বৃহস্পতিবার, ১০ সেপ্টেম্বর, ২০২০

হিজাবের জন্য শুনানি বাতিল,ক্ষমা চাইলেন কানাডীয় বিচারক



পুবের কলম প্রতিবেদকঃ হিজাব পরায় এক মুসলিম মহিলাকে চরম অপমান করেছিলেন কানাডার এক বিচারক। ৫ বছর পর সেই ঘটনার জেরে মঙ্গলবার ক্ষমা চাইতে বাধ্য হলেন কুইবেক আদালতের বিচারক এলিয়ানা মারেনগো। তবে তিনি নিজের ভুল বুঝতে পেরে তিনি স্বতঃস্ফূর্তভাবে ক্ষমা চাননি। বিষয়টি নিয়ে বিতর্ক দেখা দিলে শেষমেষ হস্তক্ষেপ করে কুইবেক কাউন্সিল অব ম্যাজিস্ট্রেট। এই কাউন্সিলের সদস্য হলেন কুইবেক আদালতের কয়েকজন নামজাদা সিনিয়র বিচারক। তাঁরা সিদ্ধান্ত নেন হিজাব সংক্রান্ত অবমাননার দায়ে ক্ষমা চাইতে হবে বিচারক এলিয়ানাকে। সেই চাপে পড়ে বাধ্য হয়েই এদিন ক্ষমা চান তিনি।
২০১৫ সালে রানিয়া আল-আলাউল হিজাব পরে আদালত কক্ষে উপস্থিত হয়েছিলেন। সে জন্য ওই মহিলা বিচারক রানিয়ার দায়ের করা মামলার শুনানি করেননি। তাছাড়াও আধুনিক ডিজাইনের সেই হিজাবকে হ্যাট এবং সানগ্লাসের সঙ্গে তুলনা করেন। স্বভাবতই ভীষণভাবে অপমানিত বোধ করেন রানিয়া। এমনকী ওই বিচারক ধমক দিয়ে বলেছিলেন হিজাব না খুললে তিনি বিচারকের আসন থেকে নেমে এখনি গাড়িতে উঠে বাড়ি চলে যাবেন। কিন্তু ঠেলায় পড়ে এদিন সেই অবস্থান থেকে ১৮০ ডিগ্রি ঘুরে গিয়ে বলেন রানিয়াকে সেদিন ভুলবশত কিছু আপত্তিকর কথা বলেছিলাম। যার জন্য আমি সত্যিই দুঃখিত। তিনি এও বলেন আদালত কক্ষে কিছু ডেকরাম থাকে। সে জন্যই আমি বলেছিলাম হিজাব খুলতে। কিন্তু ইসলামধর্মকে অবমাননা করার কোনও উদ্দেশ্য ছিল না। যদিও সাংবিধানিকভাবে এমন কোনও বিধি-নির্দেশ কানাডায় নেই। তবে রানিয়ার মামলার শুনানি না করাটা অন্যায় হয়েছিল বলে এদিন স্বীকার করে নেন তিনি। এদিন রানিয়া বলেন ইসলাম ধর্ম মানুষকে ক্ষমা করার শিক্ষা দেয়। তাই আমিও ওই বিচারককে ক্ষমা করে দিলাম। আর উনি যে নিজের ভুল স্বীকার করে ক্ষমা চেয়েছেন তাকে স্বাগত জানালাম। 
 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only