শুক্রবার, ৯ অক্টোবর, ২০২০

ভিমা-কোরেগাঁও মামলায় এনআইএ-র হাতে গ্রেফতার ৮৩ বছরের সমাজকর্মী



রাঁচি, ৯ অক্টোবর: ভিমা-কোরেগাঁও মামলায় গ্রেফতার ফের এক সমাজকর্মী। বৃহস্পতিবার রাতে রাঁচি থেকে তাঁকে গ্রেফতার করে জাতীয় তদন্তকারী এজেন্সি (এনআইএ)।আদিবাসীদের সামাজিক অধিকারের দাবিতে বহুদিন থেকেই লড়াই করে আসছেন বছর ৮৩-র ফাদার স্ট্যান স্বামী। মহারাষ্ট্রের কোরেগাঁও-ভিমা গ্রামে হিংসাত্মক ঘটনার পেছনে ফাদার স্ট্যানের যথেষ্ট ভূমিকা আছে। রাঁচির বাড়িতে তাঁকে প্রায় ২০ মিনিট ধরে জিজ্ঞাসাবাদ করেন এনআইএ আধিকারিকরা। ফাদার স্ট্যানের গ্রেফতারির খবর দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে থাকে। এই নিয়ে ভিমা-কোরেগাঁও হিংসায় ১৭জনকে গ্রেফতার করা হল।


ঐতিহাসিক রামচন্দ্র গুহ স্বামীর এই গ্রেফতারি নিয়ে কেন্দ্রকে নিশানা করেছেন। ট্যুইটারে নিজের ক্ষোভ উগরে লেখেন, 'স্ট্যান স্বামী দীর্ঘদিন আদিবাসীদের অধিকারের জন্য লড়াই করছেন। তাই মোদি সরকার নিপীড়ন করে তাঁর মুখ বন্ধ করার চেষ্টা চালাচ্ছে। কারণ, এই সরকারের আমলে আদিবাসীদের জীবন ও জীবিকার চেয়ে খনি সংস্থাগুলির মুনাফা বেশি গুরুত্বপূর্ণ।'


আইনজীবী প্রশান্ত ভূষণও স্বামীর গ্রেফতারির জন্য এ দিন মোদি সরকারকে দুষে টুইটারে লিখেছেন, 'ইউএপিএ-র নীচে কাজ করা এনআইএ সকলকেই গ্রেফতার করতে পারে। বিজেপি সরকারের আমলে এনআইএ-র হিংসা সমস্ত সীমা ছাড়িয়ে গিয়েছে।'


৬ অক্টোবর একটি ভিডিয়ো বার্তায় ফাদার স্ট্যান স্বামী বলেছিলেন, 'আমাকে মুম্বই যাওয়ার জন্য চাপ সৃষ্টি করা হচ্ছিল। এনআইএ আমাকে ১৫ ঘন্টা ধরে জিজ্ঞাসাবাদ করেছিল। পরে আমাকে মুম্বইয়ের অফিসেও ডাকা হচ্ছে। আমি সেখানে যেতে রাজি নই। ৮৩ বছর বয়ে এসে শরীরে বাসা বেধেছে অনেক রোগ। স্বাস্থ্যের কারণেই আমি যেতে চাইনি। করোনাভাইরাস নিয়ে মুখ খুলতে চাইনি, তবে আমি ভীম-কোরেগাঁও-তে যাইনি।' তিনি এও বলেন, 'যদি এনআইএ আমাকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে চায়, তাহলে ভিডিয়ো কনফারেন্সের মাধ্যমে যোগাযোগ করতে পারে।'


২০১৮ সালের জানুয়ারিতে ভিমা-কোরেগাঁও এলাকায় এক দলিত সমাবেশকে কেন্দ্র করে ব্যাপক গোলমাল হয়েছিল। দক্ষিণপন্থী একটি গোষ্ঠী এবং দলিতদের সংঘর্ষে উত্তাল হয়ে উঠেছিল মহারাষ্ট্রের বিস্তীর্ণ অঞ্চল। এই ঘটনার পরে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ন’জন মানবাধিকার কর্মীকে গ্রেফতার করে মহারাষ্ট্র পুলিশ। তাঁদের বিরুদ্ধে এলগার পরিষদ মামলা রুজু হয়। অভিযোগ, এলগার পরিষদের সঙ্গে সরাসরি নকশালপন্থী তথা নিষিদ্ধ সংগঠন সিপিআই মাওবাদীদের যোগ রয়েছে।


এর আগে একপ্রস্থ চার্জশিট জমা দিয়েছে মহারাষ্ট্র পুলিশ। তাতে পুলিশ অভিযোগ করে, ওই কর্মীরা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে হত্যার ষড়যন্ত্র করেছিলেন। যদিও এ বিষয়ে কোনও সাক্ষ্যপ্রমাণ এখনও হাজির করতে পারেনি পুলিশ। ২০১৮ সালের অগস্ট মাসে পুণের পুলিশ প্রথম গ্রেফতার করেছিল কবি তথা সমাজকর্মী ভারভারা রাওকে। তবে আদালতের নির্দেশের পরে সে বার তাঁকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছিল প্রমাণের অভাবে। 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only