সোমবার, ১২ অক্টোবর, ২০২০

রাজেশ শহীদ হওয়ার পরই গ্রামের রাস্তা হল পাকা



কৌশিক সালুই, বীরভূম‌: অবশেষে পাকা রাস্তা হলো বীর শহীদ রাজেশ ওরাং গ্রামে। লাদাখের গালওয়ান ভ্যালিতে চীন সীমান্তে মাতৃভূমি রক্ষা করতে গিয়ে শহীদ হন বীরভূমের মহম্মদ বাজারের বেলগড়িয়া গ্রামের যুবক রাজেশ। প্রশাসন ঘোষণা করেছিল শহীদ রাজেশের গ্রামের রাস্তাঘাট, পানীয় জল, শিক্ষা ব্যবস্থাসহ যাবতীয় পরিকাঠামো উন্নতি করা হবে। প্রশাসনের ভূমিকায় রীতিমতো সন্তুষ্ট বীর শহীদের পরিবার থেকে এলাকাবাসীরা।


উল্লেখ্য, চীনের কমিউনিস্ট সরকারের সেনাবাহিনী পিপুল লিবারেশন আর্মির আগ্রাসন থেকে ভারত ভূমিকে রক্ষা করতে গিয়ে কুড়ি জন সেনা জওয়ান শহীদ হন লাদাখ সীমান্তে। তাদের মধ্যে ছিলেন বীরভূমের মহম্মদ বাজারের বেলগড়িয়া গ্রামের যুবক রাজেশ ওরাং। বীর শহীদের জন্মভিটে রাতারাতি বিখ্যাত হয়ে ওঠে। 


আদিবাসী অধ্যুষিত গ্রামটি রানীগঞ্জ মোরগ্রাম ১৪ নম্বর জাতীয় সড়কের সংলগ্ন হলেও সেভাবে পরিকাঠামো উন্নয়ন হয়নি। জাতীয় সড়ক থেকে তাদের গ্রামে যাওয়ার প্রায় দুই কিলোমিটার রাস্তাটি কাঁচা এবং বেহাল ছিল। যা ছিল মানুষের চলাচলের অযোগ্য। রাজেশ শহীদ হওয়ার পর তার মৃতদেহ গ্রামে নিয়ে যাওয়ার জন্য রাস্তাটিকে সাময়িকভাবে পাথর ও ডাস্ট দিয়ে চলাচলের যোগ্য করে তোলে প্রশাসন। 


ইতিমধ্যেই গ্রামে গিয়ে এলাকার উন্নয়নের কথা ঘোষণা করা হয়। প্রাথমিকভাবে প্রথমেই রাস্তাটিকে পাকা করে দেওয়ার কথা ঘোষণা করা হয়। জেলা পরিষদের নিজস্ব তহবিল থেকে প্রায় দুই কিলোমিটার রাস্তা কংক্রিটের করা হচ্ছে। প্রায় ৭৫ লক্ষ টাকা এই প্রকল্পে ব্যয় করা হচ্ছে। এছাড়াও পানীয় জলের সমস্যা সমাধানের জন্য সাবমারসিবল পাম্প বসানো হবে দ্রুত বলে মহম্মদ বাজার ব্লক প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে।


ওই গ্রামে একটি শিশু শিক্ষা কেন্দ্র ছিল। পড়ুয়া কম থাকার জন্য বছর কয়েক আগে সেটি বন্ধ করে দেওয়া হয়। বীরভূম জেলা প্রাথমিক শিক্ষা সংসদ এর চেয়ারম্যান ডঃ প্রলয় নায়েক বলেন, "সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে আগামী ২০২১ শিক্ষাবর্ষে নতুন ভাবে চালু হবে। ইতিমধ্যে তার প্রয়োজনীয় কাজকর্ম করা হচ্ছে।’’ মহম্মদ বাজার সমষ্টি উন্নয়ন আধিকারিক প্রিয়াঙ্কা সিং বলেন, "জেলা পরিষদের নিজস্ব তহবিল থেকে জাতীয় সড়ক থেকে শহীদ পরিবারের বাড়ি পর্যন্ত রাস্তাটি কংক্রিটের করা হচ্ছে।’’

  

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only