মঙ্গলবার, ১ সেপ্টেম্বর, ২০২০

৬ শহরে বিমান পরিষেবা চাল‍ু, আশার আলো দেখছে বহ‍ু কর্মহীন বিমান স্টাফ



 ফারুক আলম

করোনায় প্রত্যক্ষ প্রভাব সবচেয়ে বেশি পড়েছে দেশের অসামরিক বিমান পরিষেবার ক্ষেত্রে। অতিমারির একাধিক এয়ারলাইন্স সংস্থাকে বন্ধ করতে হয়েছে উড়ান। ফলে বিমান সংস্থার বিরাট ধাক্কার পাশাপাশি কলকাতা বিমানবন্দরে কর্মহীন হতে হয়েছে বহু কর্মচারীকে। বর্তমান আনলক পর্বেও আকশে উড়ছে কম বিমান। লকডাউন এবং আনলক পর্বে বিমানবন্দরে কর্তরত বিভিন্ন সংস্থার বহু কর্মীকে ছাঁটাই করা হয়েছে।


বিগত দিনে এই নিয়ে একাধিকবার প্রতিবাদে সরব হতে দেখা গিয়েছে রাজ্যের শাসক  দলকে। তবে আনলক পর্বে বাকি কর্মীরা আর যাতে কর্মহীন হয়ে না পড়েন সেজন্য অন্যপথে হাঁটছে কলকাতা বিমানবন্দর কন্ট্রাক্টর্স ওয়াকার্স ইউনিয়ন। কর্মীদের চাকরি বজায় রাখতে বিমানবন্দর কতৃর্পক্ষের কাছে লিখিত আবেদন করবেন তৃণমূল পরিচালিত এই ইউনিয়টি। 


এরই কার্যকারী সভাপতি বরুণ নট্ট বলেন, ‘লকডাউন এবং আনলক পর্বে লোডার, ক্লিনার সহ একাধিক পদে কর্মরত কমবেশি ৫০০ জন কর্মচারিকে ছাঁটাই করেছে বিভিন্ন উড়ান সংস্থা। কেবল ভদ্রা বিমানসংস্থা ৩২ জন কর্মীকে কর্মচূ্যত করেছে। এরফলে করোনাকালে কর্মীদের আর্থিক দুরবস্থার মধ্যে পড়তে হচ্ছে’। তিনি আরও জানান, ডিউটির পরিমাণ কমিয়ে সমস্ত কর্মীকে রোটেশন অনুযায়ী কাজ দেওয়ার আবেদন করা হবে। এজন্য স্থানীয় সাংসদ সৌগত রায়কে নিয়ে দিন কয়েকের মধ্যে বিমানবন্দরের ডিরেক্টরের সঙ্গে সরাসরি আলোচনা হবে বলে তিনি জানান। 


আনলক পর্বে ক্রমশ স্বাভাবিকের পথে হাঁটছে উড়ান পরিষেবা। তবে আন্তর্জাতিক উড়ান এখনও রয়েছে নিষেধাজ্ঞার তালিকায়। এ দিকে প্রায় দু’মাস বন্ধ থাকার পর দিল্লি, মুম্বই সহ ছ’টি শহর থেকে কলকাতার সরাসরি উড়ান চালুর ক্ষেত্রে সম্মতি দিয়েছে নবান্ন। এরফলে বিমান ওঠা-নামার সংখ্যাও বেশ কিছু বাড়বে। এই অবস্থায় কর্মহীন হয়ে পড়া কর্মীদের পুনরায় কাজে নেওয়া হয় সেই দাবি করবে তৃণমূল। এ দিকে, আজ মঙ্গলবার থেকে ছয় শহরের সঙ্গে বিমান পরিষেবা চালু হয়ে যাচ্ছে। বাড়বে যাত্রীর সংখ্যাও। ফলে বিমানবন্দরের ট্যাক্সি চালকদের ফিরবে সুদিন। 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only