শনিবার, ৫ সেপ্টেম্বর, ২০২০

ডব্লিউবিসিএস গ্র‍ুপ-সি তে সফল ২০.২ শতাংশ ম‍ুসলিম প্রার্থী



পুবের কলম প্রতিবেদকঃ পশ্চিমবঙ্গ সিভিল সার্ভিস-২০১৮ সালের গ্র‍ুপ সি-র পরীক্ষায় ২০.২ শতাংশ মুসলিম পাশ করল। শুক্রবার প্রকাশিত হয়েছে পিএসসি-র ডব্লিউবিসিএস-এর গ্র‍ুপ সি-র ফলাফল। মোট ৯৪টি আসনের মধ্যে ১৯ জন মুসলিম প্রার্থী উত্তীর্ণ হয়েছেন। এই প্রার্থীদের মধ্যে পঞ্চায়েত ও গ্রামোন্নয়ন দফতরে জয়েন্ট বিডিও-পদে ৪৭ জন উত্তীর্ণ হয়েছেন, এর মধ্যে মুসলিম ৬ জন। ক্রেতা সুরক্ষা-১২ জন, এর মধ্যে ২ জন মুসলিম। ভূমি ও রাজস্ব, অর্থ (রাজস্ব) দফতরে-১৫ জন নিয়োগ পেয়েছেন। এর মধ্যে রয়েছেন ৪ জন মুসলিম। কমার্শিয়াল ট্যাক্সে-১৬ জন সফল হয়েছেন, এর মধ্যে ৩ জন মুসলিম। ডিস্ট্রিক্ট এবং সেন্ট্রাল কারেকশনাল হোমে ৩ জন, এর মধ্যে ১ জন মুসলিম। চিফ কন্ট্রোলার অব কারেকশনাল সার্ভিসে- ১ জন উত্তীর্ণ হয়েছেন। এঁদের এই সব বিভাগে নিয়োগ করা হবে। উত্তীর্ণ প্রার্থীদের মধ্যে জেনারেল ক্যাটাগরির আসন রয়েছে ৪৯টি, ওবিসি-এ ১১, ওবিসি-বি ০৬, এসসি ১৯, এসটি ০৭. প্রতিবন্ধী -২।


ডব্লিউবিসিএস-এর সি গ্র‍ুপের সুপারিনটেন্ডেন্ট, ডিসট্রিক্ট অ্যান্ড সেন্ট্রাল কারেকশনাল হোমে প্রথম স্থান অধিকার করেছেন শাশ্বত চৌধুরি, দ্বিতীয় হয়েছেন আবদুল সামির মণ্ডল এবং তৃতীয় কৌশিক সরকার। জয়েন্ট বিডিও পদে প্রথম হয়েছেন দেবজ্যোতি ম‍ুখোপাধ্যায় এবং মুসলিমদের মধ্যে জয়েন্ট বিডিও তালিকায় চতুর্থ স্থানে কাহেকাশান পারভিন।


এবারের ডব্লিউবিসিএস (এক্সিকিউটিভ)-এর সি গ্র‍ুপের সফল মুসলিম প্রার্থীদের মধ্যে ১০ জন সাধারণ ক্যাটেগরিতে, ৮ জন ওবিসি-এ এবং একজন ওবিসি-বি ক্যাটাগরি থেকে সফল হয়েছেন। সফল ১৯ জন মুসলিমের মধ্যে তিনজন মেয়ে। এঁদের বেশিরভাগই জয়েন্ট বিডিও পদে নিয়োগ পাবেন। 


ডব্লিউবিসিএস (এক্সিকিউটিভ) গ্র‍ুপ ‘সি’র সফল মুসলিম প্রার্থীরা হলেনঃ

১) আবদুল সামির মণ্ডল, ২) কাহেকাশান পারভিন, ৩) তারিফ ইসলাম, ৪)  হাসানুজ্জামান সেখ, ৫)  ফরমান আলি, ৬) দিলবার হোসেন, ৭) ফয়সাল সেখ, ৮) নাজমুল হক ৯) সেখ আসফার আলি, ১০) আসিফ ইকবাল, ১১) হাসানুজ্জামান বিশ্বাস, ১২) মেরিনা ইয়াসমিন, ১৩) রাকিবুল ইসলাম, ১৪) খ‍ুরশিদ জামাল আনসারি, ১৫) সামিম মোল্লা, ১৬) সাহিনা খাতুন, ১৭) মুহাম্মদ জসিমুদ্দিন মণ্ডল, ১৮) আহমদ হাসান সিদ্দিকী, ১৯) মফিকুল ইসলাম।


বিগত কয়েক বছর ধরে মুসলিম প্রার্থীরা ডব্লিউবিসিএস পরীক্ষায় লাগাতার ভালো ফল করছেন। বলা যায়, তারা তাদের জনসংখ্যার কাছাকাছি হারে সফল হচ্ছেন। অথচ বামফ্রন্ট আমলে মুসলিমরা ২-৩ শতাংশের বেশি কখনও সফল হতে পারেনি। অনেকে বলছেন, এর পেছনে ছিল বৈষম্য। তৃণমূল সরকারের আমলে মুসলমানদের ডব্লিউবিসিএস পরীক্ষায় সাফল্যের হার কমবেশি ২০ শতাংশের কাছাকাছি। বর্তমান উল্লেখিত পরীক্ষায় মুসলিমদের সাফল্য ২০.২ শতাংশের অল্প বেশি। শিক্ষাবিদদের বক্তব্য হচ্ছে, বিগত কয়েক বছরে ডব্লিউবিসিএস পরীক্ষার জন্য মুসলিম এলাকায় বেশ কিছু কোচিং সেন্টার গড়ে উঠেছে। এইসব কোচিং সেন্টারে অল্প খরচেও প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা রয়েছে। মিশন স্কুলগুলিও এক্ষেত্রে বড় ভূমিকা পালন করছে। 


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only