শুক্রবার, ১৬ অক্টোবর, ২০২০

বম্বে হাইকোর্টে যান, অর্ণবের আর্জি ফেরাল সুপ্রিমকোর্ট



নয়াদিল্লি, ১৬ অক্টোবরঃ আশাহত হলেন রিপাবলিক টিভির সম্পাদক অর্ণব গোস্বামী। ভেবেছিলেন সুপ্রিম কোর্টে গেলে হয়তো ‘স্বস্তি’ পাবেন। ঠিক যেমনটা চলতি বছরের ২৪ এপ্রিল পেয়েছিলেন তিনি। পালঘর পুরোহিত হত্যার ঘটনায় নিজের টিভি চ্যানেলের একটি শো’তে অর্ণবের বিরুদ্ধে উসকানিমূলক মন্তব্য করার অভিযোগ উঠেছিল। তা নিয়ে অর্ণবের বিরুদ্ধে একাধিক এফআইআর হয়। সেইসময় সুপ্রিম কোর্ট অর্ণবের আবেদনে সাড়া দিয়ে তাঁকে তিন সপ্তাহের সুরক্ষা কবচ দিয়ে অন্তর্বর্তী জামিনের আবেদন করার জন্য বলে। সুপ্রিম কোর্টের তরফে সাফ জানিয়ে দেওয়া হয়, এই সময়ের মধ্যে কোনও অবস্থাতেই অর্ণবকে গ্রেফতার করা যাবে না, বা তাঁর বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা নেওয়া যাবে না। এক্ষেত্রে অবশ্য অর্ণবকে হতাশই করল শীর্ষ আদালত। বৃহস্পতিবার সুপ্রিম কোর্ট অর্ণবকে বলেছে, ‘আপনার অফিস তো মুম্বইয়ের ওরলিতে। বম্বে হাইকোর্টে গিয়ে আবেদন করুন। আমাদের হাইকোর্টের উপর যথেষ্ট আস্থা আছে।’ 


টিআরপি দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে অর্ণব গোস্বামীর রিপাবলিক টিভির বিরুদ্ধে। ইতিমধ্যে সংশ্লিষ্ট টিভি চ্যানেলের কয়েকজন আধিকারিককে জেরাও করেছে মুম্বই পুলিশের অপরাধ দমন শাখা। এমনকী অর্ণবকেও নোটিশ পাঠানোর কথা ভাবছে মুম্বই পুলিশ। এই পরিস্থিতিতে মুম্বই পুলিশের টিআরপি দুর্নীতির তদন্ত পদ্ধতিকে চ্যালেঞ্জ করে রিপাবলিক টিভির পক্ষ থেকে সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করা হয়। বৃহস্পতিবার সেই মামলার শুনানি ছিল। সেখানে সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি ডি ওয়াই চন্দ্রচূড়ের নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যর বেঞ্চ রিপাবলিক টিভির কর্ণধারের আইনজীবীকে বলেন, সুপ্রিম কোর্টে আসার আগে বম্বে হাইকোর্টে গিয়ে আবেদন করতে। বিচারপতি চন্দ্রচূড়ের কথায়, ‘আপনাদের অফিস তো ওরলিতে। ওরলি থেকে ফ্লোরা ফাউন্টেন (এখানেই বম্বে হাইকোর্ট অবস্থিত) তো খুব কাছেই। আমাদের উচিত আমাদের হাইকোর্টগুলির উপর বিশ্বাস রাখা।’ 


অর্থাৎ, বিচারপতির কার্যত স্পষ্ট করেদিলেন, রিপাবলিক টিভির কর্ণধারকে হাইকোর্টেই আবেদন করতে হবে। তবে যেভাবে পুলিশ আধিকারিকদের মধ্যে প্রেস মিডিয়ার কাছে যাওয়ার প্রবণতা তৈরি হয়েছে তার সমালোচনাও করেছেন বিচারপতি চন্দ্রচূড়। বিচারপতির কথায়, ‘ইদানীং পুলিশ কমিশনাররা যেভাবে প্রেসে ইন্টারভিউ দিচ্ছেন তা নিয়ে আমরা উদ্বিগ্ন।’ সুপ্রিম কোর্টের আদেশ মেনেই এ দিন রিপাবলিক টিভির পক্ষের আইনজীবী হরিষ সালভে শীর্ষকোর্টে করা তাঁর আবেদনটি প্রত্যাহার করে নেন। অন্যদিকে, মুম্বই পুলিশের তরফে পেশ করা হলফনামায় বলা হয়, সংবিধানের ১৯ নম্বর ধারায় প্রদত্ত বাকস্বাধীনতা ও মতপ্রকাশের স্বাধীনতাকে অপরাধ করার জন্য ও অপরাধের তদন্তপ্রক্রিয়াকে বাধা দান করার জন্য ঢাল হিসেবে ব্যবহার করা যায় না। হলফনামায় আরও বলা হয়েছে, রিপাবলিক টিভি টিআরপি দুর্নীতি নিয়ে শো করে চলেছে। দুর্নীতির সাক্ষীদের সঙ্গে যোগাযোগ করে তাঁদের ভয় দেখানো হচ্ছে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only