শুক্রবার, ১১ সেপ্টেম্বর, ২০২০

৭৮৬ উল্কি, কেটে নেওয়া হল হাত !



পুবের কলম প্রতিবেদকঃসংখ্যাগুরুর নৃশংস হিংসার শিকার হলেন আরও এক আখলাক। এবার হরিয়ানায়। কাজের খোঁজে বেরিয়ে উগ্র হিন্দুত্ববাদীদের আক্রমণের শিকার হয়ে নিজের হাত খোয়ালেন হরিয়ানার নানাউতার বাসিন্দা পেশায় ক্ষৌরকার ২৮ বছরের আখলাক। তাঁর ভাই ইকরাম জানালেন পানিপতে পৌঁছনোর পর দু’জন এসে তাঁর নাম জানতে চায়। নাম জানার পরই তারা বেধড়ক মারতে শুরু করে। আধমরা করে তাঁকে রাস্তার ধারে ফেলে দেওয়া হয়। পিপাসায় বুক ফেটে যাচ্ছিল। পাশের একটি বাড়িতে জল চাইতে যান আখলাক। কিন্তু তাদের অবাক হওয়ার আরও বাকি ছিল। সেই বাড়ি থেকে একজন বেরিয়ে এসে আখলাককে ভিতরে টেনে নিয়ে যান এবং লাঠি দিয়ে পেটাতে শুরু করেন। আখলাক বুঝতে পারেন যে এরা সেই লোক যারা কয়েক মিনিট আগে তাঁকে মারছিলেন। সেই বাড়িতে চারজন পুরুষ ও দু’জন মহিলা ছিলেন। যখন তারা দেখতে পেলেন যে আখলাকের হাতে ‘৭৮৬’ উল্কি করা আছে, তখন চেন করাত দিয়ে আখলাকের ডান হাত কেটে ফেলে। আখলাকের ভাই ইকরামের বক্তব্য– ‘আখলাকের যখন ১৫ বছর বয়স তখন সে এই উল্কি করিয়েছিল। আমরা ‘৭৮৬’-তে বিশ্বাস করি। আমরা আল্লাহকে বিশ্বাস করি।’ এটাই তাঁদের অপরাধ! সকাল ৫টা নাগাদ আখলাকে জ্ঞান ফেরে। দেখেন যে এক রেল স্টেশনের ধারে পড়ে আছেন। এক অজ্ঞাত পরিচয় লোক ইকরামকে গোটা ঘটনাটা জানায়। ইকরাম বলেন যে আখলাককে রেল স্টেশনের কাছে ফেলে দেওয়া হয় যাতে ট্রেন দুর্ঘটনার ফলে আখলাকের হাত কাটা গেছে সেটা প্রমাণ করা যায়। তারপর তাঁকে পানিপত হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। হাসপাতালে ইকরাম গিয়ে দেখেন সেখানে এক জিআরপি আধিকারিক উপস্থিত আছেন। এসআই তাঁকে বলেন যে সেটা একটা দুর্ঘটনা। হিংসার ঘটনাকে নস্যাৎ করে দিতে এসআই শুরুতেই একে দুর্ঘটনা বলে দাগিয়ে দেন। যেখানে আখলাকে হাত কাটা হয়েছিল সেখানে গিয়ে খোঁজ নিয়ে ইকরাম জানতে পারেন যে অপরাধীরা সাইনি সম্প্রদায়ের। তাঁর কথা অনুযায়ী এসআই তাঁদের পানিপতের চাঁদনি বাগ থানায় নিয়ে যান এবং এফআইআর জমা নেন। আখলাককে পরে রোহতাক হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয় কিন্তু হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাঁকে ভর্তি নিতে চাননি। ইকরামের এখন চিকিৎসা চলছে নানাউতায়। এখনও পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করেনি পুলিশ। এসআই বলবান জানিয়েছেন কেসটা চাঁদিবাগ থানায় পাঠানো হয়েছে এবং তারাই তদন্ত করে দেখবে। কিন্তু শুধুমাত্র মুসলিম হওয়ার জন্য মোদির দেশে জীবিকাজীবন হারাচ্ছে একদল মানুষ। প্রশাস, পুলিশ পক্ষপাতদুষ্ট আচরণ করে চলেছে। এ থেকে মুক্তির উপায় অধরা। 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only