বুধবার, ২৮ অক্টোবর, ২০২০

বেসরকারি স্কুলকে ফি কমাতেই হবে, হাইকোর্টের রায় বহাল রাখল সুপ্রিমকোর্ট



পুবের কলম ওয়েব ডেস্ক: করোনা আবহে বিভিন্ন বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান অতিরিক্ত ফি নিচ্ছে, অভিভাবকরা তা দিতে পারবেন না। লকডাউনে অনেকেই কাজ হারিয়েছে তাই, কমাতে হবে ফি। এমনই দাবিতে কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন বিভিন্ন বেসরকারি স্কুল পাঠরত পড়ুয়াদের অভিভাবকরা। হাইকোর্ট সব পক্ষের বক্তব্য শোনার পর ২০ শতাংশ হারে ফি কমানোর নির্দেশ দেন গত ১৩ অক্টোবর। হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে সুপ্রিমকোর্টে গিয়েছিল শহরের একাধিক বেসরকারি স্কুল কর্তৃপক্ষ। কিন্তু বুধবার সেই দাবি খারিজ করে দিল সর্বোচ্চ আদালত।

জানা গিয়েছে, এ দিন মামলাকারী স্কুলগুলির আইনজীবী অভিষেক মনু সিঙ্ঘভি স্কুল ফি নিয়ে কলকাতা হাইকোর্টের রায়কে সংবিধানের ২২৬ ধারার উলঙ্ঘন বলে দাবি করেন। স্কুলগুলির অ্যাকাউন্টস পরীক্ষা করার কমিটি নিয়েও তিনি প্রশ্ন তোলেন। তাঁর দাবি, বেসরকারি স্কুলগুলির কথা না শুনেই তাদের বিরুদ্ধে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সব কথা শুনে এ দিন শীর্ষ কোর্টের বিচারপতি অশোক ভূষণ, বিচারপতি আর সুভাষ রেড্ডি ও বিচারপতি এম আর শাহের বেঞ্চ চলছিল শুনানি। শুনানির সময় বিচারপতি এম আর শাহ জিজ্ঞেস করেন, যখন স্কুল বন্ধ তখন ল্যাব ফি, স্পোর্টিং চার্জ কিভাবে নেওয়া হচ্ছে? স্কুলগুলি তেমন সদুত্তর দিতে পারেনি বলেই খবর। পরে শীর্ষ কোর্ট রাজ্য সরকার ও সংশ্লিষ্টদের নোটিশ ইস্যু করে। একইসঙ্গে হাইকোর্টের দেওয়া ২০ শতাংশ ফি কমানোর সিদ্ধান্ত বহাল থাকার কথাও জানিয়ে দেন।

প্রসঙ্গত, কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায় ও বিচারপতি মৌসুমি ভট্টাচার্যের ডিভিশন বেঞ্চ তাঁদের রায়ে জানিয়ে দেন, বিগত আর্থিক বছর থেকে ২০ শতাংশ হারে রাজ্যের সব বেসরকারি স্কুল কর্তৃপক্ষকে কমাতে হবে টিউশন ফি। যদি কোনও অভিভাবক সেই ফি দেওয়ার ক্ষমতা না রাখেন তবে স্কুল কর্তৃপক্ষকে সেই বিষয়টি ভেবে দেখার কথাও বলে আদালত।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only