শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০

ভাইরাসঘটিত রোগে নষ্ট গোলাপ চাষ, ক্ষতিপূরণ দিতে উদ্যোগ ব্লক প্রশাসনের



মুহাম্মদ রাকিব, উলুবেড়িয়া­‌: গত শীতে ঠান্ডার কারণে অজানা ভাইরাসঘটিত রোগের শিকার হয় বাগনানের বিস্তীর্ণ এলাকার গোলাপ ফুলের চাষ। এর জেরে নষ্ট হয়েছে বিঘার পর বিঘা জমির ফুল। স্বভাবতই বিপাকে পড়েন বাগনানের কয়েকশো ফুলচাষি। এবার ওই ফুলচাষিদের পাশে দাঁড়াল ব্লক প্রশাসন। উদ্যানপালন দফতর ও হাওড়া জেলা পরিষদ ক্ষতিগ্রস্ত ফুলচাষিদের ক্ষতিপূরণ দিতে উদ্যোগ নিয়েছে বলে জানা গিয়েছে। 


বাগনান-২ ব্লকের বিডিও সুমন চক্রবর্তী ও বাগনান- ২ পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি মৌসুমী সেন বলেন, ‘ক্ষতিগ্রস্ত ফুলচাষিরা ক্ষতিপূরণের জন্য আবেদনপত্র জমা দিতে শুরু করেছেন। আবেদনপত্রগুলি খতিয়ে দেখে চাষিদের ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে।’


প্রসঙ্গত, বাগনান-২ ব্লকের ওড়ফুলি গ্রাম পঞ্চায়েতের বাঁকুড়দহ, কাঁটাপুকুর, হেলেদ্বীপ-সহ ২০টি গ্রামে ফুলচাষিরা গোলাপ চাষ করেন। গত শীতে গোলাপ চাষিরা লক্ষ্য করেন গোলাপ চারার পাতায় কালচে বা হলদেটে দাগ। এরপর থেকেই পাতা ঝরতে শুরু করে। গাছ শুকিয়ে গিয়ে গোলাপও শুকিয়ে যায়। 


জানা গিয়েছে, এই পরিস্থিতিতে চাষিরা স্থানীয় সারের দোকানগুলি থেকে ওষুধ সংগ্রহ করে দিলেও কোনও সুরাহা হয়নি। উদ্যানপালন দফতরের কর্তারা জানান, ভাইরাসঘটিত রোগে আক্রান্ত হয়েছে গোলাপ। বিঘার পর বিঘা জমিতে রোগ ছড়িয়ে পড়ায় মাথায় হাত পড়ে গোলাপ চাষিদের। শুধুমাত্র গোলাপের বড় চারাই নয়, ভাইরাসঘটিত রোগে আক্রান্ত হয় কলম করা ছোট চারাও। 


বাগনানের ফুলচাষি লবকুমার ধাড়া জানালেন, প্রায় দেড় লক্ষ টাকা খরচ করে করে তিনি গোলাপ চাষ করেছিলেন। ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন লবকুমারবাবুর মতো কয়েকশো ফুলচাষি। প্রশাসনের তরফে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন ক্ষতিগ্রস্ত ফুলচাষিরা।


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only