শনিবার, ১২ সেপ্টেম্বর, ২০২০

ব্রেক্সিট নিয়ে ব্রিটেন- ইউরোপ তরজা আলোচনার দরজা বন্ধের হুমকি বরিসের



পুবের কলম প্রতিবেদকঃ ব্রেক্সিট যেন ব্রিটেনের কাছে সাপের ছুঁচো গেলা হয়েছে। আর ইউরোপের কাছে যেন আপদ। এই জটিল প্রক্রিয়ার জট খুলতে গিয়ে জট ক্রমেই আরও পাকিয়ে যাচ্ছে। ব্রেক্সিট নিয়ে হিমশিম খাচ্ছেন ব্রিটেনের তিন জন প্রধানমন্ত্রী। ইউরোপকে পাকাপাকিভাবে ডিভোর্স দিয়ে এক ঘর করতে চেয়ে পদ খুইয়েছেন দুজন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী। এখন এই ইস্যুতে আরও একঘরে হয়ে গিয়েছেন বর্তমান প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। যিনি বছর তিনেক আগে ব্রেক্সিট ইস্যুতে তদানীন্তন প্রধানমন্ত্রী টেরেসা মে-র নীতির বিরোধিতা করে বিদেশমন্ত্রী পদে ইস্তফা দিয়েছিলেন বরিস জনসন। কিন্তু ভাগ্যক্রমে সেই ব্রেক্সিটই তার কপাল খুলে দেয়। টেরেসার উত্তরসূরী হন বরিস।

কিন্তু এখন তাঁর ছেড়ে দে মা কেঁদে বাঁচি অবস্থা। নো-ডিল ব্রেক্সিটের কোনও হিল্লে করতে না পেরে নিজের ব্যর্থতার দায় ইউরোপের কাঁধে চাপিয়ে দিয়ে তিনি বলেছেন অগ্রগতি না হলে আলোচনার দরজা বন্ধ করে দেবে ব্রিটেন। ব্রেক্সিট পরবর্তী বাণিজ্যচুক্তি নিয়ে রবিবার ইউরোপকে সময় বেঁধে দিয়ে বরিস বলেন ১৫ অক্টোবরের মধ্যে চুক্তি না হলে আমরা হাত গুটিয়ে নেব। 

উল্লেখ্য যে  ইউরোপের দেশগুলোর সঙ্গে ব্রেক্সিটের পরেও অবাধ বাণিজ্যে আগ্রহী ব্রিটেন। দীর্ঘদিন ধরে বরিস এই আবদার করে এলেও এখনও মতৈক্য হয়নি। ফলে ধৈর্য্যরে বাঁধ ভাঙছে বরিসের। এদিকে ইউরোপের অভিযোগ ট্রাম্প ও পুতিনের সঙ্গে গোপন আঁতাত করে ইউরোপকে দুর্বল করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে বরিসের ব্রিটেন। এমতাবস্থায় পরবর্তী পদক্ষেপ ঠিক করতে আজ মঙ্গলবার থেকে লন্ডনে বিশেষ বৈঠক হবে। তার আগেই ইউরোপকে হুঁশিয়ারি দিয়ে রাখলেন বরিস।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only