শুক্রবার, ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২০

দিল্লি হিংসার চার্জশিটে কংগ্রেস নেতা সালমান খুরশিদের নাম! চার্জশিটকে কিসের সঙ্গে ত‍ুলনা করলেন খ‍ুরশিদ জান‍ুন



নয়াদিল্লি, ২৪ সেপ্টেম্বরঃ বর্ষীয়ান কংগ্রেস নেতা ও প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী সালমান খুরশিদের ‘উসকানিমূলক মন্তব্য’ করার জন্য চলতি বছরের ফেব্র‍ুয়ারিতে ঘটা উত্তর-পূর্ব দিল্লি হিংসা যেখানে ৫৪ জনকে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়েছে যাদের অধিকাংশই মুসলিম, সেই সংক্রান্ত মামলার চার্জশিটে নাম উল্লেখ করেছে দিল্লি পুলিশ। ১৭ সেপ্টেম্বর দায়ের করা ১৭ হাজার পাতার চার্জশিটে এক প্রত্যক্ষদর্শীর বয়ান, ‘উমর খালিদ, সালমান খুরশিদ, নাদিম খান সিএএ বিরোধী অবস্থান বিক্ষোভে উসকানিমূলক বক্তব্য রেখেছিলেন এবং লোকজনকে জড়ো করেছিলেন।’ 


যদিও পুলিশ সেই মন্তব্যের যথাযথ ধরন নিয়ে কোনও বাক্যব্যয় করেনি। ওই প্রত্যক্ষদর্শীর পরিচয়ও গোপন রাখা হয়েছে। পুলিশের দাবি, হিংসার যারা ছক করেছিলেন, প্রত্যক্ষদর্শী তাঁদেরই একজন। এই বিবৃতিকে আইনিভাবে জোরালো করার জন্য সিআরপিসির ১৬৪ ধারা মোতাবেক ম্যাজিস্ট্রেটের সামনে রেকর্ড করা হয়েছে। কেবল একজন নয়, আরও এক অভিযুক্ত পুলিশের কাছে দেওয়া বিবৃতিতে খুরশিদের নাম বলেছেন। 


৬৭ বছরের বর্ষীয়ান কংগ্রেস নেতা খুরশিদ এই অভিযোগের প্রতিক্রিয়ায় জানিয়েছেন, ‘যদি আপনারা জঞ্জাল সংগ্রহ করেন তাহলে আপনারা অনেক নোংরা পাবেন। যে কোনও জঞ্জালকেই বিবৃতির সমর্থনে ব্যবহার করা যায়। আমি খুবই কৌতূহলী যে, উসকানিমূলক বক্তব্য কাকে বলে?’ তিনি আরও বলেছেন, আমি আন্দোলনে ঘুমপাড়ানি গান গাইতে গিয়েছিলাম নাকি সাংবিধানিক, বৈধ নিয়মকে সমর্থন করতে গিয়েছিলাম? পুলিশের এই উদ্যোগকে জঞ্জাল সংগ্রহ ছাড়া আর কিছু বলতে নারাজ তিনি। 


পুলিশকে ব্যঙ্গ করে তিনি বলেছেন, ‘‘দুঃখের বিষয় হল, যারা জঞ্জাল সংগ্রহ করছেন তারা ভালোভাবে কাজটা করছেন না।’’ পুলিশকে সতর্ক করে তাঁর মন্তব্য, জঞ্জাল তুলে নিয়ে তার গুণমান নিয়ে প্রশ্ন তুলবেন না। তিনি প্রশ্ন তুলেছেন, ‘আমি উসকানিমূলক বক্তব্য রেখেছিলাম, এই কথার মাধ্যমে প্রত্যক্ষদর্শী কি মিথ্যা বলছেন না? পুলিশ কি বিবৃতি অনুযায়ী কাজ করেছে? যদি তা না করে থাকে তাহলে এই বিবৃতির মূল্য কী?’ এ পর্যন্ত চার্জশিটে যত জনের নাম এসেছে তাঁদের মধ্যে খুরশিদ সবচেয়ে প্রথম সারির নেতা। 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only