শুক্রবার, ৯ অক্টোবর, ২০২০

লকডাউন ও অতিবৃষ্টির কারণে বাজারে লবণ সংকটের সম্ভাবনা



জামনগর, ৯ অক্টোবরঃ দেশীয় বাজারে লবণের ঘাটতি দেখা দিতে পারে। কারণ চলতি বছর ব্যাপক হারে কমেছে লবণের উৎপাদন। এর মূলত দু’টি কারণ। প্রথম কারণ অবশ্যই দীর্ঘ লকডাউন। আর দ্বিতীয় কারণ হল, দু’বছর ধরে অতিরিক্ত বৃষ্টিপাত। এই জোড়া ফলায় ব্যাপক হারে লবণ উৎপাদন ব্যাহত হয়েছে গুজরাতে। 


ইন্ডিয়ান সল্ট ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি বিসি রাওয়াল জানিয়েছেন, ২০১৮-১৯ সালে দেশে লবণ উৎপাদন হয়েছিল ৩০০ লক্ষ টন। তার মধ্যে কেবলমাত্র গুজরাতেই উৎপাদিত লবণের পরিমাণ ২৬০ লক্ষ টন। কিন্তু ২০১৯ থেকে চলতি মাস পর্যন্ত অতিবৃষ্টি হয়েছে ভারতে। তাছাড়া লকডাউনের কারণে প্রায় চার মাস ধরে কারখানাগুলি বন্ধ ছিল। তার জেরে চলতি বছর লবণের উৎপাদনে ৩৫ শতাংশ ঘাটতি রয়েছে। 


রাওয়াল আরও জানিয়েছেন, উৎপাদন কম হওয়া মানে লবণ সংরক্ষণ করা যাবে কম। চলতি বছর জুন, জুলাই থেকে সেপ্টেম্বর মাসে যে লবণ উৎপাদন হয়েছে তা আগামী বছর সেপ্টেম্বর-অক্টোবর মাসে বাজারে আসবে। আর সেখানে দেখা যাবে ঘাটতি।


বিশ্বে লবণ উৎপাদনে ভারত তৃতীয়স্থানে রয়েছে। আর এ দেশের যে পাঁচটি রাজ্যে লবণ উৎপাদন হয় সেগুলি হল, গুজরাত, তামিলনাড়‍ু, রাজস্থান, মহারাষ্ট্র ও অন্ধ্রপ্রদেশ। তার মধ্যে শুধুমাত্র গুজরাতেই দেশের ৭৬ শতাংশ লবণ উৎপাদন হয়। ইন্ডিয়ান সল্ট ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, ভারতে প্রতিবছর দেশীয় চাহিদা মেটাতে ৯০ লক্ষ টন লবণের প্রয়োজন হয়। এ ছাড়া প্রতি বছর ভারত ৫০ লক্ষ টন লবণ রফতানি করে। 


এ ছাড়া চাহিদা অনুযায়ী, আরও ৩৪ থেকে ৪০ লক্ষ টন রফতানি করা হয়। বৃষ্টির সময় বাদ দিয়ে বছরে ৯ মাস লবণ উৎপাদনের উপযুক্ত। কিন্তু এ বছর মাত্র ৪ মাস সময় পাওয়া যাচ্ছে। এই সময়ে দেশের মোট চাহিদা মেটানোর মতো লবণ উৎপাদন সম্ভব কি না, তা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে খোদ উৎপাদকদেরই। এর চাপ গিয়ে পড়বে গেরস্থের হেঁসেলে।


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only