রবিবার, ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০২০

প‍ুজোর আগেই বয়স্ক কৃষক ও মৎস্যজীবীদের অগ্রীম ভাতা প্রদান করবেন রাজ্য সরকার



পুবের কলম প্রতিবেদকঃ মানবিকতায় যে তাঁর ধারেকাছে কেউ নেই ফের একবার প্রমাণ করলেন বাংলার ম‍ুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আসন্ন শারদীয় উৎসবের কথা মাথায় রেখে রাজ্যের লক্ষাধিক কৃষক ও মৎস্যজীবীকে দু’মাসের অগ্রিম পেনশন দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি। দু’মাসের পেনশন বাবদ অক্টোবর ও নভেম্বর মাসে পেনশন প্রাপকদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে ২,০০০ টাকা দেওয়া হবে। 


শনিবার অল ইন্ডিয়া তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষ থেকে সোশ্যাল মিডিয়ায় জানানো হয়, ‘কৃষক ও মৎস্যজীবীরা বাংলার অর্থনীতির মেরুদণ্ড। তাই ম‍ুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অনুপ্রেরণায় পশ্চিমবঙ্গ সরকার এক মানবিক ঘোষণার মাধ্যমে জানিয়েছে যে কৃষক এবং মৎস্যজীবীদের দুর্গাপুজোর আগেই অগ্রিম পেনশন দেওয়া হবে। এতে উৎসবের মরসুমে হাসি ফুটবে সকলের ম‍ুখে।’


অসহায় ও অশক্ত কৃষক ও মৎস্যজীবীদের ম‍ুখে হাসি ফোটাতে আগেই তাঁদের পেনশন বাড়িয়ে এক হাজার টাকা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। চলতি বছরের শুরুতেই কৃষকদের জন্য একগুচ্ছ প্রকল্পও ঘোষণা করেছিলেন তিনি। মানুষের ম‍ুখে অন্ন জোগান যাঁরা, তাঁরা যাতে সম্মানের সঙ্গে বাঁচতে পারেন, তার দিকে বিশেষ নজর দিয়েছেন বাংলার মানব দরদি ম‍ুখ্যমন্ত্রী। ইতিমধ্যেই বাংলার ৭২ লক্ষ কৃষককে ‘কৃষক বন্ধু’ প্রকল্পের আওতায় এনেছেন। 


চলতি মাসেই রাজ্যে ৬০ বছরের ঊর্ধ্বে এবং কর্মক্ষমহীন ৮৭ হাজার ৯১১ জন কৃষককে পেনশন দিয়েছে কৃষি দফতর। সংখ্যাটা বাড়িয়ে এক লক্ষ করা হবে বলে কৃষি দফতরের এক আধিকারিক জানিয়েছেন। রাজ্যের কৃষিমন্ত্রী আশিস বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, ‘করোনা মহামারির জেরে বহু বয়স্ক কৃষকদের অবস্থা শোচনীয় হয়ে পড়ছে। আর্থিক দুরবস্থায় রয়েছেন অনেকে। তাই তাদের হাতে দু’মাসের অগ্রিম পেনশন দিয়ে কিছুটা আর্থিক সুরাহার ব্যবস্থা করা হচ্ছে।’


কৃষি দফতরের পাশাপাশি রাজ্যের মৎস্য দফতরের পক্ষ থেকেও আর্থিকভাবে পিছিয়ে পড়া ২০ হাজারের বেশি মৎস্যজীবীর হাতে অগ্রিম পেনশন তুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।




একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only