মঙ্গলবার, ৬ অক্টোবর, ২০২০

জঙ্গলমহলের জন্য একগুচ্ছ উপহার, মাওবাদীতে নিখোঁজ থেকে হাতিতে মৃত্যু-তে পাবে আর্থিক ক্ষতিপুরন ও চাকরি



সেখ জামাল,খড়্গপুর‌: মঙ্গলবারের পর্যালোচনা বৈঠকে বিশেষ উপহার পেল জঙ্গলমহলের বাসিন্দারা৷ দীর্ঘ পুরনো কয়েকটি সমস্যার সমাধান করলেন মুখ্যমন্ত্রী, যা হল হাতিতে মৃত্যু ও মাওবাদী পর্বে নিখোঁজরা এবার থেকে পাবেন আর্থিক ক্ষতিপুরনের সাথে স্পেশাল হোমগার্ডের চাকরীও৷ একসঙ্গে মাওবাদী উপদ্রুত এলাকাতে এনভিএফ এ নিযুক্তরা প্রমোশন পাচ্ছেন কনস্টেবল হিসেবে৷ এরপরও রয়েছে ২১ টা প্রকল্পের সুচনা ও ২৫ টি প্রকল্পের উদ্বোধন৷


মঙ্গলবার বেলা আড়াইটা নাগাদ খড়্গপুর শিল্পতালুকে আয়োজিত প্রশাসনিক সভা মঞ্চে হাজির হয়েছিল মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় ৷ বৈঠকে হাজির ছিলেন সচীবরা সহ নবান্নের বেশ কয়েকজন শীর্ষকর্তা ৷ অন্যদিকে জেলা থেকে পুলিশ সুপার দীনেশ কুমার ছাড়া জেলা শাসক ডা রশ্মী কমল সহ বিভিন্ন বিভাগের আধিকারিক ৷ জেলা পরিষদের সভাধিপতি ও সহ সভাধিপতি ছাড়াও ছিলেন সাংসদ, বিধায়করা ও কয়েকজন কর্মাধ্যক্ষ ৷ সকলেরই করোনা পরীক্ষা করিয়ে নেগেটিভ রিপোর্ট সহ সভাস্থলে প্রবেশ করতে হয়েছে ৷ এজন্য সভায় প্রবেশ মুখে এন্টিজেন পরীক্ষা কাউন্টার রাখা হয়ে ছিল ৷ 



এদিন সভার শুরুতে পুরো২১ টি প্রলকল্পের সুচনা,ও ২৫ টি প্রকল্পের উদ্বোধন করে পুরোহিত ভাতা তুলে দেয় দুজন পুরোহিতের হাতে৷  এদিন মুখ্যমন্ত্রী জঙ্গলমহলের জন্য কয়েকটি বিশেষ সুবিধা উপহার দিয়েছেন৷ তারমধ্যে অন্যতম হল এবার থেকে হাতির হামলাতে কেউ মারা গেলে তাঁর পরিবারকে আড়াই লক্ষ টাকা ও স্পেশাল হোমগার্ডে চাকরি দেওয়া হবে৷ যার প্রতিকী হিসেবে এদিন মুখ্যমন্ত্রী হাতিতে  এক মৃতের পরিবারের সদস্যের হাতে নিয়োগপত্র তুলে দিয়েছেন৷ সেই সাথে জেলার জঙ্গলমহলে মাওবাদী পর্বে নিখোঁজ হয়ে থাকা লোকজনের পরিবারকেও ৪ লক্ষ টাকা ও একজনকে স্পেশাল হোমগার্ডে চাকরীর নিয়ম করেন৷ যার প্রতিকী হিসেবে একজনের হাতে নিয়োগপত্র তুলে দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ 



এছাড়াও করোনা যোদ্ধা হিসেবে মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসক এর করোনাতে মৃত্যু হওয়ায় তাঁর স্ত্রীকে ১০ লক্ষ টাকা ক্ষতিপুরন ও সরকারি চাকরীতে নিয়োগপত্র দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ একই সঙ্গে মাওবাদী উপদ্রুত এলাকা থেকে এনভিএফ হিসেবে নিযুক্ত দের পদোন্নতি করে জুনিয়ার কনস্টেবল পদে নিযুক্তির নিয়ম করে দেন৷ যার একজনের হাতে সেই পদোন্নতি পত্র তুলে দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ রাজ্যের মাওবাদী অধ্যুষিত ৩৯ টি থানা এলাকাতে জঙ্গলমহল কাপ শুরু করার কথাও এদিন জানানো হয়েছে ৷  সাঁতালি শিক্ষন সঠিক ভাবে পরিচালনা করার জন্য সম্মান জানানো হয়েছে সবং কলেজের অধ্যক্ষকে ৷ 



জেলার পর্যটনে এবার গুরুত্ব বাড়ছে ক্ষুদিরাম বসুর জন্মভিটে৷ ইতিপুর্বে বিদ্যাসাগরের জন্মস্থান বীরসিংহে উন্নয়ন পর্যদ করে উন্নয়নের কাজ শুরু করা হয়েছে৷ এবার ক্ষুদিরাম বসুর জন্মস্থান কেশপুরের মহুবনিকেও পর্যটনস্থান হিসেবে গড়ে তোলার জন্য প্রক্রিয়া শুরুর নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ ঐতিহাসিক কর্ণগড় মন্দিরকে ঘিরে পর্যটেন কেন্দ্র তৈরী করতে ১ কোটি টাকা বরাদ্দের কথা ঘোষনা হয় এদিন৷  জেলাতে ১৫৭ টি বাংলা সহায়তা কেন্দ্র তৈরীর নির্দেশ দেন সভায় ৷  এদিন এই সভা থেকে রাজ্যের প্রায় দশ কোটি মানুষকে জুন মাস পর্যন্ত বিনামূল্যে রেশন দেওয়ার কথা ঘোষনা করেছেন তিনি৷ 



এদিন মুখ্যমন্ত্রী বলেন, করোনা উপদ্রুত পরিস্থিতি মোকাবিলা পুজোর সময়ও কোনোভাবে খামতি যেনো না হয়৷ প্রতিদিনই মুখ্যস্বাস্থ্য আধিকারিক থেকে জেলা শাসক পুলিশ সুপার নিজেদের মধ্যে বৈঠক করে পরিস্থিতি নজরে রাখবেন৷ করোনা আক্রান্তের সিটি ভ্যালুর দিকে গুরুত্ব দিতে হবে৷ করোনা পরিস্থিতি মাথায় রেখে পুজো কমিটি গুলিকে পুজো করতে হবে৷


সেই সাথে অনুমতি পাওয়া পুজো কমিটি গুলিকে ৫০ হাজার টাকা করে বিলি করবে,পুলিশের এই দায়ীত্ব, পঞ্চায়েত বা দলের কাউকে দেওয়া হচ্ছে না এটা করার জন্য, তাই কারও সুপারিশ শোনা হবেনা ৷ পুলিশ এটা দেখবে৷  খাস জঙ্গলে আরও পাঁচশো কোটি টাকা বিনিয়োগ করছেন শিল্পপতিরা, এর দ্বারা আরও পাঁচ হাজার ছেলে মেয়ের কর্মসংস্থান হবে৷  রাজ্যের রাস্তার সংস্কার করার অনেক উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে ৷ আমাদের আগে মাত্র ৯২ হাজার কিমি রাস্তা তৈরী করেছিল পুরনো সরকার , আমরা ৮ বছরেই করেছি সাড়ে তিন লক্ষ কিমি রাস্তা৷ সংস্কারের কাজে কেউ কোনো খামতি শুনবো না, কোনো কন্ডাক্টর কাজ করছেনা এটা শোনা হবেনা৷ 


এদিন স্বাস্থ্যস্বাথী নিয়ে বলেন, রাজ্যে স্বাস্থ্যসাথী করা হচ্ছে, যাতে সরকার একশো শতাংশই দেবে৷ কেন্দ্র আয়ুষ্মান প্রকল্প করলে ওরা করবে৷ এতে আমরা দিতে পারবোনা৷ আমরা আমাদের স্বাস্থ্য সাথীতে একশো শতাংশই দিচ্ছি৷ করোনাপর্বে কাজ হারিয়ে ফেরা শ্রমীকদের একশো দিনের কাজ দেওয়া হয়েছে অনেক৷ তাদের মধ্যে কোনো স্কিল থাকলে সেবিষয়ে কর্মসংস্থানের দিকেও দেখা হচ্ছে৷ লোধা সবর দের জন্য বাংলা আবাস যোজনাতে বাড়ির ব্যাবস্থা করা হচ্ছে৷ পটুয়াদের পটের বাজার জাত করনের স্বার্থে একটি বড়ো প্রদর্শনীর ব্যাবস্থা করা হবে৷ 


এদিন বেলা আড়াইটা থেকে সভা শুরু করে সাড়ে চারটের দিকে শেষ করেন ৷ এরপর সড়ক পথে ঝাড়গ্রামের উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেন তিনি ৷ রাতে ঝাড়গ্রামে থেকে বুধবার ঝাড়গ্রাম শহরে একই রকমের প্রশাসনিক সভা করবেন ৷ 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only