সোমবার, ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০২০

ধাত্রী দেবতার দ্বারোদঘাটন



দেবশ্রী মজুমদার, লাভপুর, ১৪ সেপ্টেম্বর:  নব কলেবরে তারাশঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায়ের ধাত্রী দেবতা!  প্রায় সাড়ে তিরিশ লক্ষ টাকা ব্যয়ে তৈরি করা হয়েছে সাহিত্যিক তারা শঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাধের মাটির ভবন। হেরিটেজ কমিশনের বরাদ্দকৃত অর্থে বীরভূম জেলা পরিষদ এই ভবনের আমুল সংস্কার করেছে। করোনা আবহ শেষ হলে, এই ধাত্রীদেবতা ভিটে ঘিরে প্রভূত পর্যটন কেন্দ্র গড়ে ওঠার সম্ভাবনার কথা বলছে জেলা পরিষদ। 

বীরভূমের লাভপুরে জন্ম গ্রহণ করেন তারা শঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর হাঁসুলি বাঁকের  উপকথা আজও লোকায়ত অন্ত্যজ সমাজকে বাঁচিয়ে রেখেছে। যা আজও অন্ত্যজ মহিলাদের কোমরের হাঁসুলির মত নদীর বাঁকে বাঁকে জীবন্ত হয়ে ওঠে। ‌জানা গেছে, তারাশঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায়ের পরিবার ১৯৯৬ সালে দান করেন লাভপুর পঞ্চায়েত সমিতিকে। ২০১৪ সাল পর্যন্ত ধাত্রী দেবতা ভবন তালাবন্দী ছিল। ঘরের অবস্থা প্রায় ভগ্ন প্রায় হয়ে যায়। ২০১৫ সালে বীরভূম সংস্কৃতি বাহিনী তার রক্ষণাবেক্ষণের জন্য পঞ্চায়েত সমিতির কাছে আবেদন জানায়। দায়িত্ব পাওয়ার পর ২০১৬ সালে একটি সংগ্রহশালার কাজ শুরু হয়। বীরভূম সংস্কৃতি বাহিনীর কর্ণধার উজ্জ্বল মুখোপাধ্যায় জানান, তার প্রেক্ষিতে বীরভূম জেলা পরিষদ, পঞ্চায়েত সমিতি, তথ্য সংস্কৃতি দপ্তর বা জেলা প্রশাসন তৎপরতা দেখায়। পশ্চিম বঙ্গ সরকারের তরফে ইন্দ্রনীল সেন ও আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় আমাদের আহ্বানে আসেন এবং একটি অনুদান অর্থ মঞ্জুর করেন। সেই ধাত্রী দেবতা ভবনের দ্বারোদঘাটন করেন জেলা পরিষদের মেন্টর অভিজিৎ সিনহা। 

জানা গেছে, ১৯৬৫ সালে পারিবারিক বাটোয়ারা সূত্রে কাছারি বাড়ি পান তিনি। আর সেখানেই তাঁর সারস্বত সাধনা হয়। সাহিত্যিক নিজেই ভবনের নামকরণ ধাত্রী দেবতা। যা তাঁর একটি উপন্যাসের নাম। ২৪০০ বর্গফুটের এই স্মৃতি বিজড়িত ভবনটির অবস্থা শোচনীয় হয়ে ওঠে।  ২০১৮ সালে হেরিটেজ কমিশন ৩০ লক্ষ ৫৮ হাজার ৯৫৮ টাকা বরাদ্দ করে। পুরাতন মাটির বাড়ির আদলকে অটুট রেখে তৈরি হয় কঙ্ক্রিটের ভবন। ধাত্রী দেবতা ভবনের পাশাপাশি, ৫১ সতীপীঠের এক পীঠ ফুল্লরাতলা ও হাঁসুলি বাঁকের উন্নয়ন করা হবে।  এদিন সন্ধ্যায় আনলক ৪ নিয়ম বিধি মেনে খোলা আকাশের নিচে অনুষ্ঠিত হবে তারাশঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায়ের রসকলি। নাট্যব্যক্তিত্ব উজ্জ্বল বাবু বলেন, তারাশঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাড়িকেই মূলতঃ গল্পের বিভিন্ন চরিত্রের অনুষঙ্গে সাজিয়ে নেওয়া হবে। কোনটা হবে সুদর্শন পুলিন দাসের বাড়ি, আবার কোনটা হবে তার খেলার সাথী মঞ্জরীর বাড়ি। মূলতঃ বৈষ্ণব বাড়ির ছবি ফুটে উঠবে ধাত্রী দেবতার অঙ্গনে।  যেখানে গ্রাম্য গেরস্থালি একটি মঞ্চ, সেখানে তৈরি করা মঞ্চ না থাকায় স্বাভাবিক! তবে, থাকবে আলো, আবহ সঙ্গীত। সৌমেন মজুমদার, মৌমিতা মুখোপাধ্যায় ও কাজল মুখোপাধ্যায় লাইভে বৈষ্ণব পদাবলী গাইবেন। আর বীরভূম সংস্কৃতি বাহিনীর কলাকুশলীরা মনে করিয়ে দেবেন--কিভাবে পুলিন মাথায় চুড়ো বেঁধে তীক্ষ্ম নাকে রসকলি কেটে বলে, কিহে মঞ্জরী কি করো?

 আর তার বান্ধবী মঞ্জরী বলে ওঠে, -- তোমায় আঁকছি হে যতন করে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only