রধানকে সরানোর জন্য নাকি টাকার খেলা চলতে থাকে। টানাটানি পড়ে হাফিজুলকে নিয়ে। বিরোধী গোষ্ঠী হাফিজুলকে টাকার টোপ দেয়। তাতে অস্বীকার করে প্রধানের পক্ষ নেন তিনি। এই কারণে বিরোধী পক্ষের চক্ষুসূল হয়ে ওঠেন হাফিজুল বলে জানিয়েছেন তিনি। সে কারণেও ছেলে ওমর ফারুককে ‘‌টার্গেট’‌ করা হয়ে থাকতে পারে বলে অভিযোগ করেছেন তিনি। আর তার জন্য কাকাতো ভাই রাসিদুল শেখকেও বড় অঙ্কের টাকার টোপ দেওয়া হয়েছে। জানা গেছে,  কিছুদিন আগে ধৃত রাসিদুল শেখ ও রামজান শেখ দামি মোবাইল কেনে তারা। একটি বাইকও নেই। তেমন কোনও কাজ করে না তারা। এলাকায় মস্তানি ছাড়া কোনও কাজ নেই তাদের। তাহলে অতটাকা হঠাৎ করে এল কোথা থেকে বলে প্রশ্ন করেছেন মৃতের বাবা হাফিজুল ইসলাম।

উল্লেখ্য, গত রবিবার রাতে ছেলে ওমর ফারুক এলাকার একটি অনুষ্ঠান বাড়ি থেকে অপহৃত হয়। ওই রাতে ৫০ লক্ষ টাকার মুক্তিপণ চেয়ে ফোন আসে হাফিজুলের মোবাইলে। এর ৩ দিনের মাথায় বুধবার দুপুরে বাড়ি থেকে ৩ কিলোমিটার দূরে প্রতাপপুরে একটি তুঁতের জঙ্গল থেকে বছর দশেকের ওমরের মৃতদেহ উদ্ধার হয়। এই ঘটনার আগেই পুলিশ সন্দেহজনকভাবে হাফিজুলের কাকাতো ভাই রাসিদুলকে গ্রেপ্তার করে। সে জেরার মুখের খুনের কথা স্বীকার করে। পরে পুলিশ ধৃতের এক বন্ধু রামজান শেখকে গ্রেপ্তার করে। এদিকে ঘটনার পর ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী ধৃত রাসিদুলের বাড়ি ভাঙচুর করে। আগুনে পুড়িয়ে দেওয়া হয়। এমনকী জেসিবি দিয়ে বাড়ি গুড়িয়ে দিতে চেয়েছিলেন তাঁরা। ২ টি জেসিবিও ভাড়া করা হয়। পুলিশের তৎপরতায় তা আটকানো গেছে। অন্যদিকে এলাকা গ্রামে পুলিশি প্রহরা বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। ধৃতদের সাতদিনের জন্য রিমান্ডে চেয়ে আদালতে পেশ করা হয়েছে। ওসি বিটুল পাল বলেন,‘‌ওই ঘটনায় অনেককে  ডেকে জিজ্ঞসাবাদ করা হয়েছে।  ধৃত ২ জনের সঙ্গে আরও কেউ জড়িত রয়েছি কিনা, তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। ঘটনার বিভিন্ন দিক খতিয়ে দেখে তদন্ত চলছে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only