সোমবার, ১৯ অক্টোবর, ২০২০

বাবরি মসজিদ রায়কে চ্যালেঞ্জ জানাবে ল’ বোর্ড



পুবের কলম, নয়াদিল্লিঃ বিশেষ সিবিআই আদালত বাবরি মসজিদ ধ্বংস মামলার দিয়েছে। সেই রায়ে ৩২ জন অভিযুক্ত বেকসুর খালাস পেয়েছেন। খালাস পাওয়া অভিযুক্তদের মধ্যে রয়েছেন প্রাক্তন ডেপুটি প্রধানমন্ত্রী এল কে আদবানি, প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী মুরলী মনোহর যোশি, উমা ভারতী, উত্তরপ্রদেশের প্রাক্তন ম‍ুখ্যমন্ত্রী কল্যাণ সিং এবং অন্যান্য বিজেপি ও আরএসএস নেতারা। এই রায়ে দেশজুড়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন বহু সংগঠন ও বুদ্ধিজীবীমহল। এবার এই রায়কে চ্যালেঞ্জ জানাবে বলে গত শনিবার জানাল সর্বভারতীয় মুসলিম পার্সোনাল ল’ বোর্ড।


এই বোর্ড উদ্বেগ প্রকাশ করে জানিয়েছে যে, মানুষের মনোযোগ ঘুরিয়ে দিতে ও সব দিকে নিজেদের ব্যর্থতা ঢাকতে মোদি সরকার অভিন্ন সিভিল কোডের কথা তুলতে পারে। বাবরি রায়কে চ্যালেঞ্জ জানানোর সিদ্ধান্ত নিতে দু’দিন ধরে ভিডিয়ো কনফারেন্সিং করেছে এই বোর্ড। এই আলোচনাসভার সভাপতিত্ব করেছেন বোর্ডের প্রেসিডেন্ট মাওলানা সৈয়দ মুহাম্মদ রাবে হাসানি নাদভি। অতিমারির আবহে বোর্ড এই প্রথম কোনও সভা করল।


পর্যাপ্ত তথ্যপ্রমাণের অভাব রয়েছে বলে বিশেষ বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার যাদবের আদালত বেকসুর খালাস করে দিয়েছে অভিযুক্তদের। যদিও ছিল যথেষ্ট নথি, তথ্য, প্রত্যক্ষদর্শীদের বয়ান, অভিযুক্তদের স্বীকারোক্তি। তারপরও এই রায় যা নিয়ে উষ্মা প্রকাশ করে বোর্ড প্রশ্ন তুলেছে, কেমন ধরনের তথ্য প্রমাণকে আদালত বিশ্বাসযোগ্য বলে মনে করে? এককদম এগিয়ে গিয়ে বিচারপতি স্বয়ং বলেছেন যে, এই ধ্বংস পূর্বপরিকল্পিত নয় এবং অভিযুক্তরা উসকানি নয়, উন্মত্ত জনতাকে রোখার চেষ্টা করছিলেন। 


তাছাড়া, সিবিআই যে ভিডিয়ো ও অডিওগুলি দাখিল করেছে, সেগুলির সত্যতা ও যথার্থতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে আদালত। যদিও গত বছর হিন্দুদের পক্ষে রায় দিয়েও সুপ্রিম কোর্ট বলেছিল যে, মন্দিরের ধ্বংসস্তূপের উপর বাবরি মসজিদ নির্মাণ করা হয়নি। সব দিক বিবেচনা করে সর্বভারতীয় মুসলিম পার্সোনাল ল’ বোর্ড এই সিদ্ধান্তে এসেছে যে, সিবিআই এই রায়কে চ্যালেঞ্জ করুক বা না করুক, তারা হাইকোর্টে এই রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে মামলা করবে, যাতে ন্যায়বিচার মেলে। 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only