রবিবার, ১১ অক্টোবর, ২০২০

দলিত বলেই কি চেয়ারের পরিবর্তে বসতে দেওয়া হল মেঝেতে! গোপন ক্যামেরায় চিত্র ফাঁস



চেন্নাই, ১১ অক্টোবরঃ দেশজুড়ে দলিতদের প্রতি বৈষম্যমূলক আচরণ থামার কোনও লক্ষণই নেই। জাতের নামে বজ্জাতির ঘটনা ঘটেই চলেছে। উন্নাও থেকে হাথরস, সবক’টি ঘটনাতেই তার প্রমাণ মিলেছে। এবার উচ্চবর্ণের লোকদের সঙ্গে এক বৈঠকে সবাই চেয়ারে বসলেও মেঝেতে বসতে হয় এক মহিলাকে। তাঁর একমাত্র ‘অপরাধ’ তিনি দলিত। তাই উচ্চবর্ণের লোকদের মতো চেয়ারে বসার ‘সৌভাগ্য’ হয়নি তাঁর।


জানা গিয়েছে, ওই দলিত মহিলা একটি পঞ্চায়েতের সভাপতি। বৈঠক চলাকালীন তাঁর এভাবে মাটিতে বসে থাকার ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে। অমানবিক এই ঘটনাটি ঘটেছে তামিলনাড়‍ুর কুড্ডালোর জেলায়। স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, কুড্ডালোর জেলার থেরকু থিট্টাই গ্রাম পঞ্চায়েতের সভাপতি ওই মহিলা আদি দ্রাবিড় সম্প্রদায়ের। গতবছর তামিলনাড়‍ুতে হওয়া পঞ্চায়েত নির্বাচনে তপশিলি জাতির জন্য সংরক্ষিত আসন থেকে ভোটে জিতে সভাপতি হন। 


কিন্তু কোনও দিনই তিনি ন্যায্য মর্যাদা, সম্মান পাননি। ওই মহিলা পঞ্চায়েতের অন্যান্য সদস্য উচ্চবর্ণের। কিন্তু ওই মহিলা নিম্নবর্ণের হওয়ায় সবসময়ই তাঁকে হেনস্থার শিকার হতে হয়। কোনও বৈঠকে বা অনুষ্ঠানে তাঁকে যেমন সভাপতিত্ব করতে দেওয়া হয় না, তেমনই জাতীয় পতাকাও তুলতে দেওয়া হয় না। সম্প্রতি একটি বৈঠকের সময় সহ-সভাপতির আপত্তির কারণে তিনি একজন সভাপতি হয়েও চেয়ারে বসতে পারেননি। সেই ঘটনার ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হতেই বিতর্ক শুরু হয়।


কুড্ডালোরের জেলাশাসক ওই পঞ্চায়েতের সচিবকে বরখাস্ত করার পাশাপাশি তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন। বিষয়টি নিয়ে তীব্র ক্ষোভপ্রকাশ করেছেন ওই দলিত মহিলা সভাপতিও। তিনি বলেন, আমি দলিত হওয়ায় কোনও অনুষ্ঠানে পতাকা তুলতে পারতাম না। এতদিন আমি সমস্ত বিষয়ে উচ্চবর্ণের মানুষদের সঙ্গে সহযোগিতা করেছি। কিন্তু পরিস্থিতি ক্রমশ সহ্যের বাইরে চলে যাচ্ছে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only