শুক্রবার, ৯ অক্টোবর, ২০২০

আয়াস পঞ্চায়েতের কাজে ক্ষুব্ধ অনুব্রত



দেবশ্রী মজুমদার, রামপুরহাট: আয়াস পঞ্চায়েত নিয়ে ক্ষোভের আঁচ রামপুরহাট কিষাণ মাণ্ডিতে রামপুরহাট ১ ব্লকের বুথ কর্মী সম্মেলনে। মঞ্চে বসে আছেন মন্ত্রী আশিস বন্দ্যোপাধ্যায়, ব্লক সভাপতি আনারুল হোসেন, জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল, সহ সভাপতি অভিজিৎ সিনহা, বোলপুর সাংসদ অসিত মাল, জেলা সাধারণ সম্পাদক ত্রিদিব ভট্টাচার্য প্রমুখ। আর মঞ্চের সামনে থেকে যেন ছুটে আসছে অনুন্নয়ন নিয়ে অভিযোগের পেল্ট রাইফেল থেকে ক্ষোভের গুলি।


আয়াস অঞ্চলের এক বুথ সভাপতি লক্ষীবাটি গ্রামে রাস্তা ও পানীয় জল নিয়ে একরাশ ক্ষোভ উগড়ে দেন। প্রথমে অনুব্রত তাঁকে লিখিত দিতে বলেন। কিন্তু তারপর ওই বুথে তৃণমূলের কম ভোট নিয়ে প্রশ্ন করতেই তিনি বলেন ভোট চাইতে গেলে মানুষ রাস্তা ও পানীয় জল নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন। মাত্র ২০ শতাংশ রাস্তার কাজ হয়েছে। বাকি হয়নি। স্বভাবতই ক্ষুব্ধ জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল বুথ সভাপতির কাছে জানতে চান, প্রধান কে? তাঁকে কি জানানো হয়েছিল? 


আয়াস অঞ্চলের প্রধান রেজাউল সেখ স্বীকার করে নেন যে, ১২ বছর আগে লক্ষ্মী বাটি সংসদে রাস্তার কাজ হয়েছিল। একশন প্ল্যানে নাম আছে। পঞ্চায়েতের ২০ টি সংসদের মধ্যে রাস্তা ভাগ করা হয়। প্রশ্নে অনুব্রত জানতে চান ওই সংসদে টাকা দেওয়া হয় নি কেন? বড় পঞ্চায়েত হিসেবে আয়াসকে বেশি টাকা দেওয়া হয়েছে। চার চারবার টাকা দেওয়া হয়েছে। মেনটেনান্সের টাকা দেওয়া হয়েছে। প্রধানকে জানিয়েছেন?


তার উত্তরে বুথ সভাপতি বলেন ৮ বার একশন প্ল্যান জমা দিয়েছি। রাস্তার ছবি নিল। পুজোর আগে রাস্তা হবে বলে, এখন বলছে হবে না।  ব্লক সভাপতি সব জানেন। অঞ্চল সভাপতি না থাকায় উত্তর দেন অঞ্চল প্রধান। তারপর ক্ষুব্ধ অনুব্রত বলে বসেন, আপনি প্রধান, অঞ্চল সভাপতি হলে দল লিড পাবে কি করে? আর অপদার্থ আছেন ব্লক সভাপতি আনারুল হোসেন ও বিধায়ক আশিস বন্দ্যোপাধ্যায়। তারপর মঞ্চেই ধমক দিতে শুরু করেন অনুব্রত। 


আশিসবাবুকে অনুব্রত বলেন, ও কথা বলছে কেন? ওর হাতে মাইক কেন? অঞ্চল সভাপতির কাছে যে তথ্য পাব, সেটা কি প্রধান দিতে পারবে?  আশিসবাবু বলেন, উন্নয়ন তো হয়েছে। তখন অনুব্রত বলেন, কি উন্নয়ন হয়েছে? মুখের সামনেই তো বললো, সব শুনলে। অভিযোগ মানতাম, যদি পঞ্চায়েত টাকা না পেত। চার চারবার টাকা পেল।  তারপর প্রধানকে ফের ধমক দিয়ে অনুব্রত বলেন, এম এল এ ও মন্ত্রী কি রাস্তা ভাগ করতে যাবেন? আপনি ঠিক করে কাজ করুন।  যদিও বুথ সভাপতি বলেন, আশিস বন্দ্যোপাধ্যায় ভালো মানুষ তার কোন দোষ নেই। 


সভার শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে অনুব্রত বলেন, তিনি কাউকে অপদার্থ বলেন নি। একই ভাবে আশিসবাবু বলেন, জেলা সভাপতির সঙ্গে তাঁর দাদা ভাইয়ের সম্পর্ক। তিনি কিছু বলেননি। 


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only