রবিবার, ১৮ অক্টোবর, ২০২০

নিরাপত্তার তাগিদে যোগী রাজ্য ছেড়ে দিল্লিতে যেতে চায় মৃতার পরিবার



হাথরস, ১৮ অক্টোবর: নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন হাথরসে মৃতার পরিবার। আর তাই নিরাপত্তার তাগিদে দিল্লিতে চলে যাওয়ার পরিকল্পনা করছেন তারা। পাশাপাশি রাজধানী শহর থেকেই ন্যায়বিচারের লড়াই চালিয়ে যেতে চান মৃতার পরিবার।


হাথরসকাণ্ডের জেরে প্রবল সমালোচনার মুখে যোগী সরকার। সরকারের তরফে তদন্তভার তুলে দেওয়া হয়েছে সিবিআইয়ের হাতে। যদিও তাতে সন্তুষ্ট নন মৃতার পরিবার। স্পষ্ট না বললেও নির্যাতিতার দাদা প্রশ্ন তুলেছিল, সিট তদন্ত করছিল। তারপর আবার সিবিআই তদন্তের কেন দরকার পড়ল? অর্থাৎ ঠারেঠোরে পরিবার বুঝিয়ে দিয়েছিল সিবিআই তদন্তে তাদের আস্থা নেই। শুধু তাই নয়। গণধর্ষণের ঘটনা প্রকাশ্যে আসতেই, চারিদিক থেকে পরিবারটিকে শাসানির মুখে পড়তে হচ্ছিল বলে অভিযোগ। এতো কিছুর মধ্যে পদ্ম শিবিরের এক নেতা উল্টে এই ঘটনার জন্য অত্যাচারের শিকার ওই তরুণীর দিকেই আঙুল তোলেন। এই অবস্থায় ভীত সন্ত্রস্ত্র দলিত পরিবারটি। এমনকী গ্রামে থাকতেই আর সাহস পাচ্ছে না তারা।


উনিশ বছরের ওই তরুণীর দাদা বলেন, দিল্লিতে মামলাটি স্থানান্তরিত করতে চায়। শুধু মামলা নয়। রাজধানীতেই তারা পাকাপাকিভাবে থাকতেও চান। ' হাথরসের নির্যাতিতা পরিবারের আইনজীবী সীমা কুশওয়াও এলাহাবাদ হাইকোর্টের লখনউ বেঞ্চে জানিয়েছেন, 'হাথরসের পরিবার চাইছে ধর্ষণ-খুনের মামলাটি দিল্লি অথবা মুম্বই অর্থাৎ উত্তরপ্রদেশের বাইরে যে কোনও জায়গায় সরিয়ে দেওয়া হোক।  নিরাপত্তা নিয়ে ভয় পাচ্ছে পরিবারটি। মামলা চলাকালীন হাথরসের নির্যাতিতার পরিবারের জন্য নিরাপত্তারক্ষী দেওয়ার আর্জিও জানান তাঁদের আইনজীবী।


মৃতার পরিবারটির নিরাপত্তার দায়িত্বে রয়েছেন এসডিএম অঞ্জলি গাঙ্গওয়ার। সংবাদমাধ্যম সূত্রে খবর, শনিবার হাথরসের ওই পরিবারটির বাড়িতে গিয়েছিলেন তিনি। নিরাপত্তা নিয়ে পরিবারের সদস্যদের  আশ্বস্ত করার পাশাপাশি সাপ্তাহিক রেশন ও পশুখাদ্য দেওয়ার প্রতিশ্রুতিও তিনি দেন। মৃত তরুণীর বাবা চাষজমিতে গিয়ে কাজ করার অনুমতি চান। এসডিএম সে অনুমতিও দিয়েছেন। পুলিশ পাহারাতেই তিনি জমিতে যাবেন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only