বুধবার, ৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০

ঠাঁই হল না তথাগত রায়, বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিজেপির রাজ্য কমিটিতে সংখ্যালঘু মুখ মাত্র এক

 

 

পুবের কলম প্রতিবেদকঃ একুশের বিধানসভা ভোটে সংখ্যালঘুদের ভোটের জন্য যে পদ্ম শিবির ঝাঁপাবে না, মঙ্গলবার রাজ্য কমিটির প্রকাশিত তালিকাতেই তা স্পষ্ট। দুই শতাধিক সদস্যের পেল্লাই সাইজের রাজ্য কমিটিতে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের একমাত্র মুখ হিসেবে ঠাঁই পেয়েছেন দলের সংখ্যালঘু মোর্চার সভাপতি আলি হোসেন। কার্যত ধর্মীয় মেরুকরণের পথে হেঁটেই যে বাংলার মসনদ দখলকে পাখির চোখ করেছেন পদ্ম শিবিরের শীর্ষ নেতারা এদিনের নয়া কমিটির তালিকা প্রকাশের পরে তা স্পষ্ট। বহু অচেনাঅজানা হিন্দু মুখকে ঠাঁই দেওয়া হলেও কেন সংখ্যালঘুদের ঠাঁই দেওয়া হল না তা নিয়ে কোনও জবাব দিতে রাজি হননি বঙ্গ বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ। 
নয়া কমিটিতে অবশ্য দিলীপের এবং সঙ্ঘ পরিবারের পছন্দসই নেতারাই জাঁকিয়ে রয়েছেন। দলের অন্যতম নেতা মুকুল রায় কিংবা রাহুল সিনহার ঘনিষ্ঠ হিসেবে হাতেগোনা কয়েকজনের ঠাঁই হয়েছে। ঘোষিত নয়া কমিটিতে কলকাতার প্রাক্তন মহানাগরিক শোভন চট্টোপাধ্যায় জায়গা করে নিতে পারলেও তাঁর প্রিয় বান্ধবী বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ের ঠাঁই হয়নি। বঙ্গ রাজনীতিতে সক্রিয় হতে মেঘালয়ের রাজ্যপালের দায়িত্ব ছেড়ে উড়ে এসেছিলেন তথাগত রায়। তবে তিনি জায়গা পাননি। 
বিজেপি সূত্রে জানা গিয়েছে যে একুশের বিধানসভা ভোটের আগে যাতে অভ্যন্তরীণ গোষ্ঠীকোন্দল মাথাচাড়া দিয়ে না ওঠে তার জন্য পেল্লাই সাইজের রাজ্য কমিটি গঠন করে সব গোষ্ঠীর নেতাদের ঠাঁই দেওয়া হয়েছে। লোকসভা ভোটে রাজ্যে অপ্রত্যাশিত ফলের পরেও বিশিষ্টজনদের দলে টানার চেষ্টা চালিয়ে ব্যর্থ হয়েছেন বঙ্গের বিজেপি নেতারা। তাই দুধের স্বাদ ঘোলে মেটানোর মতো হাতের কাছে রাজনীতির বাইরে যাঁকে পেয়েছেন তাঁকে বুদ্ধিজীবী হিসেবে ঘোষণা করে দলে টেনেছেন। 
১১০ সদস্য বিশিষ্ট রাজ্য কমিটিতে স্থায়ী আমন্ত্রিত সদস্য হিসেবে রাখা হয়েছে কলকাতার প্রাক্তন মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়, মুকুল রায়ের পুত্র শুভ্রাংশু রায়, শঙ্কুদেব পণ্ডা, ব্যারাকপুরের সাংসদ অর্জুন সিংয়ের ভগ্নিপতি সুনীল সিং, দুধকুমার মণ্ডল, জয় বন্দ্যোপাধ্যায়রা। প্রাক্তন বিধায়ক শমীক ভট্টাচার্য এবং ছিটমহল আন্দোলনের অন্যতম দীপ্তিমান সেনগুপ্তকে রাখা হয়েছে। সিপিএম থেকে ডিগবাজি খেয়ে সদ্য দলে আসা জ্যোতির্ময়ী শিকদার অভিনেত্রী দেবিকা মুখোপাধ্যায় সহ অচেনা মুখকেও রাখা হয়েছে। সেই সঙ্গে যুব ও মহিলা সহ দলের সমস্ত শাখা সংগঠনের সভাপতি জেলা সভাপতি ও প্রাক্তন জেলা সভাপতিদের রাজ্য কমিটিতে স্থায়ী আমন্ত্রিত সদস্য হিসেবে পুনর্বাসন দেওয়া হয়েছে। 
পাশাপাশি নতুন রাজ্য কমিটিতে ২১ জনকে বিশেষ আমন্ত্রিত সদস্য হিসেবে ঠাঁই দেওয়া হয়েছে। সেই তালিকায় নাম রয়েছে রাজ্যসভা সাংসদ স্বপন দাশগুপ্ত, রুপা গঙ্গোপাধ্যায়,রন্তিদেব সেনগুপ্ত, অভিনেতা সুমন বন্দ্যোপাধ্যায়,প্রাক্তন ফুটবলার বাবু মানি ও ষষ্ঠী দুলে সহ একাধিক সাংসদের। পদাধিকার বলে রাজ্য কমিটিতে বিশেষ আমন্ত্রিত হিসেবে রয়েছেন রাহুল সিনহা, মুকুল রায় ও প্রাক্তন রাজ্য সভাপতি অসীম ঘোষ। 
নয়া রাজ্য কমিটিতে যাঁরা ঠাঁই পেয়েছেন তাঁদের নিয়ে আগামিকাল বৃহস্পতিবার বিশেষ বৈঠকে বসছেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা। ওই বৈঠকেই গোষ্ঠীবাজি ও নিজেদের মধ্যে লড়াই ভুলে একুশের বিধানসভা ভোটে ‘মিশন বাংলা’ সফল করতে কোমর কষে ঝাঁপিয়ে পড়ার জন্য তিনি বিশেষ নির্দেশ দেবেন বলে জানা গিয়েছে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only