শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর, ২০২০

ফেসবুক থেকে আঁখি দাসের সরে যাওয়াটা যথেষ্ট নয় ! সংস্থাকে ভবিষ্যতের জন্য সজাগ থাকতে হবে! পড়ুন বিস্তারিত কংগ্রেসের দাওয়ায়



পুবের কলম প্রত্যিবেদকঃ ফেসবুক থেকে আঁখি দাসের পদত্যাগ যথেষ্ট নয় বলে মন্তব্য করেছে প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেস। ফেসবুকের উচিৎ নিরপেক্ষতা বজায় রেখেছে তাদের প্রতিষ্ঠানকে নতুন ভাবে সাজানো যাতে তাদের কর্মপদ্ধতিতে সদর্থক পরিবর্তন আসে। আঁখি দাসের বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল তিনি রাজনৈতিক নিরপেক্ষতা বজায় না রেূে শাসকদল বিজেপিকে সাহায্য করতে কাজ করছিলেন। কংগ্রেস আরও দাবি করেছে যে  ফেসবুক কর্তৃপক্ষের উচিৎ ভুয়ো খবর এবং ঘৃণা ছড়ায় এমন মেসেজ যাতে না প্রচারিত হয় সেদিকে সজাগ দৃষ্টি রাখা।

মঙ্গলবার ফেসবুকের তরফে জানানো হয়েছিল ভারতে ফেসবুক পাবলিক পলিসির শীর্ষপদ থেকে ইস্তফা দিয়েছেন আঁখি দাস। তিনি একটি রাজনৈতিক বিতর্কে জড়িয়ে পড়েছিলেন। তাঁর ‘ভুল কাজ’ গুলি ফাঁস করে দিয়েছিল একটি মার্কিন সংবাদপত্র।

গত ১৪ আগস্ট মার্কিন সংবাদপত্র ওয়াল স্ট্রিট জার্নালে আঁখি দাস সম্পর্কে একটি খবর প্রকাশিত হয়। তাতে বলা হয় শাসক দল এবং শাসক দলের নেতাদের প্রতি পক্ষপাতমূলক আচরণ করছেন তিনি। তিনি বিজেপিকে সাহায্য করতে ভুয়ো খবর এবং হেটস্পিচ বা ঘৃণা ছড়ায় এমন সব মেসেজ প্রচার করার অনুমতি দিয়েছেন ফেসবুকে। বিদেশে ফেসবুকের এই ধরনের কার্যকলাপ নিয়ে আরও দুটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। একটি টাইম পত্রিকায় এবং অপরটি ওয়াল স্ট্রিট জার্নালে। ফেসবুকের কতিপয় কর্মী আঁখি দাসের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন তেলেঙ্গানার বিজেপি বিধায়ক এ রাজার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করেননি তিনি। এ রাজা ফেসবুকে হেটস্পিচ এবং ইসলামোফোবিয়ার প্রচার করছিলেন। কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক এবং সাংসদ কে সি বেনুগোপাল ভারতের গণতন্ত্ররক্ষার জন্য বিষয়টিকে খুবই গুরুত্ব সহকারে তুলে ধরেন। প্রসঙ্গত কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধি এই বিষয়ে সর্বপ্রথম ১৬ আগস্ট টুইট করে নিজের প্রতিবাদ জানান। তারপর ফেসবুকে হেটস্পিচের প্রচার নিয়ে কংগ্রেস সাংবাদিক বৈঠকও করে। সেখানে দাবি করা হয় ফেসবুকের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগের বিষয়টি খতিয়ে দেখতে একটি যৌথ সংসদীয় কমিটি গঠন করা হোক। বেনুগোপাল বলেন দুঃখের বিষয় ফেসবুকের অপকর্মকে প্রথম সমর্থন করেন কেন্দ্রীয় তথ্য ও প্রচারমন্ত্রী। কেন্দ্রীয় সরকারের এক মন্ত্রী ফেসবুকের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন। অথচ মার্কিন সংবাদপত্র ভারতের শাসক দলের সঙ্গে ফেসবুকের যোগসাজশ ফাঁস করে দিয়েছিল। তারপর কংগ্রেস ফেসবুকের মালিক মার্ক জুকেরবার্গকে দুটি চিঠি লিখে সমস্যা সম্পর্কে অবহিত করেছিল। তিনি ফেসবুকের নিরপেক্ষতা বজায় রাূবেন বলে প্রতিশ্রুতিও দিয়েছিলেন। বেনুগোপাল বলেন ফেসবুকের রদবদলকে স্বাগত জানায় কংগ্রেস। কিন্তু শুধু রদবদল ঘটিয়ে সমস্যা মিটবে না। ফেসবুককে তাদের নিরপেক্ষতা প্রমাণ করতে হবে। সংস্থাকে সজাগ থাকতে হবে যাতে ফেসবুকের মাধ্যমে এমন কোনও খবর কিংবা বার্তা না ছড়ায় যাতে ভারতের সামাজিক ঐক্য বিঘ্নিত হয়।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only