রবিবার, ৩০ আগস্ট, ২০২০

বন্যায় বিপর্যস্ত খানাকুল, নৌকায় চেপে পৌঁছেছে কল্যাণের ত্রাণ(ভিডিয়ো দেখুন)




নসিবুদ্দিন সরকার

হুগলি­ শনিবার খানাকুলের মাড়োখানা এলাকায় বন্যাদুর্গত মানুষজনের কাছে ত্রাণসামগ্রী পৌঁছে দিল তৃণমূল কংগ্রেস। এদিন শ্রীরামপুরের তৃণমূল সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় ও তৃণমূল জেলা সভাপতি দিলীপ যাদবের নেতৃত্বে ত্রাণসামগ্রী বিলি করা হয়েছে। সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়, তৃণমূল নেতা দিলীপ যাদব প্রমুখ মাড়োখানা এলাকায় বন্যাদুর্গত মানুষের কাছে গিয়ে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত প্রায় পাঁচশো পরিবারের হাতে ত্রাণসামগ্রী তুলে দিয়েছেন। দুর্গতদের হাতে ত্রাণসামগ্রী হিসেবে ত্রিপল, চিঁড়ে, গুড়, বিস্কুট,  সবজি, তেল ইত্যাদি তুলে দেওয়া হয়েছে। 

ত্রাণসামগ্রী মেলায় দুর্গত মানুষজন স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছেন। বন্যাদুর্গত গ্রামবাসী মমতা রায় বলেন, ‘মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে ধন্যবাদ। মুখ্যমন্ত্রীর উদ্যোগেই ত্রাণ মিলল।’ এদিন সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়কেহাতের কাছে পেয়ে দুর্গত মানুষজন তাঁদের অসুবিধার কথা জানালেন। জানালেন তাঁদের ঘরবাড়ি ভেঙে গিয়েছে। সব শুনে সাংসদ কল্যাণবাবু তাঁদের আশ্বস্ত করেছেন। 

উল্লেখ্য, গত কয়েকদিনের বৃষ্টিতে খানাকুলের বিস্তীর্ণ এলাকা জলমগ্ন হয়ে পড়ে। নিচু এলাকা থেকে মানুষজনকে নিরাপদ আশ্রয়ে সরানো হয়। বহু মাটির বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ক্ষতি হয়েছে জমির ফসলেরও। এখনও বহু এলাকা জলমগ্ন। 


দুর্গত মানুষদের হাতে ত্রাণসামগ্রী তুলে দেওয়ার সময়ে সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁদের বলেন, ‘এসবই দিদি পাঠিয়েছেন।’এদিন নৌকায় চেপে সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় ও তৃণমূলের জেলা সভাপতি দিলীপ যাদব বন্যাদুর্গত খানাকুলের মাড়োখানায় পৌঁছন। কল্যাণবাবু বলেন, ‘ত্রাণসামগ্রী বোঝাই মোট পাঁচটি নৌকা বন্যাদুর্গত এলাকায় ঘুরে ঘুরে দুর্গত মানুষের কাছে ত্রাণসামগ্রী পৌঁছে দিচ্ছে। খানাকুল নিচু এলাকা হওয়ায় বন্যা কবলিত।’ 

এদিকে সরকারি ত্রাণসামগ্রী অনেক জায়গায় ঠিকমতো পৌঁছচ্ছে না বলেও অভিযোগ উঠছে। সাংবাদিকদের এই প্রশ্নের জবাবে কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘ত্রাণ পৌঁছে দেওয়ার জন্য সবরকম চেষ্টা চালানো হচ্ছে। কিছু কিছু মানুষ আছেন– অভিযোগ করার জন্যই তাঁদের জন্ম।’ 


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only