বৃহস্পতিবার, ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০

কৃষিতে ক্ষতি কত? জানে না কেন্দ্র



পুবের কলম প্রতিবেদকঃ লকডাউনে বাড়ি ফিরতে গিয়ে কতজন পরিযায়ী শ্রমিকের মৃত্যু  হয়েছে সেই সম্পর্কে কোনও হিসেব নেই বলে সংসদে দু’দিন আগেই জানিয়েছে কেন্দ্র। এবার লকডাউনে চাষের কত ক্ষতি হয়েছে তা নিয়েও নির্দিষ্ট পরিসংখ্যান দিতে পারল না মোদি সরকার। 

সম্প্রতি কৃষিক্ষেত্রের সংস্কারের জন্য জারি তিন অধ্যাদেশকে আইনের রুপ দিতে সংসদে তিনটি বিল এনেছে কেন্দ্র। এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদে দেশজুড়ে বিপুল সংখ্যক কৃষক যখন পথে নেমেছেন তখন সংসদেও কৃষি সংক্রান্ত আলোচনায় কড়া প্রশ্নের মুখে পড়ল কেন্দ্র। কোভিডের কামড় এবং লকডাউনের জেরে চাষি এবং কৃষি ক্ষেত্রের কতখানি লোকসান হয়েছে তার হিসেব চেয়ে লিখিত প্রশ্ন করা হয়েছিল কৃষিমন্ত্রী নরেন্দ্র সিংহ তোমরকে। মন্ত্রী জানিয়েছেন করোনায় কৃষকদের আয় কতটা ধাক্কা খেয়েছে তার হিসেব সংক্রান্ত কোনও রিপোর্ট তাঁদের কাছে নেই। বিরোধীদের প্রশ্ন যে সরকারের প্রধানমন্ত্রী ২০২২ সালের মধ্যে কৃষকদের আয় দ্বিগুণ করতে ‘প্রতিশ্রুতিবদ্ধ’ তাদের কাছে করোনায় পরিস্থিতিকে চাষিদের রোজগার মার খাওয়ার হিসেব নেই কেন?

কৃষি বাজারগুলো ভেঙে দিয়ে দিয়ে বৃহৎ কৃষি বাণিজ্যের হাতে কৃষিপণ্যের নিয়ন্ত্রণ তুলে দিতে চাইছে কেন্দ্র সরকার। বেসরকারি পুঁজি যেকোনও পরিমাণ কৃষিপণ্য মজুত করে রাখতে পারবে তার কোনও উর্ধ্বসীমা থাকবে না। এ ছাড়া দ্রব্যের দাম খেয়ালখুশি মতো তারা নির্ধারণ করতে পারবে। কৃষকরা বাধ্য হবে স্বল্পমূল্যে তাদের উৎপাদিত ফসল বিক্রিতে। 

অত্যাবশ্যকীয় পণ্য (সংশোধনী) বিল সংক্রান্ত আলোচনায় বিরোধীদের পাশাপাশি এ বিষয়ে সরকারকে বাড়তি সতর্কতা অবলম্বনের পরামর্শ দিয়েছেন একাধিক শরিক দলের সাংসদও। শেষমেশ বিল পাস হলেও আগাগোড়া অভিযোগ উঠেছে তার মাধ্যমে রাজ্যের ক্ষমতা খর্ব করার যা যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোর পরিপন্থী। তৃণমূল কংগ্রেসের সৌগত রায় কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় সহ বিরোধী শিবিরের অভিযোগ এই সংশোধনীর মাধ্যমে খাদ্যপণ্যের মতো অত্যাবশ্যক সামগ্রী যথেচ্ছ মজুত করার রাস্তা খুলে দিতে চাইছে কেন্দ্র। যাতে সেই সুযোগে সস্তায় বিপুল পরিমাণে আনাজ ফল ইত্যাদি কিনে তা নিজেদের কোল্ড স্টোরেজে মজুত করে রাখতে পারে রিলায়েন্স আদানির মতো সরকারের ঘনিষ্ঠ বড় গোষ্ঠীগুলো। এবং পরে চড়া দামে বেচে মোটা মুনাফা করতে পারে তারা। এই সংশোধনী ঠেকাতে আদালতে যাবেন বলে জানিয়েছেন পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী অমরেন্দ্র সিংহ। 

দেশের কৃষক-বিরোধী এই বিল পাসের পর পরই এখন  দেখা  যাচ্ছে দেশের কৃষকদের দুর্দশার কোনও খবরই রাখেনা কেন্দ্রের বিজেপি সরকার। খবর নেই কৃষকরা কি অবসতায় রয়েছে লকডাউন ও আনলক সময়ে খবর  নেই দেশের কৃষির অবস্থাই বা কোন অবস্থায়!


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only