রবিবার, ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০

রাজ্যসভা টিভির ছবি আর ডেপুটি চেয়ারম্যানের বয়ানে অসঙ্গতি, প্রধানমন্ত্রীকে তোপ অভিষেকের



যেনতেন প্রকারে রাজ্যসভায় কৃষি বিল পাস করানোর জন্য নিয়মনীতির তোয়াক্কা করেনি সরকার। এই অভিযোগ শুরু থেকেই করেছিল বিরোধীরা। এবার তাদের অভিযোগ জোর পেল রাজ্যসভা টিভি ফুটেজ সামনে আসায়। তা নিয়ে ইতিমধ্যেই জোর বিতর্ক রাজনৈতিক মহলে। 


রবিবার এই নিয়েই সরব হলেন তৃণমূল যুব সভাপতি তথা ডায়মণ্ড হারবাবের সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। সোশ্যাল সাইট ট্যুইটারে তিনি বলেন, সংসদে জনপ্রতিনিধিদের যে ভাবে দমিয়ে দেওয়ার চেষ্টা হচ্ছে সেটা সকলেই দেখছে ও জানছে। কিন্তু বিজেপি জানে না প্রতিবাদীরা জেগে উঠছে। এবং এই মুহূর্তে প্রতিবাদের বন্যা বয়ে যাচ্ছে দেশ জুড়ে। এখন কী ভাবে মোদীজি এই বিপুল  প্রতিবাদকে থামাবেন, সটাই ভাবা উচিত।


এ কথা ঠিক যে, দেশ জুড়ে কৃষিবিল নিয়ে দারুণ আকারে প্রতিবাদ চলছে। এই ইস্যুতে শিরোমণি আকালি দল এমডিএ ছেড়ে বেরিয়ে এসেছে। উত্তর ভারত জুড়ে স্বরঃস্ফূর্ত প্রতিবাদে মুখর হয়েছেন কৃষকেরা। এই সময়ে রাজ্যসভার ডেপুটি চেয়ারম্যান যদি প্রকৃত সত্য গোপন করতে চান, তবে তা তাঁর পক্ষে নিশ্চয়ই কঠিন হবে, অশোভনও হবে এমনই ধারণা বিরোধীদের।  

উল্লেখ্য, রবিবার দেশের এক প্রথম সারির টিভি চ্যানেলের সংবাদ প্রকাশ্যে এসেছে। যেখানে রাজ্যসভা টিভির ফুটেজই তুলে ধরা হয়েছে। রাজ্যসভা টিভির ওই ফুটেজে দেখা যাচ্ছে, গত ২০ তারিখ দুপুর ১.‌০ মিনিট নাগাদ বিরোধী দলনেতা গুলাম নবি আজাদ কক্ষকে বলছেন যে, 'বিরোধীরা বলছে আজ আর সময় বাড়ানো উচিত হবে না, মন্ত্রী আগামীকাল জবাব দিতে পারেন।'


কিন্তু ধ্বনি ভোটে বিল পাস করানোর পক্ষে রাজ্যসভার ডেপুটি চেয়ারম্যান হরিবংশ সিং এবং সরকারের দাবি ছিল, যখন ভোট ভাগের দাবি করেন বিরোধীরা, তখন তাঁরা কেউ নিজেদের আসনে ছিলেন না। বিরোধীদের পাল্টা দাবি, ডেপুটি চেয়ারম্যান কারও অনুমতি না নিয়েই নির্ধারিত সময়ের পরে দুপুর একটার পরও অধিবেশনের সময়সীমা বাড়িয়ে দেন। তার প্রতিবাদ জানাতেই বিরোধী সাংসদরা ওয়েলে নেমে গিয়েছিলেন।



একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only