বুধবার, ৫ আগস্ট, ২০২০

অযোধ্যার ভূমি পুজো নিয়ে কি বললেন মমতা?


পুবের কলম ওয়েব ডেস্ক: রাজ্যে সাম্প্রদায়িক অশান্তি সৃষ্টির ষড়যন্ত্রকে বার বার রুখে দিয়েছেন তিনি। ধুলাগড় থেকে বসিরহাট- সাম্প্রদায়িক উস্কানিকে কড়া হাতে দমন করেছিলেন তিনি। ফলস্বরূপ কট্টর হিন্দুত্ববাদীদের চক্ষুশয়ল হয়েছেন। সংখ্যালঘু তোষণের অভিযোগের তীরে বার বার বিদ্ধ হয়েছেন। কিন্তু তাতেও নিজের অবস্থান থেকে একবিন্দু নড়েননি তিনি। বুধবার ফের একবার সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নিয়ে স্পষ্ট বার্তা দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। রাম মন্দিরের ভূমিপুজার প্রাক্কালে বুধবার টুইট করে জানিয়ে দিয়েছেন,‘শেষ নিঃশ্বাস পর্যন্ত ঐক্যের ঐতিহ্যকে রক্ষা করে যাবেন।’

রাজ্যে গত কয়েক বছর ধরে ধর্মীয় মেরুকরণে ঝাঁপিয়েছে রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘ, বিশ্ব হিন্দু পরিষদ, বজরঙ্গ দল, বিজেপি সহ তথাকথিত হিন্দুত্ববাদী সংগঠন ও রাজনৈতিক দল। রাজ্যে এসে জনসভার নামে ধর্মের বিষ ঢেলে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ,আরএসএসের সরসঙ্ঘচালক মোহন ভাগবতরা। কিছুটা হলেও সফল হয়েছেন তাঁরা। অন্তত একটা সূ" ধর্মী মেরুকরণ হয়েছে রাজ্যে। আর তার উপরেই ভিত্তি করে লোকসভা ভোটে অপ্রত্যাশিত ফল করেছে গেরুয়া শিবির। সামনে একুশের বিধানসভা ভোট। ইতিমধ্যেই বাংলার ক্ষমতা দখলকে পাখির চোখ করে ঝাঁপিয়েছেন গেরিয়া শিবিরের নেতারা। ফের ধর্মীয় আবেগে সুড়সুড়ি দেওয়ার একটা চেষ্টা শুরু হয়েছে।

রাম মন্দিরের ভূমিপুজোকে উপলক্ষ করে একটা হিন্দুত্বের আবেগ উসকে দেওয়ার চেষ্টা চালিয়েছিল গেরুয়া শিবির। কিন্তু পোড়খাওয়া ও কুশলী রাজনীতিবিদ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সেই চেষ্টায় জল ঢেলে দিয়েছেন। রাম মন্দিরের ভূমিপুজোর দিনে কেন লকডাউন সেই প্রশ্ন তুলে ফের যে পদ্ম শিবির ও কট্টর হিন্দুত্ববাদী সংগঠনগুলি রাজ্যের সংখ্যালঘু মুসলিমদের বিরুদ্ধে হিন্দুদের একাংসকে উসকে দেওয়ার চেষ্টা করবেন তা ভালভাবেই জানতেন রাজ্যের প্রশাসনিক প্রধান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাই এদিন সকালেই বৈচিত্র্যের মধ্যে ঐক্যের বার্তা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন।

হিন্দুত্বের স্বঘোষিত ধব্জাধারীরা যতই বলুন না কেন, ভারত যে সব ধর্মের,সব বর্ণের মানুষের দেশ তা টুইটে তুলে ধরেছেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি লেখেন, ‘হিন্দু,মুসলিম,শিখ, খ্রিস্টান-একে অপরের ভাই-ভাই! আমার ভারত মহান, মহান আমার হিন্দুস্তান! আমাদের দেশ তার চিরায়ত বৈচিত্রের মধ্যে ঐক্যের ঐতিহ্যকে বহন করে চলেছে, এবং আমাদের শেষ নিঃশ্বাস পর্যন্ত ঐক্যবদ্ধভাবে এই ঐতিহ্যকে সংরক্ষিত রাখব।’ ছোট্ট টুইট, কিন্তু ভীষণ অর্থবহ বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা। একদিকে খুব সুকৌশলে রাম মন্দিরের ভূমিপুজো নিয়ে কট্টর হিন্দুত্ববাদীদের আস্ফালন আটকেছেন, পাশাপাশি আরও একবার সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির চিরায়ত বার্তা দিয়েছেন।

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only