শনিবার, ৫ সেপ্টেম্বর, ২০২০

স‍ুশান্ত মামলায় নয়া মোড়, মাদক কেসে রিয়ার ভাই ও বন্ধু গ্রেফতার! বিস্তারিত পড়‍ুন



পুবের কলম প্রতিবেদকঃ ­ জল্পনা ছিলই। সেইমতো সুশান্ত সিং রাজপুতের রহস্যমৃত্য‍ুর ঘটনাসহ নিষিদ্ধ মাদক (মারিজুয়ানা) ব্যবহার মামলায় নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরো(এনসিবি) শুক্রবার রাতে গ্রেফতার করল অভিনেত্রী রিয়া চক্রবর্তীর ভাই শৌভিক চক্রবর্তী ও সুশান্তের প্রাক্তণ ম্যানেজার স্যামুয়েল মিরান্ডাকে। এই নিয়ে সুশান্ত মৃত্য‍ুতে এক মাদক কারবারী সহ ৭ জনকে গ্রেফতার করা হল। এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি) ও সিবিআই সুশান্ত মৃত্য‍ুর তদন্তে নেমে প্রাথমিক পর্যায়তেই রিয়া চক্রবর্তীর মোবাইল ফোন বাজেয়াপ্ত করে নেয়। সেই মোবাইলের কল রেকর্ড ও চ্যাট রেকর্ড ঘেঁটে তদন্তকারীদের ধারণা হয় যে অভিনেতা সুশান্ত ও তাঁর ঘনিষ্ঠ বন্ধু বান্ধবদের জন্য মাদক জোগাড় করা, মাদকের লেনদেন করা, মাদক ব্যবহারের ক্ষেত্রে রিয়ার ভাই শৌভিক ও স্যামুয়েল মিরান্ডা প্রত্যক্ষভাবে জড়িত থাকতে পারে।


স্বাভাবিকভাবে সুশান্ত মৃত্য‍ুর সঙ্গে মাদক যোগের বিষয়টি তদন্ত করার দায়িত্ব দেওয়া হয় এনসিবিকে। এনসিবি ডিরেক্টর রাকেশ আস্থানা নিজেই বিশেষ একটি দল গঠন করে মুম্বই পাঠান। দলটির নেতৃত্বে রয়েছেন ডেপুটি ডিরেক্টর কেপিএস মালহোত্রা। মুম্বইয়ে আগত এনসিবির তদন্তকারী দলটিই স্বত­প্রণোদিত হয়ে একটি ‘নিষিদ্ধ মাদক ব্যবহারের’ মামলা রুজু করেন এবং তদন্ত এগিয়ে নিয়ে যান। তখন থেকেই রিয়ার শৌভিক ও স্যামুয়েল মিরান্ডার গ্রেফতারির জল্পনা তৈরি হয়। 


এদিন সকালে এনসিবির আধিকারিকরা রিয়ার ভাই শৌভিক ও স্যামুয়েলের  বাড়িতে তল্লাশি চালায়। তল্লাশি শেষে স্যামুয়েল ও শৌভিককে তদন্তকারীরা জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করে নিয়ে যায়। এরপর দিনভর জিজ্ঞাসাবাদের পর রাতে শৌভিক ও সুশান্তর প্রাক্তণ ম্যানেজার স্যামুয়েল মিরান্ডাকে গ্রেফতার করা হয়। আর এই গ্রেফতারির পরেই সুশান্ত মৃতু্য মামলা যে আরও নতুন নতুন মোড় নেবে তা স্পষ্ট হয়ে গেল। একইসঙ্গে অভিনেত্রী রিয়া চক্রবর্তীরও গ্রেফতারির সম্ভাবনা আরও বাড়লো। 


কিভাবে মারিজুয়ানার মতো ‘হাইপ্রোফাইল’ নিষিদ্ধ মাদক এই মৃত্য‍ু মামলার সঙ্গে জড়ালো? এনসিবি সূত্রে খবর অভিনেত্রীর মোবাইল ফোন ঘেঁটে মাদক যোগের একটা আভাস মিলতেই সমান্তরালভাবে মাদককারবারীদের হদিশ করা এবং অভিনেতাকে মাদক পৌঁছে দেওয়ার পিছনে কারা আছে তার সুলুকসন্ধান শুরু হয়ে যায়। আর এই অনুসন্ধান করতে গিয়ে এনসিবি বসিত পরিহার নামে বান্দ্রার এক বাসিন্দাকে গ্রেফতার করে। এই বসিত রিয়ার ভাই শৌভিক ও স্যামুয়েলের সঙ্গে নিবিড় যোগাযোগ ছিল। শৌভিকের নির্দেশেই স্যামুয়েল সুশান্তর জন্য বসিতের কাছ থেকে মাদক জোগাড় করত। এই মাদক লেনদেনে আরও কয়েকজন ইতিমধ্যেই এনসিবির জালে পড়েছে বলে জানা গিয়েছে।


অন্যদিকে, একাধিকবার রিয়া ও শৌভিককে জেরা করেছে এনসিবি। জেরা মুখে পড়েছে স্যামুয়েলও। শুক্রবার যে সাতসকালেই এনসিবি আচমকা তল্লাশি অভিযানে চলে আসবে তা তারা বুঝতে পারেননি। তাঁদের বাড়ি থেকে ফোন, ল্যাপটপ অন্যান্য ইলেকট্রনিক সরঞ্জাম বাজেয়াপ্তও করা হয়। 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only