শুক্রবার, ৪ সেপ্টেম্বর, ২০২০

রাজ্যের মেট্রো চলাচল শুরু ১৩ সেপ্টেম্বর , যাত্রা করতে স্মার্টকার্ডের পাশে চাই ই-পাসও



পুবের কলম ওয়েব ডেস্কঃ  শুধু স্মার্ট কার্ড নয়। মেট্রোতে প্রবেশ করতে গেলে এবার লাগবে ই - পাস ও । শুক্রবার মেট্রো ভবনে রাজ্য সরকারের আধিকারিকদের সঙ্গে এক বৈঠকে এমনটাই সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে জানিয়েছেন কলকাতা মেট্রো মুখ্য জনসংযোগ আধিকারিক ইন্দ্রানী বন্দ্যোপাধ্যায় । এই বিষয়ে আরও বিস্তারিত আলোচনা করছে সংশ্লিষ্ট বিভাগীয় আধিকারিকরা বলেও জানান তিনি । এদিন ঠিক হয়, ১৩ সেপ্টম্বর থেকে চলবে মেট্রো।ওইদিন সর্বভারতীয় পরীক্ষা রয়েছে। তাই প্রথমদিন মেট্রো চালানো  হবে শুধু পড়ুয়া ও তাঁদের অভিভাবকদের জন্য।  তবে আগামী ১৪ সেপ্টেম্বর থেকে সাধারণের জন্য মেট্রো চলবে। 
বৃহস্পতিবার নবান্নে মেট্রো রেল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বৈঠক করে রাজ্য প্রশাসন। চতুর্থ দফার আনলকডাউনে মেট্রো রেল চলাচলের ক্ষেত্রে ছাড়পত্র দিয়েছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র দফতর। দিল্লিতে ইতিমধ্যেই মেট্রো সচল করার তোড়জোড় শুরু হয়েছে। একই পদ্ধতিতে হাঁটতে চাইছে কলকাতা। কিন্তু ভিড় সামাল দেওয়া আদৌ কি সম্ভব হবে? এই প্রশ্ন চিন্তার ভাঁজ ফেলেছে আধিকারিকদের কপালে। 
এদিন জানা গিয়েছে মেট্রোতে যাতায়াত করতে গেলে আগে থেকে সময় "বুক" করতে হতে পারে যাত্রীদের। সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে মেট্রো চলাচল করানোর জন্য এমন চিন্তা ভাবনা করছে মেট্রো রেল কর্তৃপক্ষ। সূত্রের খবর, শুধুমাত্র স্মার্ট কার্ড ব্যবহারের নির্দেশিকা জারি করলেই ভিড় নিয়ন্ত্রণ সম্ভব নয় এমনটাই দাবি করেছে মেট্রো রেল কর্তৃপক্ষ।
মেট্রো আধিকারিকেরা বৃহস্পতিবার রাজ্যকে জানান, স্বাভাবিক সময়ে প্রত্যেকদিন সাড়ে তিন লক্ষ মেট্রো যাত্রী স্মার্ট কার্ড ব্যবহার করে। সেক্ষেত্রে খুব বেশি হলে ৪৫ থেকে ৫০ হাজার যাত্রী যাতায়াত করতে পারবেন। ফলে বাকিদের কিভাবে ঠেকানো সম্ভব হবে, তা একটি বড় প্রশ্ন। স্টেশনগুলিতে ভিড় নিয়ন্ত্রণের জন্য পুলিশি সহযোগীতায় চেয়েছিল মেট্রো। কিন্তু রাজ্য স্পষ্ট জানায়, কোনো যাত্রী যদি মেট্রোতে যাতায়াত করতে চান সেক্ষেত্রে কোন ভাবেই তাকে আটকাতে পারবে না পুলিশ। এরপরই "ই বোর্ডিং পাস" মারফত পাতাল প্রবেশ করার বিষয়টি ভেবে দেখেন দুপক্ষই। এক্ষেত্রে যাত্রীকে অ্যাপ মারফত নির্দিষ্ট সময়ের জন্য বোর্ডিং পাস চাইতে হবে। অর্থা‍ৎ অনুমতি থাকলে বোর্ডিং পাস স্যানিং করে এবং স্মার্ট কার্ড দেখিয়ে মেট্রোরেলে চড়তে পারবেন যাত্রীরা। একটি নির্দিষ্ট মেট্রোতে যদি পর্যাপ্ত আসন শেষ হয়ে যায় তাহলে সেক্ষেত্রে পরের মেট্রোর জন্য যাত্রীকে বোর্ডিং পাস দেওয়া হবে।
এই দিনের বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়, স্মার্ট কার্ড থাকলেও ইপাস নিতে হবে সকল যাত্রীকে। পাশাপাশি ওই বৈঠকে আরো জানানো হয়, ই পাসের বৈধতা থাকবে ওই পাস বুক করার সময় থেকে ঠিক এক ঘণ্টা পর পর্যন্ত। একই সঙ্গে পাস অনলাইনে বুক করার সময়ই জানিয়ে দিতে হবে যাত্রীর গন্তব্য এবং কোন স্টেশন থেকে তিনি ট্রেনের সওয়ার হতে চান সেই সব বিস্তারিত তথ্য। আগের বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছিল নতুন করে কাউকে আর স্মার্ট কার্ড দেওয়া হবে না। তবে এদিনের বৈঠকে ফের জানানো হয় নতুন করে কাউকে স্মার্ট কার্ড নিতে হলেও সে ক্ষেত্রে আগে বুক করতে হবে ই-পাস। ই-পাস দেখালে তবেই মিলবে নতুন স্মার্ট কার্ড। এছারাও থাকবে কিউ আর কোড। মেট্রোতে যাওয়ার ৪ বা ৬ ঘণ্টা আগে এই কিউ আর কোড দিয়ে বুক করা যাবে মেট্রোর আসন। কিউ আর কোড স্ক্যানের মাধ্যমে মেট্রো স্টেশনে ঢুকতে হবে। মেট্রোর অনলাইন অ্যাপে বা রাজ্য সরকারের পরিবহন অ্যাপ থেকে টিকিট কাটা যাবে। এদিকে স্টেশনে প্রবেশ ও প্রস্থানের পথেও কড়াকড়ি করা হচ্ছে। সেক্ষেত্রে একটিমাত্র প্রবেশপথই থাকবে। সেখানে স্যানিটাইজার টানেল বসানো হবে। ওই টানেলের মধ্যে দিয়ে স্টেশনে ঢুকতে পারবেন যাত্রীরা। থাকবে থার্মাল স্ক্যানারও।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only