বুধবার, ২৬ আগস্ট, ২০২০

শঙ্কিত হিমন্তবিশ্ব শর্মা আবোল-তাবোল বকছেন,কংগ্রেস-এআইইউডিএফ সম্ভাব্য মিত্রতা নিয়ে মন্তব্যে রিপুন বরা

   


পুবের কলম ওয়েব ডেস্ক : অসমে কংগ্রেসের সভাপতি রিপুন বরা বলেছেন, কংগ্রেস-এআইইউডিএফ সম্ভাব্য মিত্রতায় শঙ্কিত হয়ে অর্থমন্ত্রী হিমন্তবিশ্ব শর্মা আবোল-তাবোল বকছেন। মঙ্গলবার তিনি এক সংবাদ সম্মেলনে ওই মন্তব্য করেছেন। 

অসমে ২০২১ সালের আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনের মুখে কংগ্রেসের সঙ্গে মাওলানা বদরউদ্দিন আজমলের নেতৃত্বাধীন এআইইউডিএফের সম্ভাব্য জোট হওয়ার খবরে রাজ্যের অর্থমন্ত্রী ও বিজেপি নেতা হিমন্তবিশ্ব শর্মা তীব্র কটাক্ষ ও সমালোচনা করায় অসম কংগ্রেসের সভাপতি রিপুন বরা ওই মন্তব্য করেন। 

গেরুয়া শিবির থেকে আগেই এআইইউডিএফকে ‘সাম্প্রদায়িক’ আখ্যা দেওয়া হয়েছে। এ প্রসঙ্গে কংগ্রেসের সভাপতি রিপুন বরা বলেন, ‘সাম্প্রদায়িকতার প্রশ্ন আসছে কোথা থেকে? সাম্প্রদায়িকতার অর্থ অন্যকে ঘৃণা করা। এআইইউডিএফ কখনওই হিন্দু ধর্মের বিরুদ্ধে মন্তব্য করেনি। কোনো নামঘরও ভাঙেনি তাঁরা। অন্য ধর্মের উপাসনাস্থল ভেঙেছে বিজেপিই। সেজন্য প্রকৃতঅর্থে এআইইউডিএফ নয়, বিজেপি’ই সাম্প্রদায়িক দল।’

রাজ্য কংগ্রেস সভাপতি রিপুন বরা কটাক্ষের সুরে আরও বলেন, ‘কংগ্রেসের আমলে রাজ্যসভার নির্বাচনে নিজেদের প্রার্থীকে জয়ী করতে বদরউদ্দিন আজমলের সমর্থন নিয়েছিল বিজেপি। হিমন্তবিশ্ব শর্মা সেটা বোধহয় ভুলে যাননি। আসলে কংগ্রেস-এআইইউডিএফ সম্ভাব্য মিত্রতায় রীতিমত শঙ্কিত হয়েছেন অর্থমন্ত্রী হিমন্তবিশ্ব শর্মা। আর শঙ্কিত হয়েছেন বলেই আবোল-তাবোল মন্তব্য করে চলেছেন।’ 

মাওলানা আব্দুল কাদের কাশেমি 

এ প্রসঙ্গে আজ (বুধবার) অসমের এআইইউডিএফের কেন্দ্রীয় কমিটির সহসভাপতি মাওলানা আব্দুল কাদের কাশেমি ‘পুবের কলম’কে বলেন,  ‘জোট যেটা হবে সেটা কেবল ইইউডিএফ-কংগ্রেসের জোট নয়, এতে সিপিএম, সিপিআইও থাকছে। বামপন্থি বিভিন্ন দলকে নিয়ে মহাজোট হবে। সেই মহাজোটে বিজেপি রীতিমত অসুবিধায় পড়বে। বিজেপি আগামী ২০২১ সালের বিধানসভা নির্বাচনে ক্ষমতায় আসতে পারবে না ইতোমধ্যেই একপ্রকার স্পষ্ট হয়ে যাওয়ায় বিজেপি নেতা ও মন্ত্রী হিমন্তবিশ্ব শর্মা নানারকম কথা বলছেন। উনি একজন দায়িত্বশীল মন্ত্রী এমন কিছু কথা বলছেন যা সাধারণ মানুষের মুখেও শোভা পায় না!’ 

মাওলানা আব্দুল কাদের কাশেমি আরও বলেন, ‘অসমে মহাজোট হবে, অভিন্ন নুন্যতম কর্মসূচির মধ্য দিয়ে এজেন্ডা তৈরি হবে। আগামী নির্বাচনে অসমে অ-বিজেপি সরকার গঠন হবে। বিজেপি দলের অসম বিরোধী স্থিতি, অসম ও অসমের জনগণের উন্নয়নের যে সব প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল তা একশো শতাংশ ব্যর্থ হয়েছে। নির্বাচনে সেসব কথা আসবে। যা ওঁরা বলেছিল কিছুই পালন করতে পারেনি। বেকারদের চাকরি, সড়ক উন্নয়ন, ব্রহ্মপুত্র খনন ইত্যাদির কথা বললেও কিছুই তাঁরা করতে পারেনি, সেজন্য ওঁরা সাম্প্রদায়িকতাকে ইস্যু করতে চাচ্ছে। মন্ত্রী হিমন্তবিশ্ব শর্মা হতাশ হয়েই নানারকম বিরূপ মন্তব্য করছেন।’  

তিনি বলেন, ‘ইউডিএফে তিন এমপি’র মধ্যে একজন অ-মুসলিম এমপি ছিলেন। এবার পরাজিত হয়েছেন। ১৩ জন বিধায়কের মধ্যে একজন অ-মুসলিম বিধায়ক রয়েছেন। এরআগে ২ জন অ-মুসলিম বিধায়ক ছিলেন। ২০০৬ সালে অক্টোবরে দল গঠন হওয়ার পর থেকে বিধানসভায় আমাদের প্রথমে ১০ জন, তারপরে ১৮ জন বিধায়ক হন, এরপরে ১৪ জন বিধায়ক হয়েছেন। পার্লামেন্টে প্রথমে একজন, পরবর্তীতে ৩ জন এমপি ছিলেন এবং বর্তমানে এখন একজন এমপি আছেন। দীর্ঘ ১৬ বছরের মধ্যে পার্লামেন্টের ভিতরে বা বাইরে আমাদের কোনও একটা বক্তব্যেও ওঁরা সাম্প্রদায়িকতা খুঁজে পাবে না।’ বিজেপি বা হিমন্ত বিশ্বশর্মা আমাদের নিয়ে যত ঠাট্টা-বিদ্রুপ করবে আমাদের লাভ হবে বলেও এআইইউডিএফ নেতা মাওলানা আব্দুল কাদের কাশেমি মন্তব্য করেন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only