রবিবার, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০২০

দিলীপের সুরে বাংলাকে ‘বোমা তৈরির আতুঁড়ঘর’ বলে দাবি করলেন রাজ্যপাল


পুবের কলম প্রতিবেদক­: রাজ্যের সঙ্গে রাজ্যপালের সম্পর্ক নিয়ে অনেক বির্তক। তিনি পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাল হিসাবে দায়িত্ব নেওয়ার পরেই একাধিক বিষয়ে নবান্নের সঙ্গে সংঘাতে গিয়েছেন। শুধু তাই নয় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সহ অন্যান্য মন্ত্রীদেরও প্রকাশ্য সমালোচনা করেছেন। শাসকদলের তরফে অভিযোগ  রাজ্যপাল জগদীপ ধনকর বিজেপি কর্মীর মতোই আচরণ করছেন। সে অভিযোগ কতটা সত্য তা নিয়ে বির্তক থাকতেই পারে কিন্তু শনিবার জঙ্গি সন্দেহে মুর্শিদাবাদের কয়েকজন যুবকের গ্রেফতারিতে বিজেপির সুরেই সুর মেলান রাজ্যের সাংবিধানিক প্রধান। রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষের বক্তব্যের মতোই ‘বাংলাকে বোমা তৈরির আতুঁড়ঘর’ বলে বিষ্ফোরক মন্তব্য করেন রাজ্যপাল।

এ দিন রাজ্যপাল পরপর টু্যইট করে রাজ্য ও পুলিশ-প্রশাসনকে আক্রমণ করেন। তিনি বলেন  এ রাজ্য অবৈধ বোমা  তৈরির আতুঁড়ঘরে পরিণত হয়েছে যা গণতন্ত্রকে অশান্ত করে তুলতে পারে। রাজ্যের পুলিশ রাজনৈতিক প্রচার চালাতেই ব্যস্ত। তিনি হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন যাঁরা শীর্ষে বসে আছেন তাঁরা আইন-শৃঙ্খলা রক্ষার প্রশ্নে দায়বদ্ধতা এড়িয়ে যেতে পারেন না। তিনি রাজ্য পুলিশের ডিজিকেও আক্রমণ করেছেন। রাজ্যপালের অভিযোগ বাস্তবতা থেকে অনেক দূরে রয়েছেন পুলিশের ডিজি যা আশঙ্কার কারণ। তাঁর উটপাখির মতো অবস্থান বিরক্তিকর। তবে সব পুলিশ খারাপ নয় তাঁদের প্রতিকূলতার সঙ্গে কাজ করতে হয় পলে তাঁদের কাজের প্রশংসা করার কথাও উল্লেখ করেছেন রাজ্যপাল। এর পরেই তিনি অভিযোগ করেন পুলিশের শীর্ষকর্তারা রাজনৈতিকভাবে পরিচালিত এবং অনিচ্ছাকৃত আচরণ করছেন। অন্য একটি টু্যইটে রাজ্যপাল বলেন জাতীয় তদন্তকারী সংস্থা পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদ জেলার আল-কায়দা মডিউল ফাঁস করেছে। এরকম পরিস্থিতিতে রাজ্যের তরফে দাবি করা হচ্ছে পশ্চিমবঙ্গ পুলিশ আইনের পথেই কাজ করছে। আইনের দৃষ্টিতে কারোর সঙ্গে বৈষম্য করা হচ্ছে না। 

উল্লেখ্য কেরলের এর্নাকুলাম ও মুর্শিদাবাদের বিভিন্ন জায়গায় তল্লাশি চালিয়ে মোট নয় জনকে গ্রেফতার করেছে জাতীয় তদন্তকারী সংস্থা বা এনআইএ। এনআইএ-র দাবি ধৃতরা জঙ্গি সংগঠন আল-কায়দার সদস্য। এ নিয়েই রাজ্য প্রশাসনের বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ করেছে বিজেপি। বিজেপির রাজ্য সভাপতি ও সাংসদ দিলীপ ঘোষের মতে যে ঘটনা ঘটেছে তা দেশের সুরক্ষার জন্য দূর্ভাগ্যজনক। এ দিন তিনি বলেন বাংলায় বারবার এমন ঘটনা ঘটছে। এমন কোনও জেলা নেই যেখানে বোমা বিষ্ফোরণ হয়নি। রাজনৈতিক ফায়দার জন্য রাজ্য সরকার জেনেশুনে চেপে যায়। দেশ-বিদেশের জঙ্গিরা এখানে আশ্রয় গ্রহণ করে বলেও অভিযোগ করেন দিলীপ ঘোষ।


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only