শনিবার, ১২ সেপ্টেম্বর, ২০২০

রাজ্যে গেরুয়াধারী বিজেপি ভণ্ডামির রাজনীতি করছে : গোপাল শেঠ



এম এ হাকিম, বনগাঁ :  উত্তর ২৪ পরগণা জেলার তৃণমূল কংগ্রেস কমিটির জেলা কো-অর্ডিনেটর ও বনগাঁর সাবেক বিধায়ক গোপাল শেঠ বলেছেন, ‘গেরুয়াধারী তথাকথিত বিজেপি ভণ্ডামির রাজনীতি করছে। রামকে পচিয়ে দিচ্ছে। হিন্দু ধর্মকে কলঙ্কিত করছে।’ শনিবার চাঁদপাড়ায় গাইঘাটা পঞ্চায়েত সমিতির সভাঘরে দলীয় কর্মসূচি শেষে সাংবাদিকদের দেওয়া সাক্ষাতকারে তিনি ওই মন্তব্য করেন। 


গোপাল শেঠ বলেন, বিজেপি’র এধরণের লোকেদের সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কোনও তুলনা হয় না। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যতদিন থাকবেন, পশ্চিমবঙ্গে ততদিনই তৃণমূল ক্ষমতায় থাকবে।

    


তিনি বলেন, ‘আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে বনগাঁ মহকুমায় ৪ টা বিধানসভাতেই তৃণমূলের জয় সুনিশ্চিত। এনিয়ে কোনও সমস্যা নেই। বনগাঁ মহকুমা হল তৃণমূলের দুর্জয় ঘাঁটি। আমাদের একটা আঘাত এসেছিল, আমরা তা মোকাবিলা করেছি। কর্মীদের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহের সৃষ্টি হয়েছে। বনগাঁয় এপর্যন্ত কমপক্ষে ত্রিশ হাজার মানুষ তৃণমূলে যোগ দিয়েছে। অর্থাৎ তা ষাট হাজারে পৌঁছাবে। আমাদের যে ভুল-ত্রুটি ছিল তা শুধরে নিয়ে আমরা এগিয়ে যাচ্ছি।’




গোপাল শেঠ আরও বলেন, ‘যারা ধর্মীয় সুড়সুড়ি দিচ্ছে তারা চিহ্নিত হয়ে গেছে। তারা সমাজের কোনও কাজ করবে না। আমরা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ৬৪ টি প্রকল্প সবার কাছে পৌঁছে দিতে চাই। বাংলায় রাজনৈতিক সন্ন্যাসিনী হিসেবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আমাদের মধ্যে বর্তমান রয়েছেন। আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে জোড়া ফুলে ভোট বাক্স ভরবে। ওঁদের হাতে পচা পদ্মফুল। ওই পদ্মফুল নিয়ে ওঁরা ঘুরছে। ওটা পুজোয়ও কাজে লাগে না!’   


জেলা তৃণমূল নেতা ও বিধানসভার চিফহুইপ নির্মল ঘোষ বিজেপিকে টার্গেট করে বলেন, ‘যারা ওপার বাংলা থেকে আসা মানুষদের ‘নাগরিকত্ব’ দেওয়ার কথা বলেছিলেন, এখনও পর্যন্ত তারা একটি মানুষকেও নাগরিকত্ব  দিতে পারেনি। প্রতি বছর ২ কোটি বেকারের চাকরি দেওয়ার প্রতিশ্রুতি পালন করেনি, ব্যাঙ্ক একাউন্টে ১৫ লক্ষ টাকা, কৃষি ঋণ মওকুফ, গরীব বেকারদের চাকরি দেবে বলেও তা দেয়নি। বরং লকডাউনে ১৪ কোটি মানুষ বেকার হয়ে পড়েছেন। বিজেপি সরকার ভারতকে অর্থনৈতিকভাবে দেউলিয়া করে দিয়েছে। স্বাধীনতার পরে এই প্রথম জিডিপি প্রায় ২৪ শতাংশ নেগেটিভ হয়েছে। যারফলে ভারতের অর্থনীতি ভেঙে যাওয়ার অবস্থায় রয়েছে।’    


শনিবারের ওই কর্মসূচিতে বনগাঁ উত্তর, বনগাঁ দক্ষিণ, বাগদা ও গাইঘাটা বিধানসভা এলাকার তৃণমূলের প্রথম সারির দায়িত্বশীলরা উপস্থিত ছিলেন। সভায় বিধানসভার চিফহুইপ নির্মল ঘোষ, জেলা তৃণমূলের কো-অর্ডিনেটর ও বনগাঁর সাবেক বিধায়ক গোপাল শেঠ, বনগাঁ দক্ষিণ কেন্দ্রের বিধায়ক সুরজিৎ বিশ্বাস, জেলা পরিষদের কর্মাধক্ষ এ কে এম ফারহাদ, জেলা পরিষদের সদস্য পরিতোষ সাহা, গাইঘাটার তৃণমূল নেতা গোবিন্দ দাস ছাড়াও বিভিন্ন বিধানসভা ও ব্লকের তৃণমূল সভাপতিরা উপস্থিত ছিলেন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only