মঙ্গলবার, ১৩ অক্টোবর, ২০২০

ইমাম ভাতা যেন আটকে না থাকে‌: আবদুল গণি



পুবের কলম প্রতিবেদকঃ রাজ্য ওয়াকাফ বোর্ড নথিভুক্ত ইমাম-মোয়াজ্জেন ৬০ হাজারের কিছু বেশি। তারা যাতে সঠিক সময়ে তারা তাদের প্রাপ্য ভাতা পান তার জন্য ওয়াকফবোর্ডের চেয়ারম্যান এক বৈঠক করেন। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন, বোর্ডের সিইও নাভেদ আখতার ডেপুটি সিইও মোদাসার মোল্লা এবং কয়েকজন ইমাম প্রতিনিধি। 


বৈঠক শেষে চেয়ারম্যান আবদুল গণি বলেন, প্রায় সমস্ত ইমামই সঠিক সময়ে ভাতা পান। কিছু ক্ষেত্রে সামান্য অসুবিধা হয়। তারা যাতে সেই ভাতা দ্রুত পান সে ব্যাপারে উদ্যোগ গ্রহণের পরামর্শ দেন। চেয়ারম্যান বলেন, ওয়াকফ বোর্ড নিযুক্ত সমস্ত ইমামের ভাতা পাওয়ার অধিকার আছে। তারা প্রত্যেকে যাতে আইন সঙ্গত ভাবে ভাতা পান সেদিকে লক্ষ রাূতে হবে। অকারনে কোনও ইমাম-মোয়াজ্জেনকে হয়রান করা যাবে না। কোভিড-১৯ পরিস্থিতিতে কোনও কোনও ইমাম দুরাদুরন্তের জেলা থেকে কষ্ঠ করে আসছেন। কাজেই তাদের ভাতা বন্ধরাূা যাবে না। যাতের ভাতা কোনও কারনে আইকে রয়েছে তাদের দ্রুত সমাধান করে ভাতা প্রদানের ব্যবস্থা করতে বলেন। 


অন্যদিকে, বীরভূমের পাথরচাপুড়ী মাজার এলাকায় কিছু মানুষ পরিযায়ী শ্রমিক দাবী করে ব্যবসা শুরু করেছে। এদের অনেকেই পরিস্থিায়ী শ্রমিক নয়। তাদের বিরুদ্ধে পাথর চাপুড়ী ডেভলপমেন্ট কমিটি ব্যবস্থা নিবে বলে আবদুল গনি জানান। তিনি আরও জানান, যারা ওই মাজার চত্বরে দোকান দিচ্ছে তারা যদি সত্যিকারের পরিযায়ী শ্রমিক হয় তাহলে তা খতিয়ে দেখা হবে। তারপন বিবেচনা করবে বোর্ড। এছাড়াও আগামী ১৪ অক্টোবর পাথরচাপুড়ি ডেভলপমেন্ট অথরিটির চেয়ারম্যান বিধায়ক মইনুদ্দিন শামস-এর সঙ্গে বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। ওই দিন পাথর চাপুড়ির উন্নয়ন নিয়েও আলোচনা হবে বলে আবদুল গণি জানান। 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only