শনিবার, ৩১ অক্টোবর, ২০২০

তুরস্কে প্রবল ভূমিকম্প ! ৩৮৯টি আফটারশকে মৃত ২৮,আহত ৮০০ ! বিস্তারিত পড়ুন

 


আঙ্কারা,৩১ অক্টোবর:­ রিখটার স্কেলে ৭ মাত্রার ভূমিকম্পের আঘাতে প্রায় তছনছ হয়ে গেল তুরস্কের তৃতীয় বৃহত্তম শহর ইজমির। প্রতিবেশী গ্রিসেও ভূমিকম্পের ফলে ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। দুই দেশে কম্পনে বাড়ি-ঘর ধসে গিয়ে মৃত্যু হয়েছে অন্তত ২৮ জনের। আহত ৮০০রও বেশি মানুষ। ভূমিকম্প পরবর্তী আফটারশকের সংখ্যা অন্তত ৩৮৯। করোনার মাঝে এমন প্রাকৃতিক বিপর্যয়ে স্বভাবতই সমস্যা বাড়িয়ে দিয়েছে তুর্কি প্রশাসনের। তবে তুর্কি প্রেসিডেন্ট রিসেপ এরদোগান কবলিত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর অঙ্গীকার করেছেন। ৩০ অক্টোবর দুপুরে এজিয়ান সাগর উপকূলে এ ভূমিকম্পটি অনুভূত হয়। কম্পনের তীব্রতায় বহু ভবন ভেঙে পড়ে। ধ্বংসস্তুপে আটকে পড়েন মানুষ।  ইজমিরের গভর্নর ইয়াভুজ সেলিম কসগর জানান ধসে পড়া ভবনের ধ্বংস্তুপ থেকে অন্তত ৭০জনকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে। মৃত্যুর সংখ্যা আরও বাড়ার আশঙ্কা করছেন প্রশাসনিক কর্মকর্তারা। বিপর্যয় মোকাবিলা দল জানিয়েছে ভূমিকম্পের উৎসস্থল ইজমিরের উপকূল থেকে ১৭ কিমি দুরে। তুর্কি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সুলেমান সোয়লু জানান ইজমিরের বেয়ারাকলি ও বোরনোভা জেলায় ৬টি বাড়ি ভেঙে গিয়েছে। উসাক,ডেনিজলি,মনিসা,এডেন,মুগলার মতো সংলগ্ন প্রদেশগুলোতে সামান্য ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। তুরস্কের পশ্চিামাঞ্চলীয় এজিয়ান সাগরে ভূমিকম্পের ফলে মৃদু সুনামিও দেখা গিয়েছে। সোশ্যাল সাইটের ছবি ও ভিডিয়োতে দেখা গেছে লোকজনকে ধ্বংসস্তুপ সরিয়ে আটকদের বের করে আনার চেষ্টা চালাতে দেখা গেছে। গ্রিসের পূর্ব উপকূল ও রাজধানী এথেন্সে মৃদু কম্পন অনুভূত হয়েছে। তবে গ্রিসের চেয়ে কম্পনের তীব্রতা অনেক বেশি ছিল তুরস্কে। আপাতত জরুরি তৎপরতায় চলছে উদ্ধারকাজ।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only