শুক্রবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০

ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে ট্রাকে পচছে পেঁয়াজ, ব্যবসায়ীদের মাথায় হাত

 


এম এ হাকিম, বনগাঁ : কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষ থেকে পেঁয়াজ রফতানির নির্দেশে ভারত-বাংলাদেশের পেট্রাপোল সীমান্তসহ বিভিন্ন সীমান্তে ট্রাক  বোঝাই পেঁয়াজ পচতে শুরু করেছে। আচমকা কেন্দ্রীয় সরকারের ওই সিদ্ধান্তে বাংলাদেশে রফতানিকারক ভারতীয় ব্যবসায়ীরা গভীর সমস্যার মুখে পড়েছেন। যেসব ট্রাক এরইমধ্যে স্বাভাবিক নিয়মে সীমান্ত এলাকায়  এসে গেছে তাঁরা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে রফতানির ছাড়পত্র দেওয়ার চেষ্টা চালাচ্ছেন। 


শুক্রবার এ ব্যাপারে ‘পেট্রাপোল ক্লিয়ারিং এজেন্টস স্টাফ ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন’-এর সম্পাদক কার্ত্তিক চক্রবর্তী ‘পুবের কলম’ প্রতিবেদককে বলেন, ‘বৃহস্পতিবার পর্যন্ত পেট্রাপোল সীমান্তের উদ্দেশ্যে ৩৫ ট্রাক পেঁয়াজ বিভিন্ন রাস্তায় দাঁড়িয়ে রয়েছে। ঘোঁজাডাঙা সীমান্তে ৩০০ থেকে ৩৫০ ট্রাক পেঁয়াজ দাঁড়িয়ে আছে। মহদীপুর সীমান্তে ২২০ থেকে ২২৫ ট্রাক এবং হিলি সীমান্তে প্রায় ১৭০ টি পেঁয়াজের ট্রাক দাঁড়িয়ে আছে। এছাড়া একটা রেলের রেক রাণাঘাটে দাঁড়িয়ে আছে ১৪০০ টন মাল নিয়ে। মোট কমপক্ষে ১৮ হাজার টন পেঁয়াজ বন্দর এলাকা এবং মাঝপথে আটকে রয়েছে।’



ঘোঁজাডাঙা সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট এমপ্লয়িজ কার্গো ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের সভাপতি গোলাম মোস্তফা ‘পুবের কলম’ প্রতিবেদককে জানান, ‘ট্রাকে থাকা পেঁয়াজের গাড়ি থেকে এরইমধ্যে রস গলা শুরু হয়েছে। অর্থাৎ পেঁয়াজের পচন শুরু হয়েছে। অবিলম্বে রফতানির ব্যবস্থা না হলে ব্যবসায়ীরা বড়সড় ক্ষতির মুখে পড়বেন।’



‘পেট্রাপোল ক্লিয়ারিং এজেন্টস স্টাফ ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন’-এর সম্পাদক কার্ত্তিক চক্রবর্তী বলেন, রফতানির জন্য বিভিন্ন ফোরাম থেকে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন জানানো হয়েছে। আশা করছি সদর্থক বার্তা আসবে।’  


গতবছরও আচমকা পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করা হয়েছিল। গতবছর অক্টোবরে ভারত সফরে এসে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভারতের  আচমকা পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করে দেওয়া নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন। মজা করে বলেছিলেন,  ‘পেঁয়াজ নিয়ে একটু সমস্যায় পড়ে গিয়েছি আমরা। আমি  জানি না, কেনো আপনারা পেঁয়াজ বন্ধ করে দিলেন। আমি রাঁধুনিকে বলে দিয়েছি, এখন থেকে রান্নায় পেঁয়াজ বন্ধ করে দাও।’



ভারত নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি বাংলাদেশকে আগেভাগে জানালে, ঢাকা অন্য কোনো দেশ থেকে পেঁয়াজ আনার ব্যবস্থা করে নিতো বলেও শেখ হাসিনা মন্তব্য করেন।



এবছর আবারও পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ হওয়ায় দু’দেশের মধ্যে পেঁয়াজ নিয়ে কিছুটা টানাপড়েন সৃষ্টি হয়েছে। বাংলাদেশ অবিলম্বে রফতানি বন্ধের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করার আহ্বান জানিয়েছে। ভারতীয় রফতানিকারক ব্যবসায়ীরাও সরকারি সবুজ সংকেত আসার অপেক্ষায় রয়েছেন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only