মঙ্গলবার, ১৩ অক্টোবর, ২০২০

ধর্ষণের পর এবার অ্যাসিড হামলার শিকার ৩ দলিত বোন



লখনউ, ১৩ অক্টোবর: দলিত তরুণীকে ধর্ষণের ঘটনার পর ফের যোগী রাজ্যে দলিত নিগ্রহের ঘটনা। এবার অ্যাসিড হামলার শিকার ৩ বোন। রাতে গভীর নিদ্রায় যখন সবাই মগ্ন, তখন তাদের ওপর এই হামলা চালায় দুষ্কূতীরা। ঘটনাটি ঘটেছে রাজধানী শহর লখনউ থেকে মাত্র ১১৭ কিমি দূরে গোন্ডা জেলায়। জঘন্য ও লজ্জাজনক এই ঘটনায় যোগী সরকারকে কাঠগড়ায় তুলে ট্যুইট করেছেন কংগ্রেস নেত্রী প্রিয়াঙ্কা গান্ধি বঢরা।


এখনও উত্তরপ্রদেশের হাথরসের ঘটনা স্মূতিতে দগদগে। এখনও সুবিচার পায়নি পরিবার। তদন্তভার গ্রহণ করে মঙ্গলবার ঘটনাস্থল অর্থাৎ সেই অভিশপ্ত বাজরার ক্ষেতে যান সিবিআই আধিকারিকরা। কবে সুবিচার পাবে পরিবার, সেদিকে তাকিয়ে যখন গোটা দেশ, তখন ফের অমানবিক ঘটনা যোগী রাজ্যে।এবারও টার্গেট সেই দলিত। তিন বোনের ওপর রাত ২টো নাগাদ অ্যাসিড হামলা। তাদের বয়স ১৭, ১২ ও ৮ বছর। 


ঠিক কী হয়েছিল ঘটনাটি? পুলিশ সূত্রে খবর, যে সময় এই হামলা হয় তখন তারা ঘুমোচ্ছিলেন। হামলাকারী কোনও ভাবে ছাদ টপকে ঘরের ভেতর আসে। তারপর ৩ বোনকে উদ্দেশ্য করে অ্যাসিড ছুড়ে সেখান থেকে চম্পট দেয়। অসহ্য যন্ত্রণায় যখন ৩জন কাঁদছে, তখন সেই কান্না শুনে পাশের ঘর থেকে ছুটে আসে তাদের বাবা। এসে ওই দূশ্য দেখে ভিড়মি খেয়ে পড়ার জোগাড়। দ্রুত আক্রান্তদেরকে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। হাসপাতাল সূত্রে খবর, বড়ো বোনের ৩০ শতাংশ পুড়ে গেছে। মেঝো বোনের ২০ শতাংশ আর সবচেয়ে ছোটো বোনের ৫ থেকে ৭ শতাংশ পুড়ে গেছে অ্যাসিডে।


নির্যাতিতাদের বাবা জানিয়েছেন, 'বড় মেয়ের বিয়ে ঠিক হয়ে গিয়েছিল। অথচ ওর শরীরই বেশি পুড়ে গেছে। কাছেই বিয়ের দিন। এই অবস্থায় কীভাবে তার বিয়ে হবে জানা নেই।' 

 

অন্যদিকে এই ঘটনায় তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। অ্যাসিড হামলার শিকার ওই ৩ বোনের পরিবার ও পড়শিদের সঙ্গে কথাবার্তা বলেছে তদন্তকারীরা। ঘটনাস্থলে যায় ফরেন্সিক টিম। ওই এলাকায় নিয়ে যাওয়া হয় ডগ স্কোয়াডকেও। পুলিশ অফিসার শৈলেন্দ্র কুমার পান্ডে সংবাদমাধ্যমকে জানান, 'আক্রান্তের পরিবার কোনও সন্দেহভাজনের নাম উল্লেখ করেনি। অজ্ঞাত পরিচয় ব্যক্তিদের নামে মামলা দায়ের করে তদন্ত শুরু হয়েছে। তবে আমাদের মনে হচ্ছে, এই ঘটনার পেছনে কোনও পরিচিত জনের হাত রয়েছে।' পাশাপাশি এই পরিবারের কারও সঙ্গে কোনও শত্রুতা রয়েছে কিনা তাও জানার চেষ্টা করছেন তদন্তকারী আধিকারিকরা।


আপাতত হামলাকারীকে খোঁজার চেষ্টা চালাচ্ছে পুলিশ। তিন আক্রান্তের মধ্যে যেহেতু বড় বোনের বয়স সামান্য বেশি তাই সে আততায়ীকে শনাক্তকরণে সাহায্য করতে পারবে বলে অনুমান করছেন তদন্তকারীরা। তিন বোনেরই বয়ান রেকর্ড করেছে পুলিশ।


এদিকে এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করেছেন প্রিয়াঙ্কা গান্ধি বঢ়রা। যোগী সরকারকে কাঠগড়ায় তুলে ট্যুইটারে তিনি লেখেন, উত্তরপ্রদেশ সরকার রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে অপরাধীদের আড়াল করার চেষ্টা করছে। এরফলে রাজ্যে মহিলাদের ওপর অপরাধপ্রবণতা ক্রমশ বাড়ছে। 


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only