মঙ্গলবার, ১৩ অক্টোবর, ২০২০

জিএসটি বকেয়া ক্ষতিপূরণে ঐকমত্য ছাড়াই শেষ হল বৈঠক



পুবের কলম, নয়াদিল্লিঃ ১২ অক্টোবর জিএসটি কাউন্সিলের ৪৩তম বৈঠকে জিএসটি বকেয়া ক্ষতিপূরণ নিয়ে রাজ্যগুলির সঙ্গে কেন্দ্রীয় সরকারের ঐকমত্য হল না। কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মালা সীতারমন কাউন্সিলের বৈঠক শেষে এ দিন সাংবাদিক বৈঠকে জানিয়েছেন, কেন্দ্রীয় সরকারের ঋণ নিয়ে ক্ষতিপূরণ মেটানোর প্রস্তাবে সায় দেয়নি ৯টি রাজ্য। 


কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী জানিয়েছেন, জিএসটির বকেয়া ক্ষতিপূরণ মেটাতে রাজ্যগুলিকেই ঋণ নিতে হবে। কেন্দ্রীয় সরকার ঋণ নিয়ে বকেয়া মেটালে পরবর্তী সময়ে রাজ্যগুলি এবং বেসরকারি সংস্থাগুলির ঋণ নেওয়ার আনুষাঙ্গিক খরচ বেড়ে যাবে। তিনি আরও জানান, যে ৯টি রাজ্য কেন্দ্রীয় সরকারের প্রস্তাবে রাজি হয়নি তাদের দাবি খতিয়ে দেখতে তাঁর কিছু সময় প্রয়োজন। তবে ২১টি রাজ্য কেন্দ্রের ঋণ-প্রস্তাবে সায় দিয়েছে। 


সীতারমন আরও বলেন, কেন্দ্র ঋণ নিয়ে জিএসটি বকেয়া ক্ষতিপূরণ মেটাতে গেলে জি-সিকিউরিটি বন্ডে বেশি অর্থ চোকাতে হবে। তিনি আরও জানান, জিএসটি বকেয়া ক্ষতিপূরণ নিয়ে কেন্দ্রের সঙ্গে রাজ্যগুলির কোনও সংঘাত নেই। আছে শুধু মতানৈক্য। জিএসটি থেকে আয় কম হয়েছে বলে বকেয়া ক্ষতিপূরণ মেটানো যাচ্ছে না। জিএসটি আদায়ে এই ঘাটতি মেটাতে হবে ঋণ নিয়েই--- বলে মন্তব্য করেন সীতারমন। তিনি আরও জানান, অন্য রাজ্য ঐকমত্যের ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত নেওয়ার উপরে জোর দিয়েছে।


প্রসঙ্গত, জিএসটি ক্ষতিপূরণ কীভাবে রাজ্যগুলিকে দেওয়া হবে সেই নিয়ে ১২ অক্টোবর সোমবারে বৈঠক ছিল জিএসটি কাউন্সিলের তৃতীয় বৈঠক। প্রথম বৈঠকে কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন দু’টি প্রস্তাব রেূেছিলেন রাজ্যগুলির সামনে। জিএসটি চালুর পরেই যে আয় কমেছে রাজ্যগুলি সেই ৯৭ হাজার কোটি টাকা বাজার থেকে ধার করতে পারে। অথবা জিএসটি চালু ও করোনার জেরে ২.৩৫ লক্ষ কোটি টাকা আয় কম হয়েছে তার পুরোটাই ধার করতে পারে। বিজেপি ও এনডিএ শাসিত ২১টি রাজ্য প্রথম বিকল্প বেছে নেয়। 


কিন্তু বাকি রাজ্যগুলি চেয়েছিল জিএসটি-বিবাদ মেটানোর জন্য একটি কমিটি গঠন করা হোক। এর জন্য বিরোধী-শাসিত রাজ্যগুলি সুপ্রিম কোর্টে আবেদন দায়ের করার কথাও ভেবেছে। তবে সব রাজ্যই চাইছে জিএসটি ক্ষতিপূরণের বিষয়টি মীমাংসা তাড়াতাড়ি করা হোক। গত ৫ অক্টোবরের জিএসটি কাউন্সিলের বৈঠকে এ বিষয়ে সর্বসম্মতিক্রমে কোনও প্রস্তাব গ্রহণ করা যায়নি। তবে বিজেপি শাসিত রাজ্যের অর্থমন্ত্রীরা মনে করেছিলেন বিষয়টি মীমাংসা করা হোক ভোটাভুটির মাধ্যমে। 




একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only