শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০

পশ্চিমবঙ্গ সহ একাধিক রাজ্যে ৩০ সেপ্টেম্বরের আগে খুলছে না শিক্ষা প্রতিষ্ঠান



পুবের কলম প্রতিবেদকঃ দেশের বিভিন্ন রাজ্যের সঙ্গে পশ্চিমবঙ্গেও সেপ্টেম্বরে স্কুল খুলছে না। এ কথা জানিয়ে দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। শিক্ষামন্ত্রী জানিয়েছেন পড়ুয়াদের বিপদের মুখে ঠেলে দিয়ে এ রাজ্য স্কুল খোলার পক্ষপাতি নয়। শিক্ষামন্ত্রীর কথায় কারোর প্রাণের বিনিময়ে শিক্ষা হতে পারে না। স্কুল কবে খুলবে সেই বিষয়ে মুখ্যমন্ত্রীর নেতৃত্বাধীন রাজ্য মন্ত্রীসভা চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে বলে জানিয়েছেন তিনি। 

 দেশের কোভিড আক্রান্ত রাজ্যগুলির মধ্যে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্থ রাজ্য হওয়ায় মহারাষ্ট্র সরকারও ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত স্কুল বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তবে নির্দেশিকায় বলা হয়েছে স্ব-ইচ্ছায় শিক্ষার্থীদের বিদ্যালয়ে যাওয়ার অনুমতি দিতে পারে স্কুল কর্তৃপক্ষ। 

 উত্তর প্রদেশ সরকার নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের ক্ষেত্রে স্কুল পুনরায় চালু করার বিষয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের নির্দেশনামা মেনে চলার সম্ভাবনা রয়েছে। খুব দ্রুত এই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার কথা জানা গিয়েছে। 

 ঝাড়খণ্ড সরকার জানিয়েছে নবম এবং তার বেশি শিক্ষার্থীদের জন্য স্কুলগুলি আবার চালু করার পরিকল্পনা করেছে । সেখানকার শিক্ষামন্ত্রী বৈদ্যনাথ মাহাতো এর আগে রাজ্যের শিক্ষার্থীদের ডিজিটাল পরীক্ষার্থীদের নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। তিনি বলেছেন ২৭ শতাংশ শিক্ষার্থী অনলাইনে ক্লাসে প্রবেশ করতে পেরেছেন। পাশাপাশি গ্রামাঞ্চলে এই সংখ্যা আরও কম। তাই রাজ্য সরকার ২১ সেপ্টেম্বর থেকে দশম ও দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের জন্য স্কুলগুলি আবার চালু করার পরিকল্পনা নিয়েছে।  দিল্লীতে অরবিন্দ কেজরিওয়াল ২০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। তবে স্ব-ইচ্ছুক পড়ুয়াদের স্কুলে যেতে অনুমতি দেওয়া হয়েছে। দিল্লির সরকার নিম্ন শ্রেণির শিক্ষার্থীদের জন্য অনলাইন ক্লাস চালিয়ে যাবে। হরিয়ানার শিক্ষামন্ত্রী কানওয়ার পাল গুর্জার বলেছেন স্কুল খোলার জন্য হরিয়ানা রাজ্য প্রস্তুত। রাজ্য সরকার কেন্দ্রীয় সরকারের অনুমতি ও নির্দেশিকার জন্য অপেক্ষা করছে।  উত্তরাখন্ডে ২১ সেপ্টেম্বর থেকে কোনও স্কুলখোলা হবে না বলে জানিয়েছেন উত্তরাখণ্ডের শিক্ষামন্ত্রী অরবিন্দ পান্ডে। অন্ধ্রপ্রদেশ সরকার অনুমতি দিয়েছে যে স্কুলে ৫০ শতাংশ শিক্ষক ও শিক্ষাকর্মী উপস্থিত থাকতে হবে। পড়ুয়ারা স্কুলে আসতে পারে। তবে অভিভাবকদের কাছ থেকে লিখিত অনুমতি নিয়ে আসতে হবে। আসামেও ৩০ সেপ্টেম্বরের আগে স্কুল কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়,কোচিং সেন্টার খুলছে না। তবে অনলাইন অথবা ডিস্টান্স লার্নিং কোর্সগুলি চালিয়ে যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। 


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only