বুধবার, ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০

মাস্কের দোহাই দিয়ে ‍বোরকা পরা মহিলাকে শপিং মলে প্রবেশে বাধা



দেবশ্রী মজুমদার, রামপুরহাট

করোনা আবহে মাস্কের দোহাই না বোরকায় আপত্তি? বোরকা পরে শপিং মলে ঢুকতে মার্কিন দেশের বাধা হলেও এমন ঘটনার নজির নেই পশ্চিমবঙ্গে। সেই নজিরবিহীন ঘটনা ঘটল সোমবার রাতে। বীরভূমের রামপুরহাট শহরে একটি অত্যাধুনিক শপিংমলের ঘটনা। বোরকা পরায় এক শপিং মলে ঢুকতে বাধা দেওয়া হওয়ার ঘটনায় নিন্দার ঝড় ওঠে বিভিন্ন মহলে। ঝাঁ-চকচকে আধুনিক শপিং মলের এই ধরনের আচরণে ব্যথিত এক মুসলিম মহিলা ও তার মেয়ে। ঘটনার জেরে অপমানিত হয়ে রামপুরহাট থানায় অভিযোগ দায়ের করেন ওই মহিলা। 


জানা গেছে, রামপুরহাট পুরসভার ১১নং ওয়ার্ড তথা ভাড়শালার মুসলিম পাড়ার বাসিন্দা সামিনা বেগম তাঁর মেয়ে সহ চার আত্মীয় মিলে সোমবার রাত ৮ নাগাদ রামপুরহাট দেশ বন্ধু রোডের একটি অত্যাধুনিক শপিং মল ‘স্টাইল বাজার’-এ যান। কিন্তু অন্যান্য আত্মীয়কে ঢুকতে দেওয়া হলেও অভিযোগকারিণী ও তাঁর মেয়েকে ঢুকতে বাধা দেওয়া হয় শপিং মলের তরফে।


তাঁদের জানানো হয়, বোরকা অ্যালাও নেই। তাঁরা বাড়ি ফিরে যাওয়ার পর ওই ভদ্র মহিলার স্বামী কাউসার সেখ তাঁদের ফের শপিং মলে পাঠান। ফের তাঁদের একইভাবে ফিরিয়ে দেওয়া হয়। বলা হয় মাস্ক পরে আসতে হবে। মহিলার অভিযোগ, বোরকা মুসলিম মহিলাদের ধর্মীয় লেবাস। তাই তাদের এভাবে বাধা দেওয়া যায় না। তাহলে বোরকা পরলে শপিং মলে যাওয়া যাবে না? আমি চাই, এভাবে যেন কাউকে অপমানিত হতে না হয়। উনি কি করে জানলেন যে বোরকার নিচে মাস্ক নেই?  আর বোরকা থাকলে মাস্কের কী দরকার?


শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত জানা গেছে, শপিং মলের ম্যানেজার ও সিকিউরিটি গার্ডসহ দু’জনকে থানায় আটক করা হয়েছে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য। তবে এই ঘটনায় এলাকার মানুষদের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। অনেকেরই প্রশ্ন, শপিং মলে বোরকা বা হিজাব পরে কেউ প্রবেশ করতে পারবে না--- এমন কোনও নির্দেশিকা নেই। প্রশ্ন উঠছে শপিংমল কর্তৃপক্ষের বোরকা বিদ্বেষ নিয়েও।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only