শুক্রবার, ১৬ অক্টোবর, ২০২০

এবার সোমালিয়া থেকেও সেনা সরাতে চান ট্রাম্প



ওয়াশিংটন, ১৬ অক্টোবরঃ আফগানিস্তান, সিরিয়া, ইরাকের পর এবার সোমালিয়া থেকেও মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের বিষয়টি বিবেচনা করছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এই লক্ষ্যে হোয়াইট হাউজের শীর্ষ কর্মকর্তাদেরকে তিনি তাঁর এই ইচ্ছার কথা জানিয়ে দিয়েছেন। সেই মতোই মার্কিন প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের সদর দফতর পেন্টাগন ট্রাম্পের পরিকল্পনা সফল করতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ শুরু করেছে বলে বুধবার জানায় ব্ল‍ুমবার্গ। তারা এও জানিয়েছে, সোমালিয়া থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহার কীভাবে হবে, কোন পর্যায়ে কেমন কৌশল নেওয়া হবে, ইত্যাদি বিষয়ে খসড়া তৈরির কাজ শুরু করেছে হোয়াইট হাউজের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। 


এই প্রক্রিয়া তদারকির মূল দায়িত্বে থাকছেন আমেরিকার প্রতিরক্ষামন্ত্রী মার্ক এসপার, ট্রাম্পের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা রবার্ট ও’ব্রায়েন, জয়েন্ট চিফ অফ স্টাফের চেয়ারম্যান মার্ক মিলেই প্রমুখ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা। উল্লেখ্য, আফ্রিকা মহাদেশের মুসলিম প্রধান এবং অনুন্নত দেশ সোমালিয়ায় ৮০০-র মতো সেনা মোতায়েন রয়েছে। মার্চ ২০১৭ তাদেরকে সোমালিয়ায় মোতায়েন করেছিলেন ট্রাম্পই। এব্যাপারে ওয়াশিংটনের সাফাই হল, জঙ্গিগোষ্ঠী আল-শাবাবের মোকাবিলা করতেই সোমালীয় সেনাবাহিনীকে সাহায্য করে আসছে মার্কিন সেনারা। 


বিশেষজ্ঞদের মতে, আল-শাবাব, আল-কায়দা, বোকো হারাম ইত্যাদি বিভিন্ন জঙ্গি ও সন্ত্রাসী গোষ্ঠীকে পেন্টাগনই জন্ম দিয়েছে। এইসব গোষ্ঠীগুলোকে রিমোট কন্ট্রোলে পরিচালনা ও নিয়ন্ত্রণও করে থাকে আমেরিকাই। এদেরকে দিয়ে বিভিন্ন সময়ে ধ্বংসাত্মক ও হিংসাত্মক কার্যকলাপ চালানো হয়। আর সেই অজুহাতে ওইসব মুসলিম দেশগুলোতে নাক গলায় এবং সামরিক হস্তক্ষেপ করে আমেরিকা। এর মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর সরকারকে চাপ দিয়ে ব্ল্যাকমেলের চেষ্টা হয়। সবশেষে রিজিম চেঞ্জ অর্থাৎ, সরকারকে উৎখাত করে পরিবর্তে পুতুল সরকার বসানো হয়।


যারা আমেরিকার অঙ্গুলি হেলনে চলবে এবং তাদের অফুরন্ত খনিজ ও প্রাকৃতিক সম্পদের ঠিকেদারি তুলে দেবে পশ্চিমাদের হাতে। কিন্তু বাস্তবে দেখা যাচ্ছে, জঙ্গি ও সন্ত্রাসীদের সঙ্গে সব বিষয়ে বনিবনা না হওয়ায় ভুলবশত হামলায় বহু মার্কিন ও বিদেশি সেনা নিহত হয়েছে। আবার বিশ্বজুড়ে দাদাগিরি করতে গিয়ে ফি-বছর কোটি কোটি ডলার খোয়াতে হচ্ছে। তাই বিদায়কালে ওইসব দেশ থেকে মার্কিন সেনাদের ফিরিয়ে আনতে চেষ্টা করছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। অনেকের মতে, সেনাদেরকে তাদের পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দিয়ে সহানুভূতি ভোট আদায় করতে চাইছেন প্রেসিডেন্ট।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only